Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ০৮ বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বার ২০২২ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ | ঢাকা, ২৫ °সে

মাশরুম চাষ করুন সহজেই তাও আপনার বাড়িতে

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:২৫ PM
আপডেট: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:২৫ PM

bdmorning Image Preview
ছবি সংগৃহীত


অনেক পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ মাশরুম ঔষধি গুণের ভান্ডার। আপনি তাজা মাশরুম দিয়ে বিভিন্ন ধরণের সুস্বাদু খাবার তৈরি করতে পারেন। বেশিরভাগ মানুষই বাজার থেকে মাশরুম কেনেন কিন্তু আজ আমরা আপনাদের জানাচ্ছি কিভাবে ঘরে বসে মাশরুম চাষ করা যায়।

আমাদের দেশে তিনটি মাশরুমের প্রজাতি প্রচলিত। বাটান (বোতাম) ধিংরি (ঝিনুক) এবং দুধিয়া (দুধিয়া) মাশরুম। তবে অনেকেই জানেন যে অয়েস্টার মাশরুম পুষ্টি এবং স্বাদ উভয় দিক থেকেই বাটান মাশরুমের চেয়ে ভালো। বাজার থেকে কিনলে মাশরুমের মধ্যে দামি হচ্ছে এই বোতাম বা বাটান মাশরুম। সবচেয়ে ভালো দিক হল আমরা সহজেই বাড়িতে এই মাশরুম চাষ করতে পারি।

ক. মাশরুম চাষ করতে কি কি লাগবেঃ

খড় প্রয়োজন মাশরুম চাষের জন্য। ধান বা গম কাটার পরে অবশিষ্ট খড় ব্যবহার করতে পারেন। এর পরে আপনি যে কোনও পুরানো ব্যবহৃত পলিথিন নিন। যা আপনি প্রথমে ভালোভাবে ধুয়ে শুকিয়ে নেবেন। এছাড়াও একটি পুরানো ঝুড়ি, পাটের ব্যাগ, এমনকি একটি প্লাস্টিকের বোতলও ব্যবহার করতে পারেন। আর প্রয়োজন মাশরুমের বীজ বা স্পনস।

খ. কীভাবে মাশরুম চাষ করবেনঃ

১. জায়গা নির্বাচনঃ

আপনার বাড়ির এমন একটি জায়গা খুঁজে বের করুন, যেখানে আর্দ্রতা রয়েছে এবং সামান্য অন্ধকার রয়েছে। টেবিলের নীচে বা আপনার বারান্দায় একটি শেড তৈরি করে বা কার্ডবোর্ডে রেখে মাশরুম চাষ করতে পারেন। এই জায়গাটি এমন হওয়া উচিত, যেখানে খুব বেশি আলো নেই এবং তাপমাত্রা কম।

প্রথমে আপনাকে খড় প্রস্তুত করতে হবে। মনে রাখবেন সবুজ রঙের কাঁচা খড় নেবেন না। শুধুমাত্র হলুদ রঙের শুকনো খড় নেবেন। এবার এটিকে ৬-৭ ইঞ্চি আকারে কেটে নিন। এই খড় সারারাত জলে ভিজিয়ে রাখুন এবং সকালে বের করে নিন। এরপর গরম জলে সেদ্ধ করে শুকিয়ে নিন। এই খড় এমনভাবে তৈরি করুন যাতে সামান্য আর্দ্রতা এতে থাকে।

২. ভুসি প্রস্তুত করার পদক্ষেপঃ

এখন আপনাকে মাশরুমের বীজ প্রস্তুত করতে হবে। জেনে রাখুন যে একটি পরিবারের জন্য ৫ কেজি খড়ে জন্মানো মাশরুম যথেষ্ট। যাতে খড়ের পরিমাণ অনুযায়ী ২% বীজ দিতে হবে। উদাহরণস্বরূপ, ৫ কেজি খড়ের জন্য মাত্র ১০ গ্রাম বীজ প্রয়োজন।

  • পরবর্তী ধাপে আপনাকে বপন করতে হবে। এর জন্য দুটি উপায় রয়েছে, প্রথমে আপনি সরাসরি খড়ের মধ্যে বীজ ছিটিয়ে দিন এবং তারপর এটি ভালোভাবে মিশিয়ে পলিথিনের ব্যাগে ভরে নিন।
  • দ্বিতীয়টি হল স্তর পদ্ধতি। যেখানে প্রথমে পলিথিনে খড়ের একটি স্তর রাখতে হবে। তারপরে মাশরুমের বীজ রাখবেন। তারপর খড়ের দ্বিতীয় স্তর এবং তারপর বীজ যোগ করুন। এটি করার সময়, পুরো পলিথিন ব্যাগটি পূরণ করুন এবং তারপরে এটির উপরে একটি গিঁট বেঁধে দিন।
  • ভুসি এবং মাশরুমের বীজ দিয়ে ব্যাগ ভর্তি করার আগে, নীচে এবং তার চারপাশে ছোট গর্ত করুন। এই গর্তগুলি এত বড় হওয়া উচিত নয় যে তাদের থেকে খড় বেরিয়ে আসতে পারে এবং এত ছোটও না যে বাতাস যেতে পারে না। গর্তের আকার এমন রাখতে হবে যাতে বাতাস সহজেই এটি দিয়ে যেতে পারে।
  • খড় এবং বীজ দিয়ে ব্যাগটি পূরণ করুন, এটি উপরে বেঁধে রাখুন এবং আপনার নির্বাচিত জায়গায় রাখুন। মাশরুমের তাপমাত্রা ২০ থেকে ২৮ ডিগ্রি এবং অন্ধকারও হওয়া উচিত। যদি তাপমাত্রা বেশি হয় তবে আপনি ব্যাগের উপর জল ছিটিয়ে ভারসাম্য বজায় রাখতে পারেন বা তাপমাত্রা কম থাকলে আপনি মাশরুমের ব্যাগটি এমন ঘরে রাখুন যেখানে হিটার ইত্যাদি চলছে।

৩. চেক করা বীজ লাগানোর পরঃ

মাশরুম ব্যাগ প্রস্তুত করার তিন দিন পর, এটি খোলার চেষ্টা করুন। আপনি যদি খড়ের সর্বত্র সাদা রঙের জাল দেখতে পান তবে এর অর্থ মাশরুম বাড়তে শুরু করেছে। এবার আবার বন্ধ করে একটি ভেজা কাপড় বা ভেজা বস্তা চাপা দিয়ে রাখুন। এই কাপড়ে প্রয়োজন মতো জল স্প্রে করতে থাকুন। আর্দ্রতা বজায় রাখতে হবে তবে খেয়াল রাখতে হবে যেন ব্যাগে জল জমে না থাকে।

৪. কুঁড়ি দেখতে পাবেনঃ

মাশরুম বাড়তে প্রায় ৩ সপ্তাহ সময় লাগে। কিন্তু এর পরে এটি খুব দ্রুত বৃদ্ধি পায়। প্রায় ৩ সপ্তাহ পরে, কাপড়টি সরিয়ে ব্যাগের দিকে তাকান। দেখবেন গর্ত থেকে ছোট ছোট সাদা মাশরুমের কুঁড়ি বের হচ্ছে। যখন এই কুঁড়িগুলো দেখতে পাবেন তখন আপনি পলিথিন খুলে রাখতে পারেন বা কোথাও ঝুলিয়ে রাখতে পারেন। কুঁড়ি গঠনের প্রায় এক সপ্তাহের মধ্যে মাশরুমের যথেষ্ট ফসল পাবেন।

৫. মাশরুমের বড় গুচ্ছে পরিনতিঃ

প্রথমে গর্ত থেকে একটি কুঁড়ি বেরিয়ে আসতে দেখবেন। যা কিছু দিনের মধ্যে ঝিনুক মাশরুমের একটি বড় গুচ্ছে পরিণত হবে। যখন এই গুচ্ছ উপরের দিকে ঘুরতে শুরু করবে তখন আপনি মাশরুম সংগ্রহ করতে পারেন। প্রথম ফসল পেয়ে যাবার পর মাশরুম কেটে নিন। প্রথম ফসলের প্রায় ১০ দিন পরে দ্বিতীয় ফসল পাবেন, অর্থাৎ একই ব্যাগ থেকে দ্বিতীয় ফসল এবং তারপরে প্রায় ১০ দিন পর তৃতীয় ফসল। এরপর চাইলে সহজেই গর্ত থেকে এর মূল সরিয়ে ফেলতে পারেন। ব্যাগটি রেখে দিতে পারেন পড়ে ব্যবহারের জন্য।

৬. নিয়মিত মাশরুম উৎপাদন করতে চাইলেঃ

একটি একক ব্যাগ দিয়ে আপনি প্রায় দুই-তিন মাস মাশরুম পেতে পারেন। চাইলে ১ কেজি খড়ের ৩-৪ টে ব্যাগ তৈরি করতে পারেন। কয়েক দিনের ব্যবধানে ব্যাগ রাখতে পারেন যেমন প্রথম সপ্তাহে আপনি দুটি ব্যাগ রাখলেন এবং তারপরে দ্বিতীয় সপ্তাহে আরও দুটি। এর উপর নিয়মিত জল ছিটাতে থাকুন। এতে আপনি নিয়মিত মাশরুম উৎপাদন করতে পারবেন।

গ. মাশরুম চাষের বিশেষ কিছু কথাঃ

  • যতক্ষণ না খড় সম্পূর্ণ কালো হয়ে যায়, ততক্ষণ এটা দিয়ে মাশরুম চাষ করতে পারেন। এটি কালো হয়ে যাওয়ার পরেও আপনাকে এই খড়টি ফেলে দিতে হবে।
  • যদি বেশি মাশরুম উৎপাদিত হয়ে থাকে এবং আপনি সেগুলি সম্পূর্ণরূপে ব্যবহার করতে সক্ষম না হন তবে ফ্রিজে মাশরুম সংরক্ষণ করতে পারেন। অথবা রোদে ভালো করে শুকিয়ে এয়ারটাইট জারে রেখে দিতে পারেন। যখনই এটি খাওয়ার ইচ্ছা হবে, এটি তৈরি করার আগে গরম জলে সেদ্ধ করে নিলেই আগে মত দেখতে লাগবে। তারপর পছন্দের মাশরুম রেসিপি বানিয়ে নিন।
  • মাশরুম চাষের জন্য, তাপমাত্রার ভারসাম্য বজায় রাখতে হবে। তবে ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহ অয়েস্টার মাশরুম চাষের জন্য উপযুক্ত বলে মনে করা হয়।
  • যেকোনো কিছু শিখতে সময় লাগে। অতএব, যদি মাশরুম জন্মানোর প্রথম প্রচেষ্টা সফল না হয়, অবশ্যই দ্বিতীয়, তৃতীয় প্রচেষ্টা করবেন।
Bootstrap Image Preview