Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৪ সোমবার, অক্টোবার ২০১৯ | ২৯ আশ্বিন ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

 ডি মারিয়ার গোলে উড়ে গেল রিয়াল 

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:০৩ PM আপডেট: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:০৩ PM

bdmorning Image Preview


সাবেক ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে দুই গোল করেছেন এ্যাঙ্গেল ডি মারিয়া। আর ‘ব্যতিক্রমী’ এই ডি মারিয়ার দুই গোলেই বুধবার রিয়াল মাদ্রিদকে ৩-০ গোলে বিধ্বস্ত করে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে শুভ সূচনা করেছে প্যারিস সেইন্ট-জার্মেই। নেইমার ও কিলিয়ান এমবাপ্পের অনুপস্থিতিতে পুরো দায়িত্বটাই যেন ডি মারিয়া একাই পালন করে দেখালেন।

পার্ক ডি প্রিন্সেসে ১৪ মিনিটে রিয়াল গোলরক্ষক থিবাট কুর্তোয়াকে খুব কাছে থেকে পরাস্ত করে স্বাগতিকদের এগিয়ে দেন আর্জেন্টাইন তারকা ডি মারিয়া। তবে ৩৩ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুন করার গোলটি ছিল ডি মারিয়া ও অবশ্যই পিএসজির জন্য গুরুত্বপূর্ণ। ২০ গজ দুর থেকে বা পায়ের জোড়ালো শটে তিনি কুর্তোয়াকে কোন সুযোগই দেননি। ইনজুরি টাইমে থমাস মুনিয়ার অভিষেক ম্যাচে দলের পক্ষে তৃতীয় গোলটি করেছেন। তবে ইনজুরি আক্রান্ত এমবাপ্পে ও এডিনসন কাভানি ও নিষেধাজ্ঞায় থাকা নেইমারের অনুপস্থিতিতে ডি মারিয়ার পারফরমেন্সে পিএসজি নতুন করে স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে।

চার বছর আগে রিয়ালের হয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে নিজেকে দারুণভাবে প্রমাণ করেছিলেন ডি মারিয়া। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে যাবার আগে ২০১৪ সালে শিরোপা জয়ী দলেরও গর্বিত সদস্য ছিলেন তিনি।

ম্যাচ শেষে পিএসজি কোচ থমাস টাচেল বলেছেন, ‘আমরা এতে খুব একটা বিস্মিত হইনি। কারণ দীর্ঘদিন ধরেই তিনি নিজেকে এভাবেই প্রমাণ করে চলেছেন। তবে আজ ডি মারিয়া সত্যিকার অর্থেই ব্যতিক্রম ছিলেন। পুরো ম্যাচেই প্রতিপক্ষের জন্য সে বিপদজনক হয়ে উঠেছিল। প্রত্যেকেই বলেছে এই খেলোয়াড়দের নিয়ে আমি কিভাবে জেতার আশা করি। এমনও হতে পারে ফেবারিটের তকমা না থাকাটা আমাদের জন্য ভাল হয়েছে। বেশি চাপে থাকলে দলের কাছ থেকে ভাল পারফরমেন্স আশা করা যায় না।’

গ্রীষ্মকালীন ট্রান্সফারের প্রায় পুরোটা সময় জুড়েই নেইমারের দলত্যাগের বিষয়টি নিয়ে আলোচনায় মুখর ছিল ক্লাব ফুটবল। যে কারণে ফ্রেঞ্চ চ্যাম্পিয়নদের আত্মবিশ্বাস নিয়েও শঙ্কা দেখা দিয়েছিল। গত মৌসুমে ইউরোপীয়ান সর্বোচ্চ আসরে ক্লাব দু’টি ফর্মহীনতার কারণে এবারের মৌসুমে প্রথম থেকেই তারা নিজেদের ফিরিয়ে আনার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছিল। এই জয়ে আগের বছরগুলোতে শেষ ১৬’তে রিয়ালের কাছে পরাজয়ের মধুর প্রতিশোধই যেন নিয়ে নিল পিএসজি। ২০০৪ সালের পর থেকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের গ্রুপ পর্বে ঘরের মাঠে তারা অপরাজিত রয়েছে। গ্যালাতাসারে ও ক্লাব ব্রাগের বিপক্ষে ম্যাচের আগে গ্রুপ-এ’র নিয়ন্ত্রণ ইতোমধ্যেই নিয়ে নিয়েছে প্যারিসের জায়ান্টরা। দিনের আরেক ম্যাচে গ্যালাতাসারে ও ব্রাগের মধ্যকার ম্যাচটি গোলশূন্য ড্র হয়েছে।

১৩ বারের ইউরোপীয়ান চ্যাম্পিয়নদের কোচ হিসেবে দ্বিতীয় মেয়াদে জিনেদিন জিদান আসার পর থেকে রিয়াল প্রত্যাশার কাছাকাছিও যেতে পারেনি। এই প্রতিযোগিতায় এগিয়ে যেতে হলে এখনো অনেক জায়গায় তাদের কাজ করতে হবে। এ প্রসঙ্গে হতাশ জিদান বলেছেন, ‘পিএসজি ভাল দল এবং তারা অনেক সুযোগ সৃষ্টি করেছে। তবে চিন্তার বিষয় হচ্ছে আমার দল কোন ধরনের প্রতিদ্বন্দ্বীতাই আজ গড়ে তুলতে পারেনি। সাধারণত যেকোন ম্যাচেই আমরা বেশ কিছু সুযোগ সৃষ্টি করতে পারি। কিন্তু আজ তার কিছুই হয়নি। যদিও আমরা দু’টি গোল করেছিলাম যা পরবর্তীতে বাতিল হয়ে যায়।’

গ্যারেথ বেলের গোলটি ভিএআর প্রযুক্তির সহায়তায় হ্যান্ডবলের কারনে বাতিল করা হয়। এদিকে চেলসি থেকে দলে আসার পর প্রথমবারের মত মূল একদাশে খেলতে নেমে নিজেকে মেলে ধরনে পারেননি বেলজিয়ান অধিনায়ক এডেন হ্যাজার্ড।

যদিও রক্ষনভাগে সার্জিও রামোস, নাচো ও মার্সেলো এবং মধ্যমাঠে ব্যালন ডি’অর বিজয়ী লুকা মড্রিচের অনুপস্থিতি স্বাভাবিক ভাবেই রিয়ালকে ভুগিয়েছে।
ম্যাচের ১৪ মিনিটে জুয়ান বারনাটের কাটব্যাক থেকে ডি মারিয়া গোল করে দলকে এগিয়ে দেন। ৩৩ মিনিটে অনেকটা একক প্রচেষ্টায় দূর পাল্লার জোড়ালো শটে ব্যবধান দ্বিগুন করে আর্জেন্টাইন তারকা। এরপরই বেলের গোলটি বাতিল করা হয়। 

প্রথমার্ধের স্টপেজ টাইমে বেল আরেকটি সুযোগ নষ্ট করেন। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই করিম বেনজেমার গোল অফসাইডের কারণে বাতিল হয়ে যায়। স্টপেজ টাইমে বারনাটের সহযোগিতায় মুনিয়ার গোলের ব্যবধান বাড়িয়েছেন।

Bootstrap Image Preview