Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৬ মঙ্গলবার, অক্টোবার ২০১৮ | ১ কার্তিক ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

বজ্রপাতে সাত জেলায় শিশুসহ ৯ জন নিহত

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৫ মে ২০১৮, ১১:০৪ AM
আপডেট: ০৫ মে ২০১৮, ১১:০৪ AM

bdmorning Image Preview


বিডিমর্নিং ডেস্ক-

বজ্রপাতে শুক্রবার দেশের বিভিন্ন স্থানে ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে দুজন। তাদের মধ্যে দুটি মেয়েশিশু, দুজন কৃষক, দুজন দিনমজুর, একজন গৃহিণী এবং একজন করে মাদরাসা ও এক কলেজছাত্র রয়েছে। তাদের মধ্যে চারজন ধান কাটতে গিয়ে ও একজন জমিতে কাজ করতে গিয়ে মারা গেছে। হবিগঞ্জে তিনজন নিহত ও দুজন আহত হয়। নিহতরা হলেন বাহুবল উপজেলার গুঙ্গিয়াজুড়ি হাওরসংলগ্ন উত্তর ভবানীপুর গ্রামের সনজব উল্লার ছেলে কৃষক মো. আবুল কালাম (৩৫), বানিয়াচং উপজেলার মুড়ারআব্দা গ্রামের মৃত যতীন্দ্র চন্দ্র দাশের ছেলে কৃষক রণধীর চন্দ্র দাস (৪৫) এবং চুনারুঘাট উপজেলার উবাহাটা ইউনিয়নের তাউসী গ্রামের কাতারপ্রবাসী সোহেল মিয়ার স্ত্রী হেনা বেগম (৩৪)। 

প্রশাসন, পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, বাহুবল উপজেলার উত্তর ভবানীপুর গ্রামের কাছে গুঙ্গিয়াজুড়ি হাওরে সকালে একসঙ্গে ধান কাটতে যান ওই গ্রামের আবুল কালাম, সাদ মিয়া ও ওয়াজির উল্লা। দুপুরে তাঁদের ওপর বজ্রপাত হয়। স্থানীয়রা তাঁদের উদ্ধার করে বাহুবল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক কালামকে মৃত ঘোষণা করেন। সাদ মিয়া ও ওয়াজির উল্লা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

অন্য ঘটনাটি ঘটে জেলার বানিয়াচং উপজেলার মুড়ারআব্দা হাওরে। কৃষক রণধীর চন্দ্র দাস দুপুরে হাওর থেকে ধান নিয়ে ফেরার পথে বজ্রপাতের শিকার হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান। বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। চুনারুঘাটের তাউসী গ্রামে গতকাল দুপুরে বৃষ্টির সময় ঘরের বাইরে থেকে খড় আনতে গিয়ে বজ্রপাতের শিকার হন গৃহবধূ হেনা বেগম।

সুনামগঞ্জে নিহত দিনমজুরের নাম মো. জাফর আলী (৪০)। তাঁর বাড়ি তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের গরকাড়ি গ্রামে। গতকাল সকালে যাদুকাটা নদীতে পাথর উত্তোলনের সময় তিনি বজ্রপাতে মারা যান।

কিশোরগঞ্জের মিঠামইনে বজ্রপাতে নিহত হয় শরিফুল ইসলাম (১৫) নামের এক মাদরাসার ছাত্র। গতকাল দুপুরে বৃষ্টির সময় উপজেলার সদর ইউনিয়নের মহিষারকান্দি হাওরে ধান কেটে বাড়িতে ফেরার পথে সে বজ্রপাতের শিকার হয়।

মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলায় নিহত শিশুর নাম লাবনী আক্তার (১২)। সে উপজেলার বরমচাল ইউনিয়নের আকিলপুর গ্রামের বাবুল মিয়ার মেয়ে ও বরমচাল স্কুল অ্যান্ড কলেজের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী ছিল। সকাল ১১টার দিকে সে বাড়ির পাশে সঙ্গীদের নিয়ে খেলা করছিল। এ সময় বৃষ্টি ছিল না। আকাশে মেঘ থাকায় হঠাৎ করে বিজলি চমকায় এবং প্রচণ্ড শব্দে বজ্রপাত হয়। এতে লাবনী গুরুতর আহত হয়। তাকে কুলাউড়া হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। আকিলপুর গ্রামের বাসিন্দা ও বরমচাল ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ইছহাক চৌধুরী ইমরান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

জামালপুর জেলায় নিহত হয় শিশু জান্নাতি খাতুন (১২)। নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে নিহত হন অনয় দেবনাথ (২০) নামের এক কলেজছাত্র। গতকাল দুপুরে উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের সিংগারপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত অনয় দেবনাথ ওই এলাকার জয় দেবনাথের ছেলে। কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে বজ্রপাতে অমল (৩০) নামের এক কৃষি শ্রমিকের মৃত্যু হয়।

Bootstrap Image Preview