Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৯ শুক্রবার, অক্টোবার ২০১৮ | ৪ কার্তিক ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

ত্রিমুখী বন্দুকযুদ্ধে পুলিশের অস্ত্র লুট মামলার আসামি নিহত

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৬ মে ২০১৮, ১২:০৫ PM
আপডেট: ১৬ মে ২০১৮, ১২:০৫ PM

bdmorning Image Preview


বিডিমর্নিং ডেস্ক-

নারায়ণগঞ্জে ফতুল্লায় পুলিশের অস্ত্র লুট মামলায় গ্রেফতার হওয়া আসামি ত্রিমুখী বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। ছিনতাইকারী দুই গ্রুপের গোলাগুলির সময়ে পুলিশ সেখানে উপস্থিত হলে ত্রিপক্ষীয় বন্দুকযুদ্ধে পারভেজ (৩০) নামে ওই আসামি নিহত হন। নিহত পারভেজ ফতুল্লার দাপা পাইলট স্কুল এলাকার সোবহান মিয়ার ছেলে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে গুলিভর্তি একটি রিভলবার ও ৩টি বড় ছোরা উদ্ধার করা হয়।

মঙ্গলবার দিনগত রাত ২টায় দাপা আলামিন নগর এলাকায় ওই ঘটনা ঘটে। ফতুল্লা মডেল থানার পরিদর্শক মজিবুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, মঙ্গলবার রাত ২টায় আলামিন এলাকায় ছিনতাইকারীদের দুপক্ষের মধ্যে গোলাগুলির খবর পায়। পুলিশের একটি দল সেখানে গেলে তাদের লক্ষ্য করে গুলি ছোড়া হয়। পুলিশও পাল্টা গুলি ছুড়লে পারভেজ গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান।

পুলিশের দাবি, নিহত পারভেজ ছিনতাইকারী। দুগ্রুপের গোলাগুলির সময়ে পুলিশ সেখানে উপস্থিত হলে ত্রিমুখী বন্দুকযুদ্ধে মারা যান তিনি।

পুলিশ জানায়, রাত ২টার দিকে আলামিননগর এলাকায় দুইপক্ষের মধ্যে গোলাগুলির খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। এ সময় পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়া হয়। পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়লে পারভেজ নিহত হন। পারভেজ এলাকায় পুলিশের সোর্স হিসেবে পরিচিত।

জানা গেছে, গত ১৩ মে রবিবার রাতে ফতুল্লা রেলস্টেশন রোড এলাকায় দায়িত্ব পালনের সময় কনস্টেবল সোহেল রানার সঙ্গে থাকা একটি চাইনিজ রাইফেল খোয়া যায়। পরদিন অর্থাৎ সোমবার ১৪ মে সকালে ওই এলাকার দাপা বালুর মাঠ সংলগ্ন একটি ডোবার পাশ থেকে রাইফেলটি উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় ফতুল্লা মডেল থানার এএসআই সুমন কুমার পাল, কনস্টেবল মাসুদ রানা, আরিফ ও সোহেল রানাকে দায়িত্বে অবহেলার জন্য প্রত্যাহার করা হয়। পরে সুমন পাল বাদী হয়ে পারভেজসহ তিনজনকে আসামি করে সোমবার রাতে ফতুল্লা থানায় একটি মামলা করেন। মামলায় অভিযোগ আনা হয়, পারভেজ ওই অস্ত্রটি লুট করেছিল।

Bootstrap Image Preview