Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৬ মঙ্গলবার, অক্টোবার ২০১৮ | ১ কার্তিক ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

প্রধানমন্ত্রীর আগমন হোক ঈশ্বরদীর প্রত্যাশা পূরণের

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৩ জুলাই ২০১৮, ০২:১৭ PM
আপডেট: ১৩ জুলাই ২০১৮, ০২:১৯ PM

bdmorning Image Preview


ঈশ্বরদীতে প্রধানমন্ত্রীর আগমন ১৪ জুলাই। প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে ঘিরে এক উৎসবের নগরীতে পরিণত হয়েছে ঈশ্বরদী। রাজনীতি থেকে সামাজিক সকল স্তরে সাজ সাজ রব। রাজনৈতিক সমাজ নিজেদের পরিচিতি ও আসন্ন নির্বাচনের আগে নিজেকে তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রীর আগমন সফল ও নিজের মনোনয়ন প্রাপ্তির জন্য ব্যস্ত অন্যদিকে সুশীল সমাজ ঈশ্বরদীর নানা দিক তুলে ধরে ঈশ্বরদীর ভবিষ্যৎ সম্ভাবনা তুলে ধরতে উদ্বুদ্ধ। আর কেনই বা তুলে ধরবেন না ? একটি দেশের প্রধানের কাছেই তো তুলে ধরা আমাদের মৌলিক দায়িত্ব। নিজের প্রাপ্ত অধিকার আদায় করে নেবার দায়িত্ব নিজের। হোক সেটা উনিশ অথবা বিশ। প্রতিটা দলের নেত্রী যেমন তার দলের ইতিবাচক দিকগুলো তুলে ধরে ভোট প্রার্থনা করেন তেমনি একজন নাগরিক হিসেবে আমাদেরও অধিকার আছে দাবি আদায়ে। দল যেমন নিজেদের নেতিবাচক কর্মকাণ্ড গুলো বিচ্ছিন্ন ঘটনা বলে দাবি করে। আমরা তেমনি কিছু শর্ত বিচ্ছিন্ন বলে মত দিচ্ছি। ঈশ্বরদীবাসীর প্রাণের দাবি ঈশ্বরদীকে জেলা চাই। এই দাবিতে হয়েছে মানববন্ধন, সমাবেশ ও প্রচার-প্রচারণা। কেনই বা হবে না একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান হওয়া স্বত্তেও আমরা জেলার সুযোগ সুবিধা পাচ্ছি না। একটি জেলা হবার জন্য যে সকল শর্ত থাকার কথা তার অধিকাংশই রয়েছে ঈশ্বরদীর। তবে কেন জেলা নয়?? আমরা জানি বা ইতিহাসে পরেছি একটি পরিবর্তন বদলে দিতে পারে অনেক কিছু।

ঈশ্বরদীতে হয়েছে রূপপুর পারমানবিক কেন্দ্র। যা সারা বিশ্বের কাছে পরিচিত। তাই ঈশ্বরদীর রূপপুর এখন সারাবিশ্বের কাছে পরিচিত নাম সেই সূত্রেও আমরা জেলা মর্যাদা পাবার দাবিদার। ঈশ্বরদী একটি সুন্দর শহর হোক এটা আমাদের সবার প্রত্যাশা। আমরা জানি জেলা শহর নিরাপত্তাসহ বিভিন্ন দিক থেকে ঝুঁকিমুক্ত থাকে। কারণ জেলা শহরে জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারসহ বিভিন্ন দফতরের কার্যালয় থাকে। যেহেতু রূপপুর পারমানবিক কেন্দ্র একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প ও বিদেশীদের নিবির যোগাযোগ তাই রূপপুরের কথা বিবেচনা করে ঈশ্বরদীকে জেলা করা প্রয়োজন বলে আমি মনে করি।

ঈশ্বরদীতে রয়েছে ঐতিহ্যবাহী হার্ডিঞ্জ ব্রীজ, রয়েছে লালনশাহ সেতু, বাংলাদেশের একমাত্র ইক্ষু গবেষনা ইন্সটিটিউট, ডাল গবেষণা কেন্দ্র, রেলওয়ে জংসন, পেপার মিল ও বিমান বন্দর। এই সকল ঐতিহ্যবাহী স্থান দেখতে অনেক পর্যটক আসে তাদের নিরাপত্তার স্বার্থে জেলা করা প্রয়োজন। বর্তমানে ঈশ্বরদীতে বন্ধ আছে পেপার মিল ও বিমান বন্দর। অসুস্থ রয়েছে ঈশ্বরদী সরকারি হাসপাতালের এ্যাম্বুলেন্স ও এক্সরে মেশিন। জনস্বার্থে এগুলোর ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন। ঈশ্বরদী রেলওয়ের আধুনিকায়ন প্রয়োজন। কারণ ঈশ্বরদীতে অনেক প্রয়োজনেই আসতে হয়। আমরা বিশ্বাস করি বিশ্বের মানুষের কাছে রূপপুর পারমানবিক কেন্দ্র একটি পরিচিত নাম। এটা দেখতে আসবে বা আসছে দেশী-বিদেশী নাগরিক। আমরা দেখেছি বিগত নির্বাচনে ঈশ্বরদীতে বিনা প্রতিদ্বন্দীতায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছে। এটা আওয়ামী লীগের জন্য গর্বের। সেই গর্বটার মূল্যায়ন করতে ঈশ্বরদীর প্রতি নজর দেওয়া প্রয়োজন বলে আমি মনে করি। আমরা আওয়ামী লীগের নেতা কর্মী মুখে শুনি বর্তমান সরকার উন্নয়নের সরকার। বর্তমান সরকার জনগণের সরকার। ডিজিটালের নমুনা আমরা পেয়েছি। আজ আমরা ঘরে বসে অনেক তথ্য পাই। আমি বিশ্বাস করি একজন দেশপ্রেমিক নেত্রি জনগণের নেত্রী জনগণের কথা দাবি ও চাওয়া বুঝতে পারেন। তাই আমি প্রত্যাশা করি প্রধানমন্ত্রীর আগমণ ঈশ্বরদীবাসীর প্রত্যাশা পূরণের হবে। জনগণও প্রধানমন্ত্রীর আশা পূরণ করবে।

গোপাল অধিকারী

লেখক: সাংবাদিক ও মানবাধিকারকর্মী।

Bootstrap Image Preview