Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৯ বুধবার, জুন ২০২৪ | ৪ আষাঢ় ১৪৩১ | ঢাকা, ২৫ °সে

দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা চুয়াডাঙ্গায়

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ২০ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৯:০৯ PM
আপডেট: ২০ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৯:০৯ PM

bdmorning Image Preview
সংগৃহীত


দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা চুয়াডাঙ্গায় ৮.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। দমকা হাওয়ায় চুয়াডাঙ্গায় শীতের তীব্রতা বেড়ে গেছে।

ভোরে কিছুটা কুয়াশাচ্ছন্ন আবহাওয়া থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে তা কেটে যায়। তবে সূর্যের দেখা মিললেও ঠাণ্ডা হাওয়ায় শীত আরো জেঁকে বসেছে।

শীতের তীব্রতা বেড়ে যাওয়ায় সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছেন খেটে খাওয়া মানুষ। সাধারণ মানুষও প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হচ্ছে না। ছিন্নমূল মানুষেরা খড়-কুটোয় আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা চালাচ্ছেন। যাত্রী কম হওয়ায় যাত্রীবাহী বাসগুলোও দেরিতে গন্তেব্যের উদ্দেশে ছেড়ে যাচ্ছে।

চুয়াডাঙ্গার আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের পর্যবেক্ষক তহমিনা নাছরিন জানান, শুক্রবার (২০ ডিসেম্বর) দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৮.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে চুয়াডাঙ্গায়। বাতাসের গতির বেগ ঘণ্টায় ৮ থেকে ৯ কিলোমিটার। চুয়াডাঙ্গায় তাপমাত্রা আরও কমে আসতে পারে বলেও জানান তিনি।

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার নতুন নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাদিকুর রহমান বলেন, ‘এ উপজেলায় ৪ হাজার ৫৫০টি কম্বল বরাদ্দ পাওয়া গেছে। প্রতিদিনই কম্বল বিতরণ অব্যাহত রয়েছে।’

আলমডাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিটন আলী জানান, উপজেলায় প্রায় ৬ হাজার কম্বল পাওয়া গেছে। সেগুলো শীতার্ত মানুষের মধ্যে বিতরণের জন্য উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায় থেকে দিয়ে দেওয়া হয়েছে।

দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম মুনিম লিংকন বলেন, ‘এ উপজেলায় ৪ হাজার কম্বল বরাদ্দ পাওয়া গেছে। সেগুলো বিতরণ চলছে।’

জীবননগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা ৪ হাজার কম্বল বরাদ্দ পেয়েছি। শীতার্ত মানুষের মধ্যে ওগুলো বিতরণ করা হচ্ছে।’

চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার জানান, চুয়াডাঙ্গা শীতার্ত মানুষের জন্য ত্রাণ ভাণ্ডার থেকে ২৬ হাজার কম্বল এসেছে। যা চুয়াডাঙ্গা সদর, আলমডাঙ্গা, দামুড়হুদা ও জীবননগর উপজেলায় বিতরণ করা হচ্ছে।’

 

Bootstrap Image Preview