Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২৯ বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০ | ঢাকা, ২৫ °সে

ভিক্ষার থালা হাতে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরছেন ‘বেদের মেয়ে জোসনা’ ছবির মেকআপম্যান

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৪ অক্টোবর ২০১৮, ০৫:৪৪ PM আপডেট: ১৪ অক্টোবর ২০১৮, ০৬:০০ PM

bdmorning Image Preview
সংগৃহীত


যার হাতের তুলির শৈল্পিক ছোঁয়ায় একসময় শাবানা, ববিতা, অঞ্জু, মৌসুমীর মতো নন্দিত নায়িকারা রূপবতী হয়ে পর্দায় দর্শকদের সামনে উপস্থিত হয়েছেন, সেই মানুষটি আজ ভিক্ষার থালা হাতে নিয়ে মানুষের দরজায় উপস্থিত হচ্ছেন। ভাগ্যের করুণ পরিহাস বুঝি একেই বলে। আজ রাজধানীর পথে পথে ভিক্ষে করছেন তিনি। হায় জীবন!

বলছি কাজী হারুনের কথা। চলচ্চিত্রপাড়ায় খুবই পরিচিত তিনি। ‘বেদের মেয়ে জোসনা’ ছাড়াও তিনি ছিলেন ‘অন্য জীবন’, ‘শঙ্খমালা’, ‘গোলাপী এখন ঢাকা’, ‘জীবন সংসার’সহ শতাধিক ছবির মেকআপম্যান।

১৯৯৪ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘হৃদয় থেকে হৃদয়’ ছবির জন্য সেরা মেকআপম্যান হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারও পেয়েছেন তিনি। কিন্তু এখন দিন যাপন করছেন ভিক্ষাবৃত্তি করে;। ভিক্ষার টাকা দিয়েই এখন চলছে তাঁর চিকিৎসা ও সংসার খরচ।

কাজী হারুন স্ত্রী মহুয়া আকতারকে নিয়ে রাজধানীর দক্ষিণ যাত্রাবাড়ীতে থাকেন। সংসার চালাতে স্ত্রী অন্যের বাড়িতে কাজ করেন। তিন বাড়িতে কাজ করে শুধু ঘর ভাড়াটা জোগাড় করতে পারেন স্ত্রী। এর পর খাবারের জোগান দিতে কাজী হারুন ভিক্ষা করেন পাড়ায় পাড়ায়।

জানা গেছে, ২০০৯ সালে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের (ব্রেইন স্ট্রোক) পর শরীরের ডান পাশ প্রায় পুরোটা অকেজো হয়ে যায়। অসুস্থ হওয়ার কারণে আর কাজ করতে পারছিলেন না, তাই ছিটকে পড়েন চলচ্চিত্র জগৎ থেকে, শুরু হয় অর্থকষ্ট। অনেকটা বাধ্য হয়েই ২০১১ সাল থেকে অন্ন সংস্থানের পাশাপাশি চিকিৎসার খরচ জোগাতে তাকে আজ পথে নামতে হয়েছে।

স্বামীর অসুস্থ হওয়ার ভয়াবহ দিনটি স্মরণ করে স্ত্রী মহুয়া আকতার বলেন, ‘২০০৯ সালে গাজীপুরের হোতাপাড়া থেকে একটি সিনেমার শুটিং শেষ করে বাড়ি ফেরেন। তারপর বাথরুমে যাওয়ার পর আমরা দেখি, তিনি আর বের হচ্ছেন না। উঁকি দিয়ে দেখি, তিনি নিচে পড়ে আছেন। তাড়াতাড়ি আমরা তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যাই। সেখানে গিয়ে জানতে পারি, ব্রেইন স্ট্রোক করেছেন। প্রায় তিন মাস হাসপাতালে থাকতে হয়েছে। বাড়িতে যে জমানো টাকা ছিল, সব খরচ হয় হাসপাতালে। এখনো তিনি ঠিকমতো কথা বলতে পারেন না। শরীরের ডান পাশটা প্রায় কাজ করে না বললেই চলে।’

তিনি বলেন, স্ট্রোকের পর তার শরীরের ডান পাশ অকেজো হয়ে যায়। অসুস্থ হওয়ার কারণে আর কাজ করতে পারে না। সেই থেকে চলচ্চিত্রের কেউ এসে খবরও নেননি কখনও। উপায়ন্তুর না দেখে আমি মানুষের বাড়িতে কাজ করা শুরু করি। তাতেও সংসার চলে না দেখে ২০১১ সাল থেকে সে ভিক্ষায় নামে।

অভাব-অনটনের গল্প এখানেই থেমে থাকেনি কাজী হারুনের। মেয়ের বিয়ের খরচ জোগাতে ২০১০ সালে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার হিসেবে পাওয়া সোনার মেডেলটিও বিক্রি করে দেয় সে।

ওই মেডেলে এক ভরি স্বর্ণ ছিল। মাত্র আট হাজার টাকায় সেটি বিক্রি করেছে। পিতলের কোনো দাম না থাকায় পুরস্কারটি বিক্রি করতে পারেনি। তবে অনেকের দ্বারে সেটি নিয়ে ঘুরেছে। যদি কিছু টাকা দেয় কেউ। কিন্তু তাও জোটেনি কপালে। এর পর চাপা অভিমানে সেই পিতলের পুরস্কারটিও সে ফেলে দিয়েছে।

এ মুহূর্তে জীবন ধারণ প্রসঙ্গে কাজী হারুনের স্ত্রী বলেন, বস্তিতে দেড় হাজার টাকা দিয়ে একটি ছোট রুমে ভাড়া থাকি। তিনটি বাড়িতে কাজ করে ৫০০ করে ১৫০০ টাকা পাই আমি। সেটি দিয়ে সেই রুম ভাড়া দিই। আর ও ভিক্ষা করে দিনে ২০০/৩০০ টাকা পায়। সেই টাকা দিয়ে বাজার আর ওর ওষুধ কিনি। ও যেদিন অসুস্থ থাকে, সেদিন বেশি সমস্যা হয়। আমি ছাড়া তাকে দেখার কেউ নেই। কাজে গেলে বাসায় একা ফেলে রেখে যেতে হয়। তা ছাড়া সে বের না হলে খাবারও জোটে না, আয় বন্ধ।’

চলচ্চিত্রের মানুষের ব্যাপারে মহুয়া আকতার বলেন, চলচ্চিত্রের কারও কাছে আমাদের কোনো কিছু চাওয়ার নেই। সেও চায় না। শুধু প্রধানমন্ত্রীর কাছে সাহায্য চাই। মানুষের কাছে শুনি প্রধানমন্ত্রী কত শিল্পীকে সাহায্য করেছেন। উনার কাছে আমাদের নিয়ে যাওয়ার জন্য তেমন কেউ নেই। তাই আপনাদের মাধ্যমে যদি উনার দুরাবস্থার কথা পৌঁছে তা হলে হয়তো একটা ব্যবস্থা হবে।তিনি আরও বলেন, আমার স্বামী চলচ্চিত্রে কাজ করত। এখন পথে পথে ভিক্ষে করে। অনেকে এটা নিয়ে তাচ্ছিল্যও করেন। এতে তার কষ্ট আরও বাড়ে।

প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে মহুয়া বলেন, ‘আমরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে সাহায্যের চাই। আমাদের চেনাজানা বড় কোনো লোক নেই। কে আমাদের তার কাছে নিয়ে যাবে? সাংবাদিকদের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন করলাম, তিনি যেন আমাদের পাশে দাঁড়ান। আমার স্বামী শিল্পী মানুষ। পথে পথে ভিক্ষে করে বেড়ান। এলাকার লোক এটা দেখে কষ্টও পায়, অনেকে তাচ্ছিল্যও করে। সবাই বলে প্রধানমন্ত্রীর নাকি অনেক বড় মন। তিনি নিশ্চয় আমাদের কষ্টটা বুঝবেন। তিনি তো কত শিল্পীকেই সহযোগিতা করেন।’

মহুয়ার প্রত্যাশা, যে হাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একদিন গুণের স্বীকৃতি হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার তুলে দিয়েছিলেন, সেই হাতে এবার মমতা আর আস্থার হাতটাও তিনি রাখবেন।

Bootstrap Image Preview