Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২১ বুধবার, নভেম্বার ২০১৮ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

হজ ফ্লাইট শুরুর ৯ দিন বাকি থাকলেও অবিক্রিত ১৫ হাজার টিকেট

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৫ জুলাই ২০১৮, ০৯:১০ PM
আপডেট: ০৫ জুলাই ২০১৮, ০৯:১২ PM

bdmorning Image Preview


আসাদুল্লা লায়ন-

মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের ৫টি  ফরজ ইবাদতের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে হজ। হজ পালন করতে সারাবিশ্ব থেকে পবিত্র  মক্কা শরিফে আসে লক্ষ লক্ষ মানুষ। আগামি ১৪ জুলাই থেকে বাংলাদেশি হজযাত্রীদের সৌদি আরবে নেওয়া শুরু করবে ‘বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স’। ফ্লাইট শুরুর মাত্র নয় দিন বাকি থাকলেও এখনো ১৫ হাজার হজযাত্রীর জন্য টিকিট কেনেনি হজ এজেন্সিগুলো। এদিকে হজ্জ এজেন্সিগুলো জানিয়েছে তাদের টিকেট ক্রয়সহ সব প্রস্ততি সম্পন্ন।

বৃহস্পতিবার(৫ জুলাই) একাধিক হজ্জ এজেন্সির সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা দাবি করে তাদের টিকেট ক্রয়সহ হজ্জে পাঠানোর সব প্রস্ততি সম্পন্ন।

উল্লেখ্য, বুধবার  (৪জুলাই) ৭টা পর্যন্ত ৪৫ হাজার ৭৭৯ টি টিকিট  বিক্রি হয়েছে। যা গত ২৭ মে ২০১৮ থেকে বিমান ‘আগে আসলে আগে পাবেন ভিত্তিতে’ হজ টিকিট বিক্রি কার্যক্রম শুরু করেছে। এবার ১৮৭টি ফ্লাইটে ৬৩ হাজার ৬০০ জন হজযাত্রী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স যোগে সৌদি আরবে যেতে পারবেন।

চলিত হজ্জ মৌসুমে ফ্লাই গ্লোবাল নামের একটি প্রতিষ্ঠান থেকে ১৪ জুলাই থেকে ২৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এ চারটি উড়োজাহাজ ভাড়া করেছে বিমান। চারটি নিজস্ব বোয়িং ৭৭৭-৩০০ ইআর মডেলের উড়োজাহাজ দিয়ে হজ ফ্লাইট পরিচালনা করবে বিমান। এসব উড়োজাহাজে আসনসংখ্যা ৪১৯। অন্য পথে ফ্লাইট শিডিউল ঠিক রাখতে চারটি বোয়িং ৭৭৭ উড়োজাহাজ দুই মাসের জন্য ইজারা নিয়েছে বিমান। এর মধ্যে তিনটি উড়োজাহাজ বিমানবহরে যুক্ত হয়েছে, আরেকটি শিগগিরই যোগ হবে।

এহসান এয়ার ট্রাভেলস এর ম্যানেজার মো: সাইফুল ইসলাম তাদের সব প্রস্ততি সম্পন্ন দাবি করে বিডিমর্নিংকে বলেন, এবার আমাদের এজেন্সি থেকে ২৫০০ হজ্জযাত্রী পাঠাচ্ছি। এর মধ্যে ৭০০ এর মতো নারী হ্জ্জ যাত্রী রয়েছে। গত বছরে এর সংখ্য ছিলো ১৭০০। আমরা ইতিমধ্যে টিকেট কনফার্ম করেছি আমাদের প্রথম দিন ১৪ তারিখ থেকে ক্রমান্ময়ে ৩ টি ফ্লাইটে ২৫০০ হজ্জ যাত্রী পাঠানোর ব্যবস্থা হয়েছে। এছাড়া সৌদিতে হাজীদের থাকার ব্যবস্থা ও তাদের ৪৫ জন হাজী প্রতি একজন করে গাইড রেডি আছে।

এদিকে শরিফ এয়ার ট্র‌্যাভেলসরে জেনারেল ম্যানেজার বলেন, আমাদের টিকেট কেনা হয়ে গেছে। হজ্জের সব প্রস্ততি সম্পন্ন। এবার আমাদের সর্বমোট ২৭৬জন হজ্জযাত্রী রয়েছে যাদেরকে ২৪ জুলাই এবং ৫ আগষ্ট দুইটি প্লাইটের মাধ্যমে পাঠানোর  ব্যবস্থা করা হয়েছে।

হজ্জযাত্রী শহিদুল ইসলাম বিডিমর্নিংকে বলেন, আলহামদুলিল্লাহ, ভিসা পেয়েছি টিকেটও কনফার্ম ১৬ তারিখ আমার ফ্লাইটের ব্যাবস্থা হয়েছে। সব কাগজপত্র রেডি করতে তেমন জামেলা পোহাতে হয়নি আমাদের। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে ১৬ তারিখেই ফ্লাইট হবে ইনশাআল্লাহ।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) শাকিল মেরাজ এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানান আগামী ২৪ জুলাই থেকে ১০ আগস্ট সময়কালের হজ ফ্লাইট সমূহের ১৬ হাজার টিকিট অবিক্রিত রয়েছে।  বিমানের পক্ষ থেকে হজ এজেন্সিগুলোকে অবিলম্বে টিকিট ক্রয়ের জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে। এ বছর নির্ধারিত ফ্লাইটে হজযাত্রী পরিবহনে ব্যর্থ হলে সৌদি আরবে অতিরিক্ত কোন স্লট বরাদ্দ পাওয়া যাবে না বলে জানিয়েছে সৌদি আরব কর্তৃপক্ষ।

১৪ জুলাই থেকে ১৫ আগস্ট পর্যন্ত হজযাত্রীদের সৌদি আরবে নেবে জাতীয় পতাকাবাহী সংস্থাটি। ১৮৭টি ফ্লাইটে ৬৩ হাজার ৬০০ জন হজযাত্রী সৌদি আরবে নেওয়ার অনুমতি পেয়েছে বিমান। তবে আজ বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বিমান ৪৮ হাজার টিকিট বিক্রি করতে পেরেছে বলে বিমান সূত্রে জানা যায়।এবার নির্ধারিত সময়ের মধ্যে টিকিট সংগ্রহ না করলে অতিরিক্ত ফ্লাইট পরিচালনার জন্য নতুন সময়সীমা দেবে না সৌদি আরব। এতে হজযাত্রীদের একটি অংশকে সৌদি আরব যাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তায় পড়তে হতে পারে বলে আশঙ্কা করছে বিমান।

উল্লেখ্য, গত হজ মৌসুমে হজযাত্রী না পাওয়ায় ২৪টি হজ ফ্লাইট বাতিল করতে হয় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসকে। শেষ মুহূর্তে সৌদি আরব থেকে অতিরিক্ত ফ্লাইট পরিচালনার স্লট বরাদ্দ নেওয়া হয়।

এদিকে টিকিট না পাওয়ার জন্য বিমানের ওপর কিছুটা দোষারোপ করে হজ এজেন্সিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (হাব) জানিয়েছে, ধর্ম মন্ত্রণালয় গত ৯ মে এক নির্দেশনায় ২০ মের মধ্যে টিকিট সংগ্রহের জন্য সব এজেন্সিকে নির্দেশনা দেয়। সেখানে বলা হয়, ফ্লাইট শিডিউল ঠিক রাখতে হজ এজেন্সিগুলোকে হজযাত্রীদের ফ্লাইট বুকিং সম্পন্ন করে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস ও সৌদি এয়ারলাইনস থেকে প্রত্যয়নপত্র নিয়ে ২০ মের মধ্যে জমা দিতে হবে। কিন্তু ওই সময়ের মধ্যে বিমান চাহিদা অনুযায়ী এজেন্সিগুলোকে টিকিট সরবরাহ করতে পারেনি।

হজ এজেন্সিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (হাব) মহাসচিব শাহাদাত হোসাইন তসলিম জানান,  আশা করি এবার কোনো সমস্যা হবে না, এ সময়ে গত বছর পাঁচ হাজারের মতো টিকিট এজেন্সিগুলো সংগ্রহ করেছিল। সে তুলনায় এ বছর এজেন্সিগুলো সর্বোচ্চসংখ্যক টিকিট সংগ্রহ করেছে। এরপরেও সব এজেন্সিকে আমাদের পক্ষ থেকে চাপ দেওয়া হচ্ছে, যাতে তারা নির্ধারিত সময়ের আগেই টিকিট সংগ্রহ করে।

Bootstrap Image Preview