Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২২ শনিবার, সেপ্টেম্বার ২০১৮ | ৭ আশ্বিন ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

ঝিনাইদহ বিআরটিএ অফিসে পদে পদে হয়রানি

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৫ আগস্ট ২০১৮, ০২:৩৪ PM আপডেট: ১৫ আগস্ট ২০১৮, ০২:৩৪ PM

bdmorning Image Preview


জাহিদুর রহমান, ঝিনাইদহ থেকেঃ

নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের পর টনক নড়েছে সব পরিবহন মালিকদের। সেই সুবাদে তারা গাড়ির রেজিষ্ট্রেশন, ড্রাইভিং লাইসেন্স, রুট পারমিট নিতে ঝিনাইদহ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) তে ভীড় করছেন। তবে তারা কাঙ্ক্ষিত সেবা পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ উঠেছে। পদে পদে হয়রানি ও জনদুর্ভোগে মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে।

বিআরটিএ অফিস পরিবহন মালিকদের জনদুর্ভোগ লাঘবে সকাল ৯ টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত ব্যাংক খোলা থাকার কথা থাকলেও ব্যাংক খোলা রাখা হচ্ছে সকাল থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত। ফলে টাকা জমা দিতে না পেরে বেশির ভাগ মানুষ ফিরে যাচ্ছেন।

অন্যদিকে ঝিনাইদহ বিআরটিতে রয়েছে লোকবল সংকট। নানাবিধ কারণে পরিবহন মালিকরা হয়রানির শিকার হচ্ছেন।

ভুক্তভুগিদের সাথে কথা বলে জানা যায়, সাইফুল ইসলাম একজন সরকারি কর্মকর্তা। তিনি শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে আসেন। এসে দেখেন ব্যাংকে উপচে পড়া ভীড়। ভোর সকাল থেকে মানুষের দীর্ঘ লাইন। দুইটার পর আর তার আর টাকা জমা নেন নি।

শেখ মুজিবর রহমান রিপন থাকেন ঢাকায়। তিনি এসেছিলেন তার হারানো ড্রাইভিং লাইসেন্স তুলতে। ঝিনাইদহ ডিসি অফিসে স্থাপিত এনআরবিসি ব্যাংকের কালেকশন বুথে টাকা জমা দিতে না পেরে তিনি একই ব্যাংকের হাটগোপালপুর শাখায় যান টাকা জমা দিতে। রাত জেগে ঢাকা থেকে এসে সন্ধ্যার দিকে পান তার কাগজ। ততক্ষনে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন।

আজাদ রহমান হরিণাকুন্ডু থেকে এসেছিলেন শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে। তিনিও টাকা জমা দিতে না পেরে হয়রানির শিকার হন। টাকা জমা দেওয়ার ক্ষেত্রে একাধিক ব্যাংকের সাথে বিআরটিএ’র চুক্তি না থাকায় মানুষ হয়রানির শিকার হচ্ছেন বলে বিআরটিএ কর্মকর্তারা জানান।

তবে এ সমস্যা আচিরেই কেটে যাবে বলে জানান, ঝিনাইদহ বিআরটিএর সহকারি পরিচালক বিলাস সরকার। তিনি জানান, তার অফিসে কোন হয়রানির সুযোগ নেই। হয়তো টাকা জমা দিতে না পারায় ২/১ দিন দেরি হচ্ছে। লোকবল কম হওয়া সত্বেও গ্রাহকরা আসার সাথে সাথেই কাজ করে দেওয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, টাকা জমা দেওয়ার এই সমস্যা স্থানীয় ভাবে নিরসনের কোন পথ থাকলে সেটা অবশ্যই আমরা করতাম। আমরা হেড অফিসকে সমস্যা নিরসনের জন্য বলেছি। গ্রাহকদের অভিযোগ গাড়ির রেজিষ্ট্রেশন, ড্রাইভিং লাইসেন্স, রুট পারমিট করতে দালালরা অতিরিক্ত টাকা চেয়ে বসছে। তারা সরাসরি অফিসারের সাথে কথা বলতে পারছেন না।

শিমুল নামে এক ট্রাক মালিক জানান, তার রুট পারমিট করতে দুই হাজার টাকা অতিরিক্ত দাবি করা হয়। এ ভাবে বহু মানুষের নানাবিধ অভিযোগের স্তূপ জমা পড়ছে প্রতিদিন। কিন্তু কোন প্রতিকার মিলছে না। গ্রাহকরা যাতে একাধিক ব্যাংকে টাকা জমা দিতে পারেন সেই দাবি করেছেন।

Bootstrap Image Preview