Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৯ মঙ্গলবার, অক্টোবার ২০২১ | ৪ কার্তিক ১৪২৮ | ঢাকা, ২৫ °সে

মেসি-নেইমারের লড়াইয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংঘর্ষের আশঙ্কা, ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে পুলিশ

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯ জুলাই ২০২১, ০৪:৩৯ PM আপডেট: ০৯ জুলাই ২০২১, ০৪:৩৯ PM

bdmorning Image Preview


১৪ বছর পর বড় কোনো টুর্নামেন্টের ফাইনালে মুখোমুখি হচ্ছে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা। আগামী রবিবার (১১ জুলাই) ব্রাজিলের ঐতিহাসিক মারাকানা স্টেডিয়ামে কোপা আমেরিকার শিরোপা লড়াইয়ে অবতীর্ণ হবে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুই ফুটবল পরাশক্তি। ফাইনাল এমনিতেই রোমাঞ্চকর, তার মধ্যে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা দ্বৈরথ, নেইমার-মেসির শ্রেষ্ঠত্বের লড়াই। সব মিলিয়ে উত্তেজনা আর রোমাঞ্চের পারদ বেড়ে অসীম পর্যায়ে উঠেছে। শুধু লাতিন আমেরিকা নয়, উত্তেজনার পারদে ফুটছে পুরো ফুটবল বিশ্ব।

উত্তেজনার ছোঁয়া লেগেছে ১৫ হাজার ৯১৫ কিলোমিটার দূরের বাংলাদেশের ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায়ও। কোপা আমেরিকার এবারের আসরের শুরু থেকে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক উত্তেজনা বিরাজ করছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা জুড়ে। হামলা ও পাল্টা হামলার ঘটনাও ঘটেছে। গত ৬ জুলাই পাল্টাপাল্টি হামলায় উভয় পক্ষের অন্তত চারজনের আহত হওয়ার খবর মিডিয়ায় এসেছে।

এমন পরিস্থিতিতে আগামী রবিবার জনপ্রিয় এই দুই দলের ফাইনাল খেলাকে কেন্দ্র করে জেলায় অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি সৃষ্টির আশঙ্কা রয়েছে। এ জন্য সেদিন ভোর ৫টা থেকে মাঠে থাকবে পুলিশ। জনগণকে বাইরে বের না হয়ে নিজের বাসায় বসে খেলা দেখার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে পুলিশের পক্ষ থেকে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে নির্দেশনা এসেছে, চায়ের দোকানে বা বড় কোনো স্ক্রিনে গণজমায়েত করে প্রকাশ্যে খেলা দেখা যাবে না। যার যার বাড়িতে বসে খেলা দেখতে হবে।

ফাইনাল খেলাকে কেন্দ্র করে যারা ঝামেলা সৃষ্টি করার চেষ্টা করবে, তাদের কোনো রকম ছাড় না দেওয়ার কথা বলেছে পুলিশ।

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোল্লা মোহাম্মদ শাহীন গণমাধ্যমকে বলেন, 'ফাইনাল খেলায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে পারে আমাদের কাছে এই রকম আগাম তথ্য রয়েছে। এ সংঘর্ষের ঘটনা এড়াতে আমরা ব্যাপক প্রস্তুতি নিচ্ছি।'

মোল্লা মোহাম্মদ শাহীন আরো জানান, কোপা আমেরিকার ফাইনাল খেলাকে কেন্দ্র করে যাতে কোনো সংঘর্ষের ঘটনা না ঘটে, সে জন্য জেলায় বিট পুলিশিংয়ের ১১৬টি টিম মাঠে কাজ করছে। পুলিশের পাশাপাশি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদেরও সহযোগিতা চেয়েছে পুলিশ।

Bootstrap Image Preview