Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২৫ মঙ্গলবার, জুন ২০২৪ | ১১ আষাঢ় ১৪৩১ | ঢাকা, ২৫ °সে

প্রথম টেস্ট জয়ের ১৪ বছর পূর্তি আজ

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০ জানুয়ারী ২০১৯, ০১:২৬ PM
আপডেট: ১০ জানুয়ারী ২০১৯, ০১:২৬ PM

bdmorning Image Preview


আজ সেই ১০ জানুয়ারি। ঠিক ১৪ বছর আগে, এই দিনে টেস্ট ক্রিকেটের প্রথম বড় সাফল্য পেয়েছিল বাংলাদেশ। ক্রিকেটের সবচেয়ে  মর্যাদার ফরম্যাট টেস্টে ক্রিকেটের জয়টা আসে আজকের দিনেই। জিম্বাবুয়েকে ঘরের মাটিতে ২২৬ রানে হারিয়ে প্রথম বারের মতো টেস্ট জয়ের স্বাদ পায় হাবিবুল বার্শারের অধীনে বাংলাদেশ দল। 

২০০০ সালের ২৬ জুন বাংলাদেশ দশম টেস্টখেলুড়ে দেশ হিসেবে আইসিসির সদস্যপদ লাভ করে। ১৩ নভেম্বর বাংলাদেশ ক্রিকেট দল নাইমুর রহমানের অধিনায়কত্বে প্রথম আন্তর্জাতিক টেস্ট ক্রিকেট অঙ্গনে প্রবেশ করে। ভারতের বিপক্ষে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত সেই ম্যাচে অভিষেক টেস্টেই সেঞ্চুরি (১৪৫) করে অস্ট্রেলিয়ার চার্লস ব্যানারম্যান ও জিম্বাবুয়ের ডেভিড হটনের পাশে নাম লেখান আমিনুল ইসলাম। ম্যাচের প্রথম ইনিংসে ভালো দাপন দেখালেও দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং ব্যর্থতায় ম্যাচ হারে বাংলাদেশ। পরবর্তী চার বছরে ২১টি টেস্ট খেলেও টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক জয়ের আক্ষেপ মেটেনি বাংলাদেশে।

২০০৪ সালে ৬ জানুয়ারি নিজেদের ২২তম টেস্টে চট্টগ্রামের এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টসে জিতে ব্যাটিংয়ে সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ। প্রথমেই ব্যাট করতে নেমে দারুণ এক সূচনা এনে দিলেন ওপেনার জাভেদ ওমর ও নাফিস ইকবাল। তাদের ৯১ রানের ওই জুটি শক্ত একটি ভিত্তি তৈরি করে দিয়েছিল দলকে। এরপর তাদের দেখানো পথেই হেটেছেন বাকিরা। নাফিস করেছিলেন ৫৬, হাবিবুল ৯৪, রাজিন সালেহ ৮৯, মোহাম্মদ রফিক ৬৯। অল্পের জন্য অর্ধশতক ফসকে গিয়েছিল খালেদ মাসুদ (৪৯) ও মাশরাফি বিন মুর্তজার (৪৮)। একাধিক ক্রিকেটারদের ফিফটিতে প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশে সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৪৯.৩ ওভারে ৪৮৮ রান। জবাবে জিম্বাবুয়ের  প্রথম ইনিংস শেষ হয় ৩১২ রানে। বাংলাদেশের পক্ষে রফিক নিলেন ৫টি, মাশরাফি ৩টি ও তাপস ১টি উইকেট।

দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমেই বিপর্যয়ে পড়ল বাংলাদেশ। তবে এ সময় দলের হয়ে গুরুত্বপূর্ণ ৫৫ রানের ইনিংস খেলেন হাবিবুল বাশার। তার ফিফটিতে ভর করে ৯ উইকেটে  ২০৪ করে ইনিংস ঘোষণা করে বাংলাদেশ। জিম্বাবুয়ের পক্ষে সর্বোচ্চ ৫ উইকেট নেন এলটন চিগুম্বুরা। জিম্বাবুয়ের সামনে লক্ষ্য দাঁড়ায় ৩৮১ রান। 

বাংলাদেশের দেওয়া রানের জবাবে চতুর্থ দিনের শেষ বেলার মাত্র ২ রানেই ২টি উইকেট হারিয়ে বসে জিম্বাবুয়ে। পঞ্চম দিনে বাংলাদেশের জয়ে জাদুকরি স্পেল করেন প্রথম ইনিংসে উইকেট শূন্য থাকা এনামুল হক জুনিয়র।

শেষ উইকেটে ডগলাস হন্ডো আর ক্রিস্টেফার এমপফু জুটিটা টিকল মাত্র ১৭ বল। এনামুল হক জুনিয়রের বলে এমপফুর ব্যাট ছুঁয়ে বল তখন বাতাসে। সবার নজর বলটার ওপর। সিলি মিডঅফে মোহাম্মদ আশরাফুল ক্যাচটা ধরতেই চিৎকার আর গর্জনে ফেটে পড়ল চট্টগ্রামের এমএ আজিজ স্টেডিয়াম। ২২৬ রানের বিশাল জয় পেলো বাংলাদেশ। মাত্র ৪৫ রানে ৬ উইকেট তুলে নিয়ে বাংলাদেশে প্রথম টেস্ট জয়ের নায়ক বনে যান। তার বোলিংয়ে মাত্র ১৫৫ রানেই শেষ হয়ে যায় জিম্বাবুয়ের দ্বিতীয় ইনিংস।

টেলিভিশন আর রেডিওর মাধ্যমে খবর পড়ে গেল সারা দেশে। এর পর প্রথম টেস্ট জয়ের উৎসব চলল গোটা দেশজুড়ে। টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম জয়ের আনন্দে ভাসল লাল-সবুজের পতাকা। বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রেমীদের কাছে দিনটি হয়ে গেল শ্রদ্ধা আর অহংকারের।
 

Bootstrap Image Preview