Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২১ বুধবার, নভেম্বার ২০১৮ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

যা খেয়ে টানা ৯ দিন গুহার ভিতর বেঁচে ছিল ১২ কিশোর ফুটবলার ও কোচ

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১১ জুলাই ২০১৮, ১২:৫৪ PM
আপডেট: ১১ জুলাই ২০১৮, ১২:৫৪ PM

bdmorning Image Preview


আন্তর্জাতিক ডেস্ক-

১৮ দিনের রুদ্ধশ্বাস পরিস্থিতির অবসান ঘটিয়ে থাইল্যান্ডের উত্তরাঞ্চলের দুর্গম এক গুহা থেকে গতকাল মঙ্গলবার (১০ জুলাই) বিকালে  ১২ কিশোর ও তাদের কোচকে উদ্ধার করা হয়েছে।

গত ২৩ জুন কোচের সঙ্গে ঘুরতে গিয়ে দুর্গম ওই গুহায় আটকা পড়েছিল ১২ ক্ষুদে ফুটবলার। নয় দিন পর এক ব্রিটিশ উদ্ধারকারী ডুবুরি গুহার প্রবেশমুখ থেকে চার কিলোমিটার ভেতরে তাদের সন্ধান পায়।

মাত্র ১১ থেকে ১৭ বছর বয়সী ওই কিশোররা স্থানীয় ফুটবল দল ‘ওয়াইল্ড বোরস’র সদস্য বলে জানা গেছে। তাদের কোচের বয়স ২৫ বছর।

তবে উদ্ধার হওয়ার পর এখনও তাদের বাবা-মায়ের সাথে সাক্ষাৎ করতে পারেনি তারা। ‘কোয়ারেনটিন’ অবস্থায় অর্থাৎ শুধু চিকিৎসক ও আবশ্যক মেডিকেল কর্মী ছাড়া সবার ধরাছোঁয়ার বাইরে রাখা হয়েছে। তারা সবাই সুস্থ আছে বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

সারা বিশ্বের নজর কাড়া এই উদ্ধার অভিযানের পর সবার মনে এখন একটাই প্রশ্ন দুর্গম থাম লুয়াং গুহায় কী খেয়ে বেঁচে ছিলেন তারা। সেখানে কী কোন খাবার তাদের সাথে ছিল। নাকি কোন অলৌকিক কিছু কি ঘটেছিল!

জানা গেছে, ক্ষুদে ফুটবলারদের একজন পিরাপাত সোমপিয়াংজাই (১৭)। যেদিন তারা গুহায় আটকে পড়ে অর্থাৎ ২৩ জুন ছিল তার জন্মদিন। তার জন্মদিন উদযাপনের জন্য সবাই যে খাবারগুলো এনেছিল, সেগুলোই তাদের এতোদিন টিকে থাকতে সাহায্য করেছে।

উদ্ধারকারীদের মতে, দলের কোচ সবচেয়ে দুর্বল অবস্থায় আছেন। কারণ তিনি বার বার খাবার খেতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। তার পরিবর্তে সেগুলো ওই কিশোরদের খেতে বলেছেন।

থাই নেভি সিলের ফেসবুক পেজে সবাইকে নিরাপদে উদ্ধারের কথা জানানো হয়েছে। উদ্ধার করা সবাই সুস্থ আছে। সব ধনের প্রস্তুতি শেষ করে গত রবিবার ও সোমবার মোট আটজনকে থাম লুয়াং গুহা থেকে উদ্ধার করা হয়। এরপর গতকাল মঙ্গলবার তৃতীয় দিনে পাঁচজনকে উদ্ধার করে নিরাপদে গুহার বাইরে আনেন উদ্ধারকারীরা। পুরো উদ্ধার-প্রক্রিয়ায় ৯০ জনের একটি ডুবুরি দল কাজ করে। তাঁদের মধ্যে ৪০ জন থাইল্যান্ডের। অন্যরা বিদেশি।

Bootstrap Image Preview