Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২২ সোমবার, অক্টোবার ২০১৮ | ৭ কার্তিক ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

বাজারের সেরা ৫ স্মার্টফোন

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ২২ এপ্রিল ২০১৮, ০৪:৪৯ PM
আপডেট: ২২ এপ্রিল ২০১৮, ০৪:৪৯ PM

bdmorning Image Preview


বিডিমর্নিং ডেস্ক-

প্রতি মাসেই বাজারে আসছে নতুন নতুন মডেলের সব স্মার্টফোন। সবকিছু মিলিয়ে স্মার্টফোনের বাজার এখন সরগরম।

নিত্যনতুন সব আকর্ষণীয় ফিচার নিয়ে ফোনের বাজার মাতাচ্ছে স্মার্টফোন প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানগুলো। বর্তমান বাজারের সেরা ৫টি স্মার্টফোন হল-

আইফোন টেন: অ্যাপলের ফ্লাগশিপ মডেল আইফোন ‘এক্স’ বা আইফোন টেন। অ্যাপলের ১০ বছর পূর্তিতে রিলিজ পাওয়া বেজেললেস এ ফোনটিতে কোম্পানির চিরাচরিত টাচ আইডি ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর রাখেনি।

তার বদলে আছে ফেস রিকগনিশন ফিচার। বেজেললেস হলেও উপরের দিকে ক্যামেরা মডিউলের জন্য রয়েছে নচ। অ্যাপলের এ১১ বায়োনিক এসওসি নিয়ে ফোনটি অত্যন্ত দ্রুতগতির। সঙ্গে রয়েছে মূল ডুয়াল ক্যামেরা সেটআপ। দাম ৯৪,০০০ টাকার কাছাকাছি।

আইফোন ১০-এর এ ফেস আইডি ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সরের চেয়ে নিরাপদ ও দ্রুত বলে অ্যাপলের দাবি। পেছনের দিকে আছে ১২ মেগাপিক্সেল ডুয়েল ক্যামেরা, ডুয়েল টোন কোয়াড এলইডি ফ্ল্যাশ। সামনের দিকে রয়েছে ৭ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। আইফোন ১০-এ এসেছে নতুন ৬৪ বিট ৬ কোর অ্যাপল এ১১ বায়োনিক চিপসেট, যার মধ্যে ৪.৩ বিলিয়ন ট্রানজিস্টর আছে। এটা সেকেন্ডে ৬০০ বিলিয়ন কাজ করতে পারে! এতে আছে ৩ জিবি র‌্যাম।

আইফোন ১০-এ পাবেন অগমেন্টেড রিয়েলিটি, যা আপনাকে বাস্তবের সঙ্গে চমৎকার সব ভার্চুয়াল বিষয়বস্তু যুক্ত করার সুবিধা দেবে। আরও আছে ওয়্যারলেস চার্জিং। ব্যাটারি টকটাইম ২১ ঘণ্টা পর্যন্ত, মিউজিক প্লে ৬০ ঘণ্টা পর্যন্ত। অপারেটিং সিস্টেম : আইওএস ১১। আইফোন ১০-এর ৬৪ জিবি ভ্যারিয়েশনের দাম হবে ৯৯৯ ডলার এবং ২৫৬জিবি ভ্যারিয়েশনের দাম হবে ১১৪৯ ডলার। এটি স্পেস গ্রে এবং সিলভার কালারে পাওয়া যাবে।

স্যামসাং গ্যালাক্সি এস ৯+ : এখন পর্যন্ত ২০১৮-এর সেরা ফোন হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে স্যামসাং গ্যালাক্সি এস ৯+ কে। এর স্পেসিফিকেশন ও ফিচার অনেকটা এস ৯-এর মতো। শুধু ব্যতিক্রম হিসেবে এতে রয়েছে একটু বড় ডিসপ্লে, বড় ব্যাটারি আর প্রফেশনাল পোট্রেট ফটোগ্রাফির জন্য ডুয়াল ক্যামেরা সেটআপ। দাম ১০৫,৯০০ টাকা।

স্ন্যাপড্রাগন ৮৪৫ (যুক্তরাষ্ট্রের জন্য)/অন্যত্র এক্সাইনস ৯৮১০ প্রসেসর। ৬.২ ইঞ্চি কিউএইচডি (২৯৬০ x ১৪৪০পি) সুপার অ্যামোলেড স্ক্রিন, ৬জিবি র‌্যাম, ৬৪ জিবি স্টোরেজ, মাইক্রোএসডি কার্ড স্লট অ্যান্ড্রয়েড ৮ ওরিও অপারেটিং সিস্টেম, পেছনের দিকে ২টি ক্যামেরা, ৮ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা।

ভ্যারিয়েবল অ্যাপার্চার, ৯৬০ ফ্রেম/সেকেন্ড সুপার স্লো মোশন ভিডিও। আইপি৬৮ ওয়াটার রেজিস্ট্যান্স, ডলবি অ্যাটমস সাউন্ড, ব্লুটুথ ৫.০, এআর ইমোজি, হেডফোন জ্যাক, পেছনের ক্যামেরার নিচে ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার (স্ক্রিনের ওপর নয় কিন্তু!) ৩৫০০ এমএএইচ ব্যাটারি, ডুয়াল সিম, ফোরজি রং : পার্পল, ব্ল্যাক, ব্লু, গ্রে।

ওয়ানপ্লাস ৫টি : চীনা স্মার্টফোন নির্মাতা কোম্পানি ওয়ানপ্লাস অনেকের কাছে ‘ফ্ল্যাগশিপ কিলার’ নামেও পরিচিত। তাদের নতুন ডিভাইস ওয়ানপ্লাস ৫টি ফোন। অপো ইলেকট্রনিক্সের মালিকানাধীন এ প্রতিষ্ঠানটি মধ্যম দামে ফ্ল্যাগশিপ স্যামসাং, এইচটিসি এমনকি আইফোনের সঙ্গে তুলনা করার মতো স্পেসিফিকেশন ও পারফরমেন্সের অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন তৈরি করে থাকে।

ওয়ানপ্লাস ৫টি ফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫ চিপসেট। এর হায়েস্ট ভ্যারিয়েন্টটিতে রয়েছে ৮ জিবি র‌্যাম আর ১২৮ জিবি ইন্টারনাল স্টোরেজ।

এটায় ১৮:৯ এসপেক্ট রেশিওর ডিসপ্লে ব্যবহার করায় ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সরটি পেছনের ডুয়েল ক্যামেরা মডিউলের নিচে নিয়ে আসা হয়েছে। কম দামে ফ্ল্যাগশিপ ফোন হওয়ায় এ ফোনটি অনেক জনপ্রিয়তা পেয়েছে। দাম ৫৩,০০০ টাকার কাছাকাছি।

হুয়াওয়ে পি২০ প্রো : চীনা টেলিকম জায়ান্ট হুয়াওয়ে তাদের নতুন পি২০ এবং পি২০ প্রো নিয়ে ইতিমধ্যে হইচই ফেলে দিয়েছে। হুয়াওয়ে পি সিরিজটি ক্যামেরা ফোন হিসেবেই পরিচিত। ব্যতিক্রম নেই পি ২০প্রো-তেও। এতে একটি নয়, দুটি নয়, রয়েছে তিন তিনটি রিয়ার ক্যামেরা। সঙ্গে রয়েছে বেজেললেস নচ ওয়ালা স্টাইলিশ ডিজাইন এবং স্ন্যাপড্রাগনের পাওয়ারফুল ৮৪৫ সিস্টেম অন চিপ। এর একটি লাইট ভার্সনও আছে যেটি পি ২০ নামে পরিচিত। হুয়াওয়ে পি২০ প্রো এর দাম ৯২,০০০ টাকার কাছাকাছি।

হুয়াওয়েই পি২০ প্রো ফোনের সবচেয়ে চমকপ্রদ ফিচার হচ্ছে এর ক্যামেরা। ফোনটির পেছনের দিকে রয়েছে তিনটি ক্যামেরা লেন্স, যাতে আপনি পাবেন ৪০ মেগাপিক্সেলে ছবি তোলার সুবিধা। প্রসেসর : হুয়াওয়ের কিরিন ৯৭০ অক্টাকোর সিপিইউ, মালি জি৭২, এমপি১২, জিপিইউ র‌্যাম : ৬জিবি। স্টোরেজ : ১২৮ জিবি, মাইক্রোএসডি স্লটে ২৫৬ জিবি পর্যন্ত সাপোর্ট।

পিক্সেল ২ এক্সএল : এ তালিকায় ৪ নম্বর অবস্থানে রয়েছে পিক্সেল ২ এক্স এল। পিক্সেল ২-এর সঙ্গেই রিলিজ হওয়া এ ফোনটির প্রায় সব স্পেসিফিকেশন পিক্সেল ২-এর মতো। এতে ১৮:৯ রেশিও এর তুলনামূলক বড় ডিসপ্লে ও বেশি ক্ষমতাসম্পন্ন ব্যাটারি ব্যবহৃত হয়েছে। গুগল পিক্সেল ২ ফোনে যত সুবিধা আছে, পিক্সেল ২ এক্সএল ফোনে তার থেকেও বেশি সুবিধা পাওয়া যায়। এতে আছে কম বেজেলের ৬ ইঞ্চি স্ক্রিন, ১২.২ মেগাপিক্সেল ব্যাক ও ৮ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা, ø্যাপড্রাগন ৮৩৫ প্রসেসর, ৪ জিবি র‌্যাম, ৬৪/১২৮জিবি স্টোরেজ, ৩৫২০ এমএএইচ ব্যাটারি ইত্যাদি। ডিভাইসটির দাম ৮৬,৫০০ টাকার আশপাশে।

Bootstrap Image Preview