Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২৫ রবিবার, আগষ্ট ২০১৯ | ১০ ভাদ্র ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

গাইবান্ধায় ভয়াবহ রূপ নিয়েছে বন্যা, পানিবন্দী ৫ লক্ষাধিক মানুষ

গাইবান্ধা প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ১৮ জুলাই ২০১৯, ১০:৪৮ PM
আপডেট: ১৮ জুলাই ২০১৯, ১০:৪৮ PM

bdmorning Image Preview


উজান থেকে নেমে আসা ঢল ও বৃষ্টিপাতে প্রতিদিনই বন্যার পানি বাড়ছে গাইবান্ধায়। জেলার পাঁচ উপজেলার চার লাখ মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন। 

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বিপদসীমার ১৫০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বাঁধ ও ব্রিজ ধসে প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। তলিয়ে গেছে গাইবান্ধা পৌর শহরের অধিকাংশ এলাকা।

পানিবন্দী মানুষ বাঁধ ও উঁচু জায়গায় আশ্রয় নিয়েছেন। খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সংকট দেখা দেওয়ায় মানবেতর জীবন-যাপন করছেন তারা। পানি ওঠায় চার উপজেলার আড়াই শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠদান বন্ধ রয়েছে। পানিতে ডুবে সুন্দরগঞ্জে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে, বিভিন্ন সড়কে পানি ওঠায় এবং তীব্র স্রোতের কারণে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা। গতকাল বুধবার (১৭ জুলাই) সকালে বাদিয়াখালি এলাকায় রেললাইনে পানি ওঠায় অন্যান্য জেলার সঙ্গে গাইবান্ধার ট্রেন যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।

এছাড়া চরম ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে সড়কের বেশ কয়েকটি পয়েন্টসহ ব্রিজ ও কালভার্ট। প্রবল স্রোতে গাইবান্ধা-সাঘাটা সড়কের বাদিয়াখালী ভাঙ্গামোড় ও উল্যা ভরতখালী, গাইবান্ধা-বালাসী ও কালিরবাজার সড়ক এবং গাইবান্ধা-সুন্দরগঞ্জ সড়কের খোলাহাটির কদমেরতল এলাকায় সড়ক ও সেতু ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে গাইবান্ধা সদর উপজেলার সঙ্গে ফুলছড়ি, সাঘাটা ও সুন্দরগঞ্জের সড়ক যোগাযোগ প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।

গাইবান্ধায় বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। আজও বন্যার পানিতে একের পর এক ব্রিজ, কালভার্ট ও পাকা রাস্তা ভাঙছে।

গত কয়েক দিনে গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) সবগুলো বাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়েছে জেলার সাত উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম। জেলা প্রশাসক ও জেলা দায়রা জজের বাসভবনের সামনেও হাঁটু পানি।

গাইবান্ধা পৌরসভার প্রায় সবগুলো ওয়ার্ড ২ থেকে ৩ ফুট বন্যার পানিতে নিমজ্জিত। ট্রেন চলাচলও বন্ধ। ফলে সীমাহীন দুর্ভোগে পড়েছে জেলার পানিবন্দী ৫ লক্ষাধিক মানুষ।

পাউবো সূত্রে জানা যায়, আজ বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) দুপুরে ফুলছড়ির ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বিপৎসীমার ১৫০ সেন্টিমিটার, ঘাঘট নদীর পানি শহরের নতুন ব্রিজ পয়েন্টে বিপৎসীমার ৯৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

তবে সুন্দরগঞ্জ উপজেলার হরিপুর পয়েন্টে তিস্তা নদীর পানি কমে বিপৎসীমার ৩৬ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

জানা যায়, জেলার বন্যাকবলিত সাত উপজেলার ৪০০টি গ্রামের প্রায় ৫ লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। বন্যাকবলিত এলাকার অনেক মানুষ তাদের ঘরবাড়ি, গবাদিপশু নিয়ে আশপাশের উঁচু স্থান ও আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নিয়েছে।

পানির তীব্র স্রোতে ঘাঘট রক্ষা বাঁধসহ পাউবোর বেড়িবাঁধগুলোর বিভিন্ন পয়েন্টে ধস নেমেছে। ফলে জেলার ফুলছড়ি, সাঘাটা, সদর ও সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

বন্যাকবলিত এলাকার মানুষজন সব থেকে ভোগান্তি পোহাচ্ছেন গবাদিপশু নিয়ে। গবাদিপশুর থাকা এবং খাবার চরম সংকট দেখা দিয়েছে।

এছাড়া সংকট সৃষ্টি হয়েছে বিশুদ্ধ খাবার পানির। চরাঞ্চল ও নদীবেষ্টিত চারটি উপজেলার বেশকিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ইতোমধ্যে বন্যার পানি প্রবেশ করেছে। এতে ২৪৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ৮৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ফুলছড়ি উপজেলার তিনটি ও সদর উপজেলার একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে।

এছাড়া ৩৫টি বিদ্যালয়ে আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। তবে জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, ক্ষতিগ্রস্ত লোকের সংখ্যা ৩ লাখ ৫৮ হাজার ৬১৮।

পানির চাপে সদর উপজেলার বাদিয়াখালীতে রেললাইন ধসে পানির নিতে নিমজ্জিত হওয়ায় সান্তাহার, লালমনিরহাট, রংপুর রেলপথে গাইবান্ধার ওপর দিয়ে সব ট্রেন চলাচল দুদিন থেকে বন্ধ।

তবে সান্তাহার থেকে গাইবান্ধার বোনারপাড়া রেলওয়ে স্টেশনের বিভিন্ন লোকাল ট্রেন চলাচল করছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সাঘাটা উপজেলার অর্ধশত গ্রাম নতুন করে প্লাবিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকালে সাঘাটা উপজেলার সঙ্গে গোবিন্দগঞ্জ হয়ে বগুড়ার যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে পাকা সড়কসহ কয়েকটি কালভার্ট ধসে বিভিন্ন উপজেলায় পানি প্রবেশ করছে।

জেলার বানভাসি মানুষের স্বাস্থ্য নিয়ে জানতে চাইলে গাইবান্ধার সিভিল সার্জন এবিএম আবু হানিফ বলেন, বন্যাকবলিত এলাকায় জরুরি স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে ১০৯টি মেডিকেল টিম কাজ করছে। এর মধ্যে বন্যাকবলিত সব উপজেলায় কাজ করছে ৬১টি টিম।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর গাইবান্ধার উপ-পরিচালক এসএম ফেরদৌস জানান, এ জেলায় রোপা আউশ ৯৭৭ হেক্টর, পাট ২ হাজার ৪৩৯ হেক্টর, রোপা আমন বীজতলা ৪৬১ হেক্টর, বিভিন্ন ধরনের সবজি ২৪৭ হেক্টর, পান ৩ হেক্টর এবং তিল ২৫ হেক্টরসহ ৪ হাজার ১৫২ হেক্টর জমি পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে। নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের তালিকা করে বিস্তারিত পরে জানানো হবে ।

গাইবান্ধা জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আব্দুল দাইয়ান জানান, জেলার চার উপজেলার বন্যাকবলিত এলাকার ১ হাজার ৯৫৫টি পুকুরের ৪৯৯ টন মাছ ভেসে গেছে। ভেসে যাওয়া মাছের মূল্য প্রায় ৬ কোটি ৮৫ লাখ টাকা। এছাড়া ২৪ লাখ টাকার ১৯ লাখ মাছের পোনা ভেসে গেছে।

গাইবান্ধার ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মোছা. রোখছানা বেগম জানান, বন্যাকবলিত এলাকাগুলোতে ত্রাণসহায়তা দেয়া অব্যাহত আছে।

বন্যাকবলিত এলাকাগুলোর জন্য এখন পর্যন্ত ৫৮৫ টন চাল, নগদ ৯ লাখ টাকা ও ২ হাজার শুকনো খাবারের প্যাকেট বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এছাড়া নতুন করে আরও এক হাজার টন চাল, ১০ লাখ টাকা এবং পাঁচ হাজার শুকনো খাবারের প্যাকেট বরাদ্দ চেয়ে সংশ্লিষ্ট দফতরে চিঠি পাঠানো হয়েছে। বানভাসিদের জন্য ১২৪টি আশ্রয়কেন্দ্র খুলে দেয়া হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত লোকের সংখ্যা তিন লাখ ৫৮ হাজার ৬১৮।


 

Bootstrap Image Preview