Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২১ শুক্রবার, সেপ্টেম্বার ২০১৮ | ৫ আশ্বিন ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

ভিক্ষুক মায়ের স্বপ্নের ছেলে পুড়ে ছাই

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৩ আগস্ট ২০১৮, ১১:৫৮ AM আপডেট: ১৩ আগস্ট ২০১৮, ১১:৫৮ AM

bdmorning Image Preview


বিডিমর্নিং ডেস্ক- গেল ঈদে  জাকাত-ফিতরা জমা করেছেন। ভিক্ষা করছেন আরও কিছু টাকার আশায়। স্বপ্ন শেষ বারের মত মানসিক ভারসাম্যহীন  সন্তানকে পাবনা মানসিক হাসপাতালে নিয়ে যাবেন। সুস্থ হয়ে মায়ের স্বপ্নপূরণ করবে সে। এই আশায় প্রতিদিনের মতো ভিক্ষা করতে বেরিয়ে ছিলেন ফাতেমা বেগম। কিন্তু সেই স্বপ্ন পুড়ে ছায় হয়ে গেল। ছাই হলো  ছেলে রবিউল হোসেন। গতকাল রবিবার ১০টার দিকে চট্টগ্রাম নগরীর চান্দগাঁও আবাসিক এলাকার বি ব্লকের ৭ নম্বর রোডে হাজি হারুন জমিদার কলোনিতে আগুন লেগে ৩৬টি বসতঘর পুড়ে যায়। একটি ঘরে বন্দি ছিলেন মানসিক ভারসাম্যহীন রবিউল। আগুনের খবর পেয়ে ফিরে এসে মা দেখেন, ছেলে আর নেই।ঘর থেকে বের হতে না পারায় আগুনে পুড়ে মৃত্যু হয় তার। জানা যায়, বাড়ি রংপুর হলেও দীর্ঘ ২৬ বছর ধরে চট্টগ্রামে থাকেন ফাতেমা বেগম।  মানসিক ভারসাম্যহীন হওয়ায় ইচ্ছেমতো ঘুরে বেড়াত রবিউল। মাঝে মাঝে খুঁজে পাওয়া যেত না। এতে চরম দুশ্চিন্তায় পড়তেন তার মা। ছেলেকে কাছে রাখতে সকালে খাইয়ে ভিক্ষা করতে বের হতেন প্রতিদিন। বাইরে থেকে দুয়ারের ছিটকিনি লাগিয়ে দিতেন। নিজেক অপরাধী মনে করে কান্না কণ্ঠে এই মা বলেন,  মাথার সমস্যার কারণে ঘরে বেঁধে রাখতাম। ছেলেকে খাওয়ানোর পর ভিক্ষা করতে বের হয়েছিলাম। এসে দেখি ছেলে পুড়ে ছাই। বিলাপ করে তিনি বলেন,  রোজার ঈদে যে টাহা পাইছি, একটাও খরচ করি নাইরে বাবা। ৩০ কেজি সেদ্ধ চাল বিক্রি করে টাকা হাতে নিছি। ভিক্ষা করে আরও জমাচ্ছিলাম। তার জন্য অনেক খরচ করছি। পাবনা নিতে টাকা জমাচ্ছিলাম রে বাবা।’ ফাতেমা জানান, দুই ছেলে দুই মেয়ের সংসার ছেড়ে চলে যান স্বামী। ছেলেমেয়েরাও রংপুরে ভিক্ষা করেই সংসার চালায়। ২৬ বছর ধরে রবিউলকে নিয়ে তিনি চট্টগ্রামে আছেন। জন্মের পর থেকে ছেলেটা ভালোই ছিল। ১১ বছর বয়স থেকে মানসিক সমস্যা দেখা দিলে চিকিৎসাও করান। চিকিৎসা করতে গিয়েই সর্বস্বান্ত হন। এর পরও ভিক্ষার টাকা জমিয়ে ছেলেকে পাবনায় নেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। কিন্তু তা আর হলো কই। মনের দুঃখ মনেই রইল ফাতেমার। ফায়ার সার্ভিস চট্টগ্রামের উপসহকারী পরিচালক জসীম উদ্দীন বলেন, বেলা পৌনে ১১টায় আগুন লাগে। ফায়ার সার্ভিসের সাতটি গাড়ি বেলা সাড়ে ১১টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে ততক্ষণে ঘরের সঙ্গে পুড়ে গেছেন রবিউল।
Bootstrap Image Preview