Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২৩ মঙ্গলবার, অক্টোবার ২০১৮ | ৭ কার্তিক ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

একই বাড়ির ৫ জন আক্রান্ত ডেঙ্গিতে! বাড়ছে আতঙ্ক, মৃত ১

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৩ নভেম্বর ২০১৭, ১১:২৭ PM
আপডেট: ১৩ নভেম্বর ২০১৭, ১১:২৭ PM

bdmorning Image Preview


বিডিমর্নিং ডেস্ক- ডেঙ্গি সংক্রমণে বিপর্যস্ত বাগুইআটির রঘুনাথপুরের নস্কর পরিবার। শনিবার রাতে সল্টলেকের একটি বেসরকারি হাসপাতালে মৃত্যু হয়েছে বাড়ির বধূ তুলি নস্করের (৩৫)। মৃতার স্বামী জয়গোপাল নস্কর সংকটজনক অবস্থায় হাসপাতালে। অন্য একটি হাসপাতালের আইসিইউয়ে রয়েছেন মৃতার জা আলো। ডেঙ্গি সংক্রমণের পর আপাতত সুস্থ পরিবারের আরও দুই সদস্য— জয়গোপালের বৌদি সবিতা এবং ভাইঝি অনুভা। মৃতার ভাইপো বরুণ জানান, গত মঙ্গলবার রক্তপরীক্ষায় তুলির ডেঙ্গি সংক্রমণ ধরা পড়ে। প্রথমে তেঘরিয়ার একটি বেসরকারি হাসপাতালে তাঁকে ভর্তি করানো হয়। অবস্থার অবনতি হওয়ায় সল্টলেকের বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তুলিকে তেঘরিয়ার হাসপাতালে ভর্তি করানোর একদিন পরেই সংক্রমণের শিকার হন স্বামী। মৃতার ভাইঝি মল্লিকা রবিবার সকালে বলেন, ‘‘কাকিমার মৃত্যুর কথা এখনও কাকুকে জানাতে পারিনি।’’ তুলির আট বছরের ছেলে হিমাদ্রি বাঙ্গুরের একটি স্কুলে দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র। আজ, সোমবার তার পরীক্ষা। এই অবস্থায় কীভাবে পরীক্ষা দেবে, তা নিয়ে আলোচনা করছিলেন পরিজনেরা। তা শুনে হিমাদ্রি বলে, ‘‘পরীক্ষা আমি দেব। নইলে ক্লাস থ্রি’তে তুলবে না।’’ নাতিকে বুকে টেনে কাঁদতে থাকেন দিদিমা আরতি বিশ্বাস। তিনি নিজে পুরনিগমের স্বাস্থ্যকর্মী। তাঁর কথায়, ‘‘একটা মশা আমার কাছ থেকে মেয়েকে কেড়ে নিল! কিচ্ছু করতে পারলাম না!’’ বিধাননগর পুরনিগমের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর তথা দু’নম্বর বরোর চেয়ারম্যান মণীশ মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘‘যে কোনও মৃত্যু দুর্ভাগ্যজনক। একই পরিবারের পাঁচজন ডেঙ্গিতে আক্রান্ত। পরিবারের কেউ তো একবার জানাবেন। তাহলে অনেক আগে ব্যবস্থা নিতে পারতাম। মৃত্যু হওয়ার পরে জানতে পারছি এরকম ঘটনা ঘটেছে। ওই বাড়িটি মূল রাস্তার ধারে। আশপাশে কোথাও জলাজমি নেই। পরিবারের এতজন সদস্য কীভাবে আক্রান্ত হলেন, তা দেখতে হবে।’’ কাউন্সিলরের কথা শুনে হিমাদ্রির জেঠিমা সন্ধ্যার মন্তব্য, ‘‘কাছেই বরো অফিস। আমাদের পরিবারের কতজন আক্রান্ত, সারা পাড়া জানে। আর পুরসভা জানতে পারল না? কোন বাড়িতে জ্বর হয়েছে, তা জানার জন্যই তো বাড়ি বাড়ি সমীক্ষা করছেন স্বাস্থ্যকর্মীরা!’’
Bootstrap Image Preview