Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২৯ বুধবার, জুন ২০২২ | ১৫ আষাঢ় ১৪২৯ | ঢাকা, ২৫ °সে

রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধে অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে বাংলাদেশ

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২২, ১২:৩৬ AM
আপডেট: ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২২, ১২:৩৬ AM

bdmorning Image Preview
ছবি সংগৃহীত


ইউক্রেনের ওপর রাশিয়ার হামলার প্রভাবে বাংলাদেশসহ ছোট ছোট দেশগুলো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে মনে করেন সাবেক পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক। তিনি মনে করেন, এটি সমগ্র বিশ্বের জন্য ভয়ঙ্কর একটি বিষয়।

শহীদুল হক বলেন, গত দুই মাস ধরে জড়িত পক্ষগুলো আলোচনা করছিল কিন্তু শেষ পর্যন্ত পুতিনকে ইউক্রেন আক্রমণ করা থেকে বিরত রাখা যায়নি। আমার মনে হচ্ছে না এই মুহূর্তে কূটনীতির মাধ্যমে কোনও ইতিবাচক ফলাফল আমরা দেখতে পাবো।

তিনি বলেন,  পরিস্থিতি আরও ঘনীভূত হবে এবং এর প্রভাব সারাবিশ্বে পড়বে। একইসঙ্গে বাংলাদেশসহ ছোট ছোট দেশগুলো রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

ইউরোপে যুদ্ধঃ শহীদুল হক বলেন, রাশিয়ার এই আক্রমণের ফলে বড় ধরনের যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা আছে কারণ যত বড় বড় যুদ্ধ হয়েছে তার সবগুলোই ইউরোপে হয়েছে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে প্রায় পঞ্চাশটির মতো ছোট ছোট যুদ্ধ হয়েছে, তার সবগুলোই ইউরোপের বাইরে হয়েছে। শুধু ২০১৪ সালে রাশিয়া যখন ক্রিমিয়া দখল করে নেয় তখন সংঘর্ষ দেখা দেয়।

রাশিয়া ও ইউক্রেনের সমস্যা প্রেক্ষাপট বর্ণনা করতে গিয়ে তিনি বলেন, ১৯৯১ সালে ইউক্রেন যখন স্বাধীনতা ঘোষণা করে তখন রাশিয়া সেটি মেনে নিতে পারেনি কারণ তারা ঐতিহাসিকভাবে মনে করে যে ইউক্রেন রাশিয়ার একটি অংশ।

ইউক্রেন যে রাশিয়ার অংশ এটি পুতিন অনেকবার বলেছেন। এবারই প্রথম তিনি একটি সামরিক অভিযানের মাধ্যমে সেটি আবার প্রকাশ করলেন বলে তিনি জানান।

পশ্চিমা বিশ্বের প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে শহীদুল হক বলেন, ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন, ইউরোপিয়ান কাউন্সিল এবং ন্যাটো একসঙ্গে এর নিন্দা করেছে। বিভিন্ন জায়গায় রাশিয়ার যে সম্পদ রয়েছে সেটিকে জব্দ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, এখন দেখার বিষয় হচ্ছে আন্তর্জাতিক লেনদেনের মাধ্যম সুইফট থেকে তাদের বাদ দেওয়া হয় কিনা। যদি এটি করা হয় তাহলে তা রাশিয়ার জন্য অর্থনৈতিকভাবে অত্যন্ত ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াবে।

ইউক্রেনের এই ঘটনার এশিয়ার বড় ধরনের প্রভাব ফেলবে মনে করেন সাবেক এই পররাষ্ট্র সচিব। তিনি বলেন, যুদ্ধ শুরু হবে এরকম একটা আশঙ্কা অনেকদিন থাকলেও যুদ্ধ শুরু হয়েছে অলিম্পিক শেষ হওয়ার পরে। এটি দেখে মনে হয় তাদের ভিতর একটি বোঝাপড়া আগে থেকে ছিল।

ইউক্রেন পরিস্থিতির দিকে নজর রাখছে বাংলাদেশ: ইউক্রেন পরিস্থিতির দিকে নজর রাখছে বাংলাদেশ। একইসঙ্গে সেখানে অবস্থানরত বাংলাদেশিদের দেশটি ত্যাগ করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেনবলেন, ‘আমরা চাই সংঘাত পরিহার করে কূটনীতির মাধ্যমে সমস্যার সমাধান হোক।’

বিবদমান পক্ষগুলো সংলাপ ও আলোচনার মাধ্যমে তাদের মতদ্বৈধতা দূর করুক, এটাই বাংলাদেশ প্রত্যাশা করে বলে তিনি জানান।

ইউক্রেনে অবস্থানরত বাংলাদেশিদের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘পোল্যান্ডে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস বিষয়টি দেখছে। বাংলাদেশিদের অনুরোধ সাপেক্ষে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

ইউরোপসহ সারা বিশ্বে একটি শঙ্কা বিরাজ করছে, রাশিয়া যেকোনও সময়ে ইউক্রেন আক্রমণ করতে পারে। ন্যাটো সদস্য হওয়ার ইউক্রেনের ইচ্ছার বিরোধী রাশিয়া এবং এ কারণে ইউক্রেন সীমান্তে রাশিয়ার সৈন্য সমাবেশের ফলে সেখানে একটি যুদ্ধাবস্থা বিরাজ করছে। যুক্তরাষ্ট্র একাধিকবার বলেছে, রাশিয়া ইউক্রেন আক্রমণ করলে এর সমুচিত জবাব দেওয়া হবে।  

এসব বিষয় উল্লেখ করে গত ১৫ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ দূতাবাস এক জরুরি বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, ‘সাম্প্রতিক অবস্থার প্রেক্ষাপটে ইউক্রেনে বসবাসরত সম্মানিত প্রবাসী বাংলাদেশিদের অবিলম্বে ইউক্রেন ত্যাগ করার পরামর্শ দেওয়া যাচ্ছে। অন্য কোনও দেশে যেতে না পারলে তারা বাংলাদেশে যেতে পারেন। ঘটনাবলি পর্যবেক্ষণ করে পরবর্তী সময়ে দূতাবাসের পক্ষ থেকে পরামর্শ হালনাগাদ করা হবে। একই সঙ্গে সব বাংলাদেশিকে অত্যাবশ্যকীয় না হলে ইউক্রেনে ভ্রমণ পরিহার করার পরামর্শ দেওয়া হলো।’

বিজ্ঞপ্তিতে ইউক্রেনে অবস্থানরত সব বাংলাদেশিকে তাদের অবস্থানের তথ্য দূতাবাসকে অবহিত রাখার অনুরোধ করা হয়, যাতে জরুরি প্রয়োজনে দূতাবাস তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারে।

Bootstrap Image Preview