Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৯ বুধবার, ডিসেম্বার ২০১৮ | ৫ পৌষ ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

ভোলায় এনজিওকর্মী হত্যার মূল আসামি গ্রেফতার

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৬ মে ২০১৮, ১১:০৪ PM
আপডেট: ১৬ মে ২০১৮, ১১:০৪ PM

bdmorning Image Preview


ভোলা প্রতিনিধিঃ

ভোলার আলীনগর ইউনিয়নের আলোচিত এনজিওকর্মী হত্যার মূল আসামি মোঃ বিল্লালকে (২৮) রাঙামাটি জেলা থেকে আটক করেছে ভোলা থানা পুলিশ।

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে জেলা পুলিশ সুপার মোঃ মোকতার হোসেনের নেতৃত্বে এসআই মোঃ রফিকুল ইসলাম খান গোপান সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশের একটি টিম নিয়ে রাঙামাটি সরকারি কলেজের সামনে থেকে তাকে আটক করে। এক প্রেসব্রিফিং-এ জেলা পুলিশ সুপার মোঃ মোকতার হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

জেলা পুলিশ সুপার মোঃ মোকতার হোসেন বলেন, গত ১০ মে ভোলা সদর উপজেলার আলীনগর ইউনিয়নে কিস্তির টাকা আনতে গেলে গ্রাহক রাজ মিস্ত্রী বিল্লাল হীড বাংলাদেশের মাঠকর্মী মোঃ বিল্লাল হোসেনকে উত্তেজিত হয়ে ধারালো ছুরি পেটে ঢুকিয়ে দেয়। ঘটনাস্থলেই এনজিওকর্মী বিল্লাল মারা যায়। এ ঘটনার পর থেকেই ঘাতক বিল্লাল পালিয়ে যায়। ঘাতক বিল্লালের মা দুলু বেগমকে ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ আটক করে। এ ব্যাপারে বিল্লালকে মুল আসামি করে একটি মামলা দায়ের করা হয়। বিল্লালকে ধরার জন্য আমাদের পুলিশ বাহিনী বিভিন্ন যায়গায় অভিযান পরিচালনা করে। আমরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি বিল্লাল পার্বত্য চট্টগ্রাম বিভাগের রাঙামাটি জেলার সরকারি কলেজ সংলগ্ন নির্মাণাধীন ভবনে গা ঢাকা দেয়। এ খবর পেয়ে মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে এসআই মোঃ রফিকুল ইসলাম খান, কনেস্টেবল মোঃ রফিক এর নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম রাঙামাটি জেলার সরকারী কলেজের নির্মাণাধীন ভবন থেকে বিল্লাল আটক করে। তারা বিল্লালকে বিকালে ভোলা নিয়ে আসে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে পুলিশ সুপার বলেন, বাপ্তা ইউনিয়নের জোড়া খুন ও দক্ষিণ দিঘলদী ইউনিয়নের দুই বোনকে এসিডে ঝলসে দেওয়ার মুল আসামিদের গ্রেফতারের জন্য আমাদের অভিযান অব্যাহত আছে। আশা করি দ্রুত তাদেরকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনতে পারবো। এ ব্যাপারে জন সাধারনের সর্বাত্মক সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।

এসময় সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ রিয়াজুল ইসলাম, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ছগীর আহমেদ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, হীড বাংলাদেশ ভোলা সদর উপজেলা শাখার মাঠকর্মী মোঃ বিল্লাল হোসেন কিস্তির টাকা আদায় করতে আলীনগর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের মৃত মোঃ অজিউল্লাহ মুন্সীর স্ত্রী গ্রাহক দুলু বেগমের বাসায় যায়। এসময় দুলু বেগম ও তার ছেলে মোঃ বিল্লালের সাথে এনজিওকর্মী বিল্লালের কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে গ্রাহক মোঃ বিল্লাল এনজিওকর্মী বিল্লাল হোসেনকে ধারালো ছুরি দিয়ে পেটে আঘাত করে। ঘটনাস্থলেই এনজিওকর্মী বিল্লাল মারা যায়। ঘটনার পর আটকের আগ পর্যন্ত রাজমিস্ত্রী বিল্লাল পালিয়ে ছিল।

Bootstrap Image Preview