Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৫ শনিবার, আগষ্ট ২০২০ | ৩১ শ্রাবণ ১৪২৭ | ঢাকা, ২৫ °সে

বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ক্ষোভ ঝাড়লেন পাকিস্থানি রমিজ

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৪ জানুয়ারী ২০২০, ০৫:২৫ PM আপডেট: ১৪ জানুয়ারী ২০২০, ০৫:২৫ PM

bdmorning Image Preview


মধ্যপ্রাচ্যের বর্তমান অস্থিরতায় পাকিস্তানে শুধুমাত্র টি-টোয়েন্টি খেলার সিদ্বান্তে অনড় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। সরকার থেকে দীর্ঘ সময় পাকিস্তানে থাকার অনুমতি পায়নি বিসিবি। গত ১২ জানুয়ারি বিসিবির কার্যনির্বাহী সভা শেষে বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন এই কথা সংবাদমাধ্যমকে জানান। তাই পাকিস্তানে থাকতে বা টেস্ট খেলার কোনো সুযোগ নেই। বাংলাদেশের এমন সিদ্ধান্তে হতবাক পাকিস্তানের এক সময়ের ক্রিকেট তারকা রমিজ রাজা। নিজের মনের মধ্যে থাকা ক্ষোভ ঝাড়তে সময়ক্ষেপণ করেননি।

ইউটিউবে এক ভিডিওতে বাংলাদেশের সমালোচনা করে রমিজ বলেন, 'আমি ঠিক বুঝলাম না মধ্যপ্রাচ্যের অস্থিরতার জন্য করাচি ও রাওয়ালপিন্ডিতে টেস্ট খেলতে বাংলাদেশের সমস্যা কেন হবে। আর তাই যদি কারণ হয় তবে তো এশিয়ার কোনো জায়গার অবস্থা ভালো না। এজন্য কি এশিয়ায় ক্রিকেট খেলা আয়োজন করা বাদ দিতে হবে? ইংল্যান্ডের রাস্তাঘাটে মানুষজনের উপর ছুরি নিয়ে হামলা হচ্ছে, অস্ট্রেলিয়ায় দীর্ঘদিন ধরেই ভয়াবহ দাবানল চলছে। কিন্তু সেখানে ঠিকই ক্রিকেট খেলা হচ্ছে।'

মধ্যপ্রাচ্যের বর্তমান অস্থিরতায় কারণ তুলে ধরেছে বিসিবি। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র ও ইরানের মধ্যকার অস্থিরতায় পাকিস্তান নিরপেক্ষ থাকবে- এমন নিশ্চয়তা দেয়ার পরও বাংলাদেশ কেন সফরে আসতে চায় না তা মাথায় ঢুকছে না রমিজের, 'বাংলাদেশ যে যুক্তি দেখিয়েছে তা আমি বুঝতে পারছি না, যেখানে পাকিস্তানের সরকার এর মধ্যে বলেছে- মধ্যপ্রাচ্যের অস্থিরতা বাড়লে তারা কোনো পক্ষকে সমর্থন দেবে না, পুরোপুরিভাবে নিরপেক্ষ থাকবে। তারপরও কেন এমন কথা।'

পাকিস্তান সফরে আসলে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে রাষ্ট্রপতির সমমানের নিরাপত্তা দেয়া হবে সেটি আরও একবার মনে করিয়ে দেন রমিজ। সম্প্রতি শ্রীলঙ্কা দলকেও সেই নিরাপত্তা দেয়া হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, 'পাকিস্তান তো নিশ্চয়তা দিয়ে, সফরে বাংলাদেশ দলকে সফরকারী একজন রাষ্ট্রপতি সমমানের নিরাপত্তা দেওয়া হবে। সম্প্রতি শ্রীলঙ্কাকে সেই নিরাপত্তাই দেয়া হয়েছে এবং তারা প্রশংসাও করেছে।'

তবে শেষ পর্যন্ত আইসিসির হস্তক্ষেপের আশা করছেন রমিজ, 'আমার মনে হয়, আইসিসির এ ব্যাপারে নজর দেওয়া উচিত। পাকিস্তানে আম্পায়ার ও ম্যাচ পরিচালনাকারীদের পাঠাচ্ছে আইসিসি। তাই তারা ভালো করেই জানে, পাকিস্তানে ক্রিকেট খেলা এখন নিরাপদ।'

Bootstrap Image Preview