Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৯ মঙ্গলবার, নভেম্বার ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার হাত কেটে নিল যুবলীগ নেতা

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:৪০ PM আপডেট: ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:৪০ PM

bdmorning Image Preview


অন্যায়ের প্রতিবাদ করায় ময়মনসিংহ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী প্রয়াত মাহবুবুল হক শাকিলের ভাগ্নে ইলিয়াস নোমানের বাম হাত কেটে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে স্থায়ীয় যুবলীগ নেতা ও তার ক্যাডার বাহিনীর বিরুদ্ধে।

শুধু তাই নয়, তার মুখে, পিঠে, শরীরের বিভিন্ন স্থানেও আঘাত করা হয়েছে। গত ২ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় গফরগাঁও উপজেলার যশরা শিবগঞ্জ বাজারে এ ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত অবস্থায় ইলিয়াস নোমান বর্তমানে রাজধানীর শেরে-বাংলা নগরে জাতীয় অর্থোপেডিক ইনস্টিটিউটের চারতলায় আইসিইউয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

গত রবিবার হাসাপতালে গিয়ে দেখা যায়, আইসিইউ ইউনিটের বাইরে থেকে জানালা দিয়ে ছেলের দিকে তাকিয়ে চোখের পানি ফেলছেন বৃদ্ধা মা সাহেরা খাতুন আর দুই হাত ওপরে তুলে ছেলের জন্য দোয়া করছেন। ছেলের কথা জানতে চাইলে অঝোরে কাঁদেন সাহেরা খাতুন। চোখ মুছতে মুছতে বলেন, ‘যারা সন্ত্রাস আর মাদক ব্যবসা করে, এদের কিছু হয় না, আর আমার ছেলে এইসবের বিরুদ্ধে কথা বলছে বলে জীবনটাই যায় যায়। আমি ওদের বিচার চাই, কঠিন বিচার চাই।’ মায়ের কান্না দেখে পাশে থাকা স্বজনদের অনেকের চোখ ছলছল করে।

পাঁচ বছরের কন্যা ইশরাত জাহান নওরিনের মুখে এমন কথা শুনে গড়িয়ে পড়ে দুই চোখের পানি। কোনো জবাব দিতে পারেন না ইলিয়াস নোমান। আইসিইউয়ের বেডে সদ্য জ্ঞান ফেরা স্বামীর পাশে দাঁড়িয়ে কাঁদছেন স্ত্রী মাহমুদা খাতুন। মেয়ের কথা শুনে তার মুখ চেপে ধরে ফুঁপিয়ে কাঁদতে থাকেন আর সান্ত্বনা দেন, ‘আরেকটি হাত আছে মা, সেই হাতে তোমাকে খাওয়াবে।’ এরপর কন্যাকে নিয়ে বেরিয়ে যান আইসিইউ থেকে।

পরিবারের সদস্য ও দলীয় নেতাকর্মীরা জানায়, ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার যশোরা গ্রামের মো. সিরাজুল হকের ছেলে নোমান ছোটবেলা থেকেই অন্যায় দেখলেই প্রতিবাদ করতেন, মানুষের কোনো সমস্যা হলেই বন্ধুদের নিয়ে পাশে দাঁড়াতেন, আশপাশের গ্রামেও ছুটতেন মানুষের উপকারের জন্য। 

ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মতিউর রহমান বলেন, ‘প্রতিবাদী যুবক হিসেবেই নোমান এলাকায় পরিচিত। মাদক এবং সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সোচ্চার ছিল, বাল্যবিবাহ হচ্ছে শুনলেই প্রশাসনে খবর দিয়ে নিজে উপস্থিত থেকে তা বন্ধ করত। কোনো অন্যায়কেই ছেলেটি সহ্য করত না। ওই সব কারণই কাল হয়েছে ছেলেটির জন্য।’

এলাকাবাসী, দলীয় নেতাকর্মী ও নোমানের পরিবারের অভিযোগ, স্থানীয় ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক রেজাউল করিম সুমন, ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি সারোয়ার জাহান ধনু ও তাদের ক্যাডার রাকিব, ফয়সাল, আকিব, ওয়াহিদ, মুস্তাকিন ও মাহফুজ এলাকায় ইয়াবা, ফেনসিডিলসহ বিভিন্ন প্রকারের মাদক কারবার এবং সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছে। বেশ কয়েকবার এসবের প্রতিবাদ করে সন্ত্রাসীদের পুলিশে ধরিয়ে দিয়েছিলেন নোমান। সন্ত্রাসীরা বাল্যবিবাহের পক্ষে অবস্থান নিয়ে নানাভাবে হুমকিও দিত নোমানকে।

সম্প্রতি যশোরা গ্রামের ১৮টি পরিবারকে বিদ্যুতের ব্যবস্থা করে দেবে বলে প্রতিটি পরিবার থেকে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয় যুবলীগ নেতা সুমনের ভাগ্নে বকুল মিয়া ও তাঁর সহযোগীরা। এক বছর পেরিয়ে গেলেও বিদ্যুতের ব্যবস্থা করেনি, টাকাও ফেরত দেয়নি। বিষয়টির সমাধান পেতে নোমানকে জানায় পরিবারগুলো। নোমান পরে বকুলসহ অন্যদের টাকা ফেরত দিতে বলেন, নইলে স্থানীয় প্রশাসনের কাছে লিখিতভাবে অভিযোগ দেবেন বলে জানান।

এতে ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে বকুলের মামা সুমনসহ ক্যাডাররা। গত ২ সেপ্টেম্বর মোটরসাইকেলে ফেরার পথে বাড়ি থেকে এক কিলোমিটার দূরে তাঁর ওপর চাপাতি, চায়নিজ কুড়াল দিয়ে সুমনের নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা হামলা করে। সন্ত্রাসীদের কোপে তাঁর বাম হাত দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়; মুখে, পিঠে, শরীরের বিভিন্ন স্থানেও আঘাত লাগে। ওই ঘটনায় নোমানের স্ত্রী মাহমুদা আক্তার বাদী হয়ে যুবলীগ নেতা সুমনসহ সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে গফরগাঁও থানায় একটি মামলা করেন। ওই মামলায় আসামি ধনু মিয়া গ্রেপ্তার হয়েছেন।

সন্ত্রাসীদের কাছে বিদ্যুতের জন্য দেওয়া টাকা ফেরত চাইতে গিয়ে মারধরের শিকার হয়েছিলেন যশোরা ইউনিয়নের খোদাবক্স গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে মো. কামরুজ্জামান। মসজিদের মিটারের জন্যও টাকা নিয়েছিলেন সুমনের ভাগ্নে বকুল। এ প্রসঙ্গে ময়মনসিংহ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ এলাকার পরিচালক ফরহাদ ঢালী বলেন, ‘বিদ্যুৎ দেওয়ার কথা বলে মিটারপ্রতি টাকা নেওয়ার অভিযোগ আসলে আমি বিষয়টি পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে জানাই। গ্রাহকের সঙ্গে প্রতারণা করে টাকা হাতিয়ে নেয় তারা। পরে সমিতি থেকে এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ দিতে গেলে পুলিশের উপস্থিতিতেই বাধা দেয় বকুলসহ ক্যাডাররা।’

এলাকাবাসীর অভিযোগ, যশোরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের প্রত্যক্ষ মদদেই সুমন ও তাঁর ক্যাডাররা মাদক কারবার ও সন্ত্রাসে বেপরোয়া। এই ক্যাডারদের হামলার শিকার হয়েছে অনেকেই। তাদের হামলায় গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিল শিবগঞ্জ বিদান্স উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বদরুল হকসহ অনেকেই।

উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ আতাউর রহমান বলেন, ‘অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে গিয়ে এমনটা হবে কল্পনাও করতে পারি না। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না হলে আর কোনো যুবক মাদক কারবার ও সন্ত্রাসের প্রতিবাদ করবে না। আসামিরা যত বড় ক্ষমতাধরই হোক, তাদের আইনের আওতায় আনা উচিত।’

Bootstrap Image Preview