Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১১ মঙ্গলবার, ডিসেম্বার ২০১৮ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

কাস্টমস ছাড়ে তো বিজিবি ধরে!

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৮, ০৭:৫০ PM
আপডেট: ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৮, ০৭:৫২ PM

bdmorning Image Preview


বিডিমর্নিং ডেস্ক-

কাস্টমস ছাড়ে তো বিজিবি ধরে।এভাবেই চলছে বেনাপোল সীমান্তে দেশি-বিদেশি পাসপোর্টযাত্রীদের হয়রানি।ভারত থেকে আগত পাসপোর্টযাত্রীদের ব্যাগ তল্লাশি করে কাস্টমস ছেড়ে দিলেও ওই যাত্রীর ব্যাগ পোর্ট যাত্রী টার্মিনালের নিচে বিজিবি আবারও তল্লাশি চালায়।

আবার ওই যাত্রীকে আমড়াখালি বিজিবি চেকপোস্টে বাস থেকে মালপত্র নামিয়ে আরেক দফা তল্লাশি করা হয়। বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থাসহ প্রশাসনের চোখের সামনে প্রতিনিয়ত এ ঘটনা ঘটলেও সবাই মুখে কুলুপ এটেছেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার(২২ ফেবরুয়ারি)সন্ধ্যায় এমন একটি ঘটনা ঘটেছে বেনাপোল চেকপোস্টে । ভারতের উড়িষ্যার ভবেনেশ্বর গাজাপটি এলাকার জয়দেব কারাডোর ছেলে বিকাশ কুমার (২৫) ও একই এলাকার সুদাম বেহারার ছেলে প্রহরাত বেহারা (২৯) আড়াই মাস আগে চট্টগ্রামের পদ্মা ওয়েল কোম্পানিতে তেল লাইনের প্রজেক্টের কাজে এসেছিলেন।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তারা দু'জন ভারতে ফিরে যাচ্ছিলেন। চেকপোস্ট কাস্টমসে স্ক্যান মেশিনে ব্যাগ তল্লাশির সময় তাদের কাছে থাকা বাংলাদেশি ছয় জেলার ২০০ পিস মানচিত্র ও জমির পর্চা পাওয়া গেলে তা জব্দ করা হয়। মানচিত্র ও জমির পর্চাগুলো বাংলাদেশের কুমিল্লা, ফেনী, নারায়ণগঞ্জ, চট্টগ্রাম, দিনাজপুর ও মুন্সীগঞ্জ জেলার। পরে তাদের কাছে থাকা কাগজপত্র রেখে তাদের ছেড়ে দেন কাস্টমস কর্তৃপক্ষ।

পরে তাদের আবার আটক করে বিজিবি সদস্যরা। পাঠানো হয় বেনাপোল পোর্ট থানায়। বিষয়টি পদ্মা অয়েল কোম্পানির লোক জানার পর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে পোর্ট থানা থেকে তাদের জিডি এট্রির মাধ্যমে পদ্মা অয়েল কোম্পানির প্রতিনিধির কাছে হস্তান্তর করা হয়।

পদ্মা ওয়েল কোম্পানির ম্যানেজার আমিনুল হক বলেন, ভারতের এই দুই নাগরিক আড়াই মাস পূর্বে তাদের কোম্পানিতে কাজে যোগ দিতে এসেছিলেন। কাজের স্বার্থেই তারা ওই মানচিত্র ও পর্চাগুলো নিয়ে যাচ্ছিলেন। তবে এগুলো ভারতে নিয়ে যাওয়ার জন্য কোনো লিখিত বা মৌখিক অনুমতি নেয়নি তারা।

এ বিষয়ে বেনাপোল কাস্টমসের সহকারী কমিশনার শেখ মাসুদুর রহমান জানান, ভারতীয় দুই নাগরিক অবৈধভাবে মানচিত্র, পর্চা, জরুরি ডকুমেন্ট নিয়ে ভারতে যাচ্ছিলেন। এজন্য গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্টগুলো জব্দ করে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

কাস্টমস বিজিবি ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশের এসআই মতিউর রহমান।

Bootstrap Image Preview