Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২১ বুধবার, নভেম্বার ২০১৮ | ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

অস্ত্রের মুখে গৃহবধূকে গণধর্ষণ, সাবেক ইউপি সদস্যসহ আটক ২

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ৩০ ডিসেম্বর ২০১৭, ১০:৩৮ PM
আপডেট: ৩১ ডিসেম্বর ২০১৭, ০৪:০৯ PM

bdmorning Image Preview


মোঃ রাসেদুজ্জামান সাজু, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃ

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার বড়গাঁও ইউনিয়নে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে এক গৃহবধুকে গণধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় পুলিশ সাবেক ইউপি সদস্যসহ দুইজনকে আটক করেছে।

আজ শনিবার বড়গাঁও ইউনিয়নের মোলানখুড়ি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আটককৃতরা হলেন, সদর উপজেলার রাজাগাঁও ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য রবীন্দ্র নাথ রায় ও আব্দুল গফুর। বর্তমানে ওই গৃহবধু ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গৃহবধু (৪০) অভিযোগ করে বলেন, আমার স্বামী ঢাকায় গিয়েছেন এবং আমার সন্তানরা ঠাকুরগাঁওয়ে লেখাপড়া করে। এ কারণে আমি বাসায় একা ছিলাম। শনিবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে হঠাৎ করে ঘরের ভেতরে শব্দ হয়। শব্দ পেয়ে আমি বিছানা থেকে উঠে পরি। এর আগেই ঘরের জানালা ভেঙে স্থানীয় জালাল উদ্দীন, রবীন্দ্র নাথ রায়, মানিক, লিয়াকত, হামিদুর, গফুরসহ ৭জন যুবক ঘরে প্রবেশ করে। এরপর তারা আমাকে ধারালো অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে মুখ চেপে ধরে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে একটি বাঁশ ঝাড়ে যায় এবং সেখানে তারা আমার উপর শারীরিক নির্যাতন চালায়। এ সময় আমি চিৎকার করলে তাঁরা আমার মুখে কাপড় পেচিয়ে দেয় এবং একটি বাঁশের খুটির সাথে বেঁধে রেখে গলা ছুড়ি দিয়ে কেটে দিয়ে পালিয়ে যায়। পরে সকাল ৬টার দিকে স্থানীয়রা দেখতে পেয়ে আমাকে উদ্ধার করে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করে বলে জানান গৃহবধু।

ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন ডা: শাহজাহান নেওয়াজ বলেন, গৃহবধুকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। গৃহবধুর গলায় ধারালো কিছু দিয়ে আঘাত করা হয়েছে; ফলে গলায় মধ্যে কাটা দাগ রয়েছে।

ধর্ষণের বিষয়ে তিনি বলেন, গৃহবধু শরীরে আচরের চিহ্ন পাওয়া গেছে। তারপরও ধর্ষণের বিষয়ে এখন কিছুই বলা যাচ্ছে না। আমরা ধর্ষিতার ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করেছি; রিপোর্ট হাতে পেলেই পরিস্কারভাবে বলা যাবে।

বড়গাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রভাত সিংহ বলেন, গৃহবধুর পরিবারের সঙ্গে একটি মামলা নিয়ে রবীন্দ্র নাথের বিরোধ চলছিল। সেই সূত্রে এ ঘটনা ঘটতে পারে বলে ধারণা করেন তিনি।

ঠাকুরগাঁও সদর থানার ওসি (তদন্ত) কফিল উদ্দীন বলেন, খবর পেয়ে হাসপাতালে গিয়ে গৃহবধুর কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে অভিযুক্ত দুইজনকে আমরা আটক করেছি। সেই সাথে অন্য অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের জন্য আমরা অভিযান অব্যাহত রেখেছি। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান তিনি।

Bootstrap Image Preview