Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২৪ বুধবার, অক্টোবার ২০১৮ | ৯ কার্তিক ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

ঝিনাইদহে টমেটো চাষে আগ্রহ বাড়ছে কৃষকদের

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৮, ০৩:৩৬ PM
আপডেট: ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৮, ০৩:৩৬ PM

bdmorning Image Preview


ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে টমেটো চাষ করে ব্যাপক সফলতা পেয়েছেন চাষীরা। লাভজনক হওয়ায় তাদের আগ্রহ বাড়ছে। টমেটোর ফলন এবং দাম দুটিই ভালো হওয়ায় তারা বেজায় খুশি।

উপজেলার বহিরগাছীর শুকুর আলী গ্রীষ্মকালীন টমেটো চাষ করে ব্যাপক সফলতা পেয়েছেন। লিজ নেয়া ২৩ শতাংশ জমিতে বারি-৪ জাতের টমেটো চাষ করে কাঙ্ক্ষিত মুনাফা পাচ্ছেন তিনি।

শুকুর আলী জানান, জমি প্রস্তুত, সার, ঔষধ ও পরিচর্যা বাবদ ৭০-৮০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত প্রায় ২ লাখ টাকার টমেটো বিক্রি করেছেন তিনি। ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাসে আরো ৫০ হাজার টাকার টমেটো বিক্রি হবে বলে তিনি আশা করছেন।

তিনি বলেন, সব খরচ বাদে তার কমপক্ষে ১লাখ ৭০ হাজার টাকা আয় হবে।

উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা শাহিদুর রহমান জানান, গ্রীষ্মকালীন টমেটো চাষ বেশ লাভজনক। কৃষি অফিস কৃষকদের টমেটো চাষে উদ্বুদ্ধ করে যাচ্ছে।

তিনি জানান, উপজেলায় প্রায় ৫ হেক্টর জমিতে গ্রীষ্মকালীন টমেটো চাষ হচ্ছে। উপজেলার রাখালগাছি, মালিয়াট, সিমলা-রোকনপুর ও বারোবাজার এলাকায় এ টমেটো চাষ হচ্ছে।

তিনি আরও জানান, সাধারণত মার্চ মাসের প্রথম দিকে বীজ বপন করতে হয় এবং মে মাসে ওই চারা ক্ষেতে রোপন করতে হয়। সাধারণত জুন-জুলাই মাসে ফল আসতে শুরু করে। একাধারে ফেব্রুয়ারি-মার্চ মাস পর্যন্ত টমেটো পাওয়া যায়।

কালীগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম জানান, গ্রীষ্মকালীন টমেটো চাষ বেশ লাভজনক। এ টমেটো সংগ্রহের প্রায় এক সপ্তাহ পর্যন্ত ভালো থাকে। সারা বছর সবজির চাহিদা পূরণ করতে গ্রীষ্মকালীন বারি-৪ জাতের টমেটো চাষ করতে পরামর্শ দিচ্ছেন তিনি। সাদা পলিথিনের ছাউনি দিয়ে গ্রীষ্মকালীন টমেটো চাষ খুবই সহজ। উপজেলা কৃষি অফিস টমেটো চাষিদের প্রয়োজনীয় সব ধরনের সহযোগিতা দিচ্ছে।

Bootstrap Image Preview