Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২০ শনিবার, অক্টোবার ২০১৮ | ৫ কার্তিক ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

টাকার জন্য নারী সোর্সের সাথে এএসঅাইয়ের এ কী কাণ্ড!

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৬ এপ্রিল ২০১৮, ০৯:৪৩ PM
আপডেট: ২৬ এপ্রিল ২০১৮, ০৯:৪৩ PM

bdmorning Image Preview


বিডিমর্নিং ডেস্ক-

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে টাকার জন্য নারী সোর্সকে দিয়ে মাসুম নামে এক যুবককে ফাঁসাতে গিয়ে উল্টো ফেঁসে গেছেন সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশের এএসআই মাশেকুর রহমান।

গতকাল বুধবার রাত আড়াইটার দিকে সিদ্ধিরগঞ্জ হাউজিং ফকির বাড়ি এলাকায় মাসুম নামে এক যুবকের কাছে নিজের সোর্স সাথীকে পাঠিয়ে এই যুবককে ব্ল্যাকমেইলিং করার চেষ্টা করেন ওই এএসআই।

বিষয়টি জানতে পেরে এলাকাবাসী সোর্সসহ এএসআই মাশেকুরকে দীর্ঘক্ষণ আটকে রাখে। পরে থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের উদ্ধার করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

পুরো ঘটনাটি তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র বলে দাবি করে এএসআই মাশেকুর  বলেন,  বিষয়টি সম্পূর্ণ মিথ্যা। আমি পরিস্থিতির শিকার। আমাকে পরিকল্পনা করে ফাঁসানো হয়েছে। আমি নির্দোষ।

স্থানীয় সূত্র বলছে, এএসআই মাশেকুরের দায়িত্ব ছিল ঢাকেশ্বরী এলাকায়। কিন্তু তিনি তার নারী সোর্স সাথীকে পরিকল্পনা করে হাউজিং ফকির বাড়ি এলাকার মৃত আব্দুল খালেকের ছেলে মাসুমের কাছে পাঠান।

এরপর মাসুমের অবস্থান নিশ্চিত হয়ে তিনিও সেখানে যান এবং অসামাজিক কাজের অভিযোগে মাসুমকে আটকের চেষ্টা করেন। এরপর ৫০ হাজার টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেয়ার কথা বলেন। এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে তর্কবিতর্ক শুরু হলে পাশের মানুষজন এসে জড়ো হয় এবং সোর্সসহ এএসআইকে আটক করে।

এদিকে সাথী দাবি করেছেন, মাসুম তাকে ঘরে ডেকে এনে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেন। কিন্তু টাকা না দিয়ে মাসুম তাকে আটকে রাখতে চাইলে সে চিৎকার করলে আসপাশের লোক এসে জড়ো হয়। এ সময় লোকজন আমাকে মারতে থাকলে মাশেকুর উদ্ধার করতে এগিয়ে এলে তাকেও আটকে রাখা হয়।

এ বিষয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) নজরুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। তারা বিষয়টি তদন্ত করবে। তদন্তের পর এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। তদন্তে যদি এএসআই মাশেকুর দোষী হয় তাহলে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Bootstrap Image Preview