Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৬ মঙ্গলবার, অক্টোবার ২০১৮ | ১ কার্তিক ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

এইচএসসিতে ফেল করায় ৫ ছাত্রীর আত্মহত্যা

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ২০ জুলাই ২০১৮, ০৫:৫৪ PM
আপডেট: ২০ জুলাই ২০১৮, ০৫:৫৪ PM

bdmorning Image Preview


বিডিমর্নিং ডেস্ক-

চলতি বছর এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়ায় দেশের বিভিন্ন জেলায় ৫ ছাত্রীর আত্মহত্যার খবর পাওয়া গেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার(২০জুলাই) বিকাল থেকে শুক্রবার সকালের মধ্যে এসব ঘটনা ঘটে।

আজ শুক্রবার সকালে মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার কুস্তা গ্রামে এইচএসসি পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়ায় মিতু আক্তার নামে এক শিক্ষার্থী ইঁদুর মারার বিষ খেয়ে আত্মহত্যা করেন। মিতু ওই গ্রামের কৃষক ও শস্য বেপারী মোসাদ্দেক হোসেনের মেয়ে।

পরিবারের লোকজনের বরাত দিয়ে ঘিওর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রবিউল ইসলাম বলেন, ‘শুক্রবার সকালে বাড়ির লোকজনের অলক্ষ্যে মিতু ঘরে থাকা ইঁদুর মারার বিষ পান করে। পরে পরিবারের লোকজন বিষয়টি টের পেয়ে দ্রুত ঘিওর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ঢাকায় নিয়ে যেতে বলেন। ঢাকায় নেওয়ার পথে মিতুর মৃত্যু হয়।’

এদিকে  পঞ্চগড়ে এইচএসসি পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়ায় শাবনুর আক্তার (১৯) নামে এক পরীক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন। সে পূর্ব জালাসী এলাকার রফিকুল ইসলামের মেয়ে।

পঞ্চগড় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রবিউল হাসান সরকার জানান, পঞ্চগড় সরকারি মহিলা কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষা দিয়ে শাবনুর দ্বিতীয়বারের মতো অকৃতকার্য হন। পরে শাবনুর নিজ ঘরের আড়ার সাথে ওড়না দিয়ে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেন। পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. তৌহিদ হাসান তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

অন্যদিকে গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে খুলনা মহানগরীর দৌলতপুর মহসিন মহিলা কলেজছাত্রী ঐশর্য্য রায় (১৮) গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেন। সে দৌলতপুর মানিকতলা সিএসডি গোডাউন এলাকার বাবুল রায়ের মেয়ে।

দৌলতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী মোস্তাক আহমেদ বলেন, ‘পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়ায় বৃহস্পতিবার রাতে ঐশর্য্য রায় ঘরের সিলিংয়ের সাথে ওড়না পেঁচিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। পরে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে।’

রাজবাড়ীতে এইচএসসি পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে অর্পিতা বিশ্বাস নামে এক শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত অর্পিতা রাজবাড়ী পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক (এসআই) দুলাল বিশ্বাসের মেয়ে। সে ফরিদপুর ইয়াছিন কলেজ থেকে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল।

জানা গেছে, দুপুরে এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ হওয়ার পর অকৃতকার্য হয়েছে শুনে অর্পিতা সবার চোখের অড়ালে গলায় ফাঁস দেয়। পড়ে পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. সরোয়ার জোহেব জানান, হাসপাতালে আনার পূর্বেই অর্পিতা মারা গেছে।

নোয়াখালী পৌরসভার কৃষ্ণরামপুর গ্রামের খান বাড়িতে এইচএসসি পরীক্ষায় ফেল করা ফাতেমা আক্তার টুম্পা (১৮) নামে এক পরীক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার (১৯ জুলাই) বিকালে এই ঘটনা ঘটে।

ফাতেমা ওই গ্রামের খান বাড়ির নুরুল ইসলাম খানের মেয়ে। সে এবার নোয়াখালী সরকারি মহিলা কলেজ থেকে ব্যবসা শিক্ষা বিভাগ থেকে এইচএসসি পরীক্ষা দিয়েছিল।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার দুপুরে এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফলে ফাতেমা ফেলের বিষয় জানতে পারে। এই ঘটনায় বিকাল ৫টায় ফাতেমাকে নিজের ঘরের সিলিংয়ের সঙ্গে ঝুলতে দেখে পরিবারের লোকজন উদ্ধার করে তাকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

সুধারাম মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন জানান, নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে কোনও অভিযোগ না থাকায় লাশ তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, সারা দেশের দুই হাজার ৫৪১টি কেন্দ্রে এবার এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ১৩ লাখ ১১ হাজার ৪৫৭ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়। এরমধ্যে পাস করেছে ৮ লাখ ৫৮ হাজার ৮০১ শিক্ষার্থী।

 পাসের হার ৬৬.৬৪ শতাংশ। গতবারের চেয়ে এবার পাসের হার ২.২৭ শতাংশ কম। এরমধ্যে মেয়েরা পাস করেছে ৬৯ দশমিক ৭২ শতাংশ। আর ছেলেরা পাস করেছে ৬৩ দশমিক ৮৮ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৯ হাজার ২৬২ জন। গতবার জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৩৭ হাজার ৭২৬ জন।

গত বছর এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ১০ শিক্ষা বোর্ডে গড় পাসের হার ছিলো ৬৮ দশমিক ৯১ শতাংশ। গত বছর মেয়েরা ৭০ দশমিক ৪৩ শতাংশ পাস করে, আর ছেলেদের পাসের হার ৬৭ দশমিক ৬১ শতাংশ। এবছর মেয়েদের পাসের হার কমেছে।

শতভাগ পাস করা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যাও এবার কমেছে। এবার ৪০০ প্রতিষ্ঠান থেকে সবাই পাস করেছেন। গতবার এমন প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ছিল ৫৩২। তবে কেউ পাস করেনি—এমন প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা কমেছে। গতবার ৭২টি প্রতিষ্ঠান থেকে কেউ পাস করেনি। এবার এমন প্রতিষ্ঠান ৫৫টি।

Bootstrap Image Preview