Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২১ শুক্রবার, সেপ্টেম্বার ২০১৮ | ৫ আশ্বিন ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

যে ১০ গ্যাজেটসের মৃত্যু হয়েছে ২০১৭ সালে

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮ জানুয়ারী ২০১৮, ০৭:৩২ PM আপডেট: ০৮ জানুয়ারী ২০১৮, ০৭:৩২ PM

bdmorning Image Preview


বিডিমর্নিং ডেস্ক-

প্রযুক্তিরও মৃত্যু ঘনায়। বিজ্ঞানের অগ্রগতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে পুরনোর জায়গা নেয় নয়া উদ্ভাবন। ২০১৭ সালে 'মৃত্যু' হয়েছে একদা সাড়া-জাগানো এমনই কয়েকটি প্রযুক্তির। দেখে নেওয়া যাক সেই তালিকা।

১) উইন্ডোজ ফোন: ২০১৭ সালে উইন্ডোজ ফোন-এর মৃত্যু সংবাদ ঘোষণা করল মাইক্রোসফ্ট। সংস্থার শীর্ষ আধিকারিক জো বেলফিওর জানিয়েছেন, উইন্ডোজ মৌবাইল-এর জন্য আর কোনও নতুন ফিচার বা হার্ডওয়্যার তৈরি করছে না মাইক্রোসফ্ট। তবে গ্রাহকদের উদ্দেশে তাঁর বার্তা, যাঁরা এই ডিভাইস ব্যবহার করছেন, তাঁদের জন্য আগের মতোই 'বাগ ফিক্সিং', 'সিকিওরিটি আপডেট' ইত্যাদি পরিষেবা সরবরাহ করবে তাঁর সংস্থা।

২) মাইক্রোসফ্ট Kinect: Xbox 360 এবং Xbox One গেমিং কনসোল-এর জন্য প্রয়োজনীয় মোশন সেনসিং অ্যাকসেসরি Kinect আর উত্‍পাদন করা হবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে মাইক্রোসফ্ট। Kinect-এর আত্মপ্রকাশ ২০১০ সালে। ২০১১ সালে Xbox 360-এর জন্য Kinect বছরের সর্বাধিক বিক্রীত ডিভাইস হিসেবে গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস-এ স্থান পায়। তবে বাজার থেকে উধাও হয়ে গেলেও ডিভাইসটির কোর সেনসর এখনও মাইক্রোসফ্ট নির্মিত AR Hololen-এর প্রাণভোমরা হিসেবে বহাল তবিয়তে কাজ করছে।

৩) থ্রি-ডি টিভি: মাত্র কয়েক বছর আগে বাজারে ঝড় তুলেছিল প্রযুক্তির বিস্ময়কর ফল থ্রি-ডি টেলিভিশন সেট। কিন্তু ২০১৭ সালে এলজি, সোনি সহ বেশির ভাগ বড় টিভি ব্র্যান্ড তাদের টিভি সেটগুলিতে থ্রি-ডি প্রযুক্তি সাপোর্ট করা বন্ধ করে দেয়। এর আগে ২০১৬ সালে এ ব্যাপারে পথিকৃত হয়ে দাঁড়িয়েছিল টিভি প্রস্তুতকারক সংস্থা স্যামসাঙ। পাশাপাশি ২০১৭ সালে টিসিএল বা শার্প-এর মতো ব্র্যান্ডও নতুন থ্রি-ডি টিভি বানানোর উদ্যোগ নেয়নি।

৪) অ্যাপল আইপড শাফ্‌ল ও আইপ্যাড ন্যানো: এ বছর নিঃশব্দে মৃত্যু ঘটল অ্যাপল-এর অন্যতম অত্যন্ত জনপ্রিয় ডিভাইস iPod Nano ও iPod Shuffle-এর। আদত iPod-এর এই দুই ভ্যারিয়েশনে ইন্টারনেট সংযোগ ব্যবস্থা না থাকায় এবং গত ২ বছর যাবত্‍ কোনও আপডেশন না হওয়ায় তাদের চাহিদায় ভাটা পড়েছিল বলেই এই সিদ্ধান্ত নেয় নির্মাতা সংস্থা।

৫) ইনস্ট্যান্ট মেসেজিং পথিকৃত AIM: ডিসেম্বর মাসের ১৫ তারিখে শেষ হল AOL-এর ইনস্ট্যান্ট মেসেজিং পরিষেবা AIM-এর পথচলা। দীর্ঘ ২০ বছর কাজ করার পরে তার মৃত্যুঘণ্টা বাজার খবর প্রকাশ হল AOL প্রকাশিত বিবৃতিতে।

৬) গুগল ট্যাংগো: ২০১৭ সালের গোড়াতেই ট্যাংগো বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয় গুগল। স্মার্টফোন ক্যামেরার উন্নতি ঘটানোর লক্ষ্যে এই প্রযুক্তির আবির্ভাব হয়েছিল। অ্যান্ড্রয়েড ফোনের জন্য অগমেন্টেড-রিয়েলিটি নির্ভর অ্যাপ-এর উন্নতি ঘটাতে ডেভেলপারদের সহায়তা করার জন্য এক সময় ট্যাংগো জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিল। সরকারি ভাবে অবশ্য ২০১৮ সালের মার্চ মাস থেকে বন্ধ হবে এই পরিষেবা।

৭) গুগল ক্রোম অ্যাপ্‌স: ২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসে ক্রোম-এর Windows, Mac ও Linux সংস্করণে অ্যাপ বিভাগ বন্ধ করে দেয় গুগল। ক্রোম অ্যাপ ডেভেলপারদের ই-মেল মারফত্‍ গুগল জানিয়ে দেয়, আগে ইনস্টল করা অ্যাপ কাজ করলেও ২০১৮ সালের প্রথম তিন মাসের মধ্যে তা বন্ধ হবে।

৮) জি টক: আনুষ্ঠানিক ভাবে এ বছরেই বন্ধ হয়ে গেল GTalk বা Gchat। ২০০৫ সালে আত্মপ্রকাশ করা গুগল-এর এই মেসেজিং প্ল্যাটফর্ম-এর জায়গায় বেশ কিছু দিন আগে থেকেই এসে গিয়েছে গুগল হ্যাংআউটস। বস্তুত ২০১৫ সাল থেকেই জি-মেল-এর সাইডবারে হ্যাংআউট চ্যাট পরিষেবা লঞ্চ হয়।

৯) মাইক্রোসফ্ট গ্রুভ মিউজিক: চলতি বছরের শেষ দিনে চিরতরে থেমে যাচ্ছে গ্রুভ মিউজিক পাস স্ট্রিমিং পরিষেবা। এক বিবৃতি দিয়ে এই সিদ্ধান্ত আগেই জানিয়েছে মাইক্রোসফ্ট। তবে, OneDrive-এ ইতিমধ্যে আপলোড অথবা ডাউনলোড করা যাবতীয় সঙ্গীত বিল্ট-ইন গ্রুভ মিউজিক অ্যাপ-এর সাহায্যে বাজানো যাবে।

১০) NES ক্লাসিক এডিশন: ২০১৭ সালে মৃত্যু হয়েছে নিনটেনডো এন্টারটেইনমেন্ট সিস্টেম (NES) ক্লাসিক এডিশন-এর। আগামী এপ্রিল মাসের মধ্যে ডিভাইসটির শেষ শিপমেন্টগুলি পৌঁছে যাবে। সংস্থার তরফে এই গ্রাহকদের প্রতি বার্তা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, অসামান্য জনপ্রিয়তা অর্জন করা সত্ত্বেও এই ডিভাইস উত্‍পাদন বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। আসলে আরও উন্নত সংসা্করণ আনার পরিকল্পনার জন্যই বন্ধ করা হয়েছে NES ক্লাসিক এডিশন-এর উত্‍পাদন।

Bootstrap Image Preview