Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২৯ শনিবার, জানুয়ারী ২০২২ | ১৬ মাঘ ১৪২৮ | ঢাকা, ২৫ °সে

মিউজিক ভিডিওতে সিরিয়াল কিলারের থাকা নিয়ে মুখ খুললেন কিশোর পলাশ

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৩ জানুয়ারী ২০২২, ০৪:৪০ PM
আপডেট: ১৩ জানুয়ারী ২০২২, ০৪:৪৩ PM

bdmorning Image Preview
ছবি সংগৃহীত


আমার গানে একজন সিরিয়াল কিলার মডেল হয়েছে এটা ভাবতেই এখন আমার কষ্ট পাচ্ছি- বলছিলেন ভাঙা তরী ছেঁড়া পালের গায়ক কিশোর পলাশ।  বৃহস্পতিবার দুপুরে কালের কণ্ঠের সঙ্গে আলাপকালে জনপ্রিয় ফোক সঙ্গীতশিল্পী বলেন, 'একজন সিরিয়াল কিলার ধরা পড়লো, শুনলাম আমার গানের ভিডিও থেকেই নাকি ধরা পড়েছে। আর যাই বলেন, বিষয়টা ভাবতেই কষ্ট হচ্ছে যে আমার মিউজিক ভিডিও এমন একজন খারাপ মানুষ রয়েছে।'

উত্তরবঙ্গের বগুড়া শহরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে নিজের অবস্থান জানান দিতে তিন জনকে হত্যা করে হেলাল হোসেন ওরফে সেলিম ফকির ওরফে বাউল সেলিম ওরফে খুনি হেলাল (৪৫)। ওই হত্যাকাণ্ডে দায়ের করা মামলা থেকে নিজেকে আড়াল করতে গত ২০ বছর ধরে বাউল ছদ্মবেশে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। 

জানা গেছে, হত্যাকাণ্ডের পর ভৈরব স্টেশনে গান গেয়ে নতুন করে জীবন শুরু করে এবং দ্বিতীয় বিয়ে করে। মূলত হত্যাকাণ্ডের সাজা থেকে বাঁচতেই বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে ঘুরতেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত রেহাই হয়নি। ২০ বছর লুকিয়েও রেহাইল হলো না, কেননা এই মিউজিক ভিডিও এখন পর্যন্ত সাড়ে ৫ কোটিবার দেখা হয়েছে।

মিউজিক ভিডিওতে সিরিয়াল কিলার কেন? 

এ বিষয়টি সবিস্তারে বলেছেন কণ্ঠশিল্পী কিশোর পলাশ। জনপ্রিয় ধারার এই ফোক শিল্পী বলেন, 'ভাঙা তরী ছেঁড়া পাল গানের মিউজিক ভিডিও করার জন্য আমরা ঢাকার আশেপাশের লোকেশন বেছে নেই। এই মিউজিক ভিডিওর ডিরেক্টর নোমান রবিন ভাই। মূলত আমাদের কোনো মডেল ছিল না। আমরা রাস্তার পাশে যাকে পাচ্ছি আমাদের গল্পের সঙ্গে মিলে গেলে তাকে অফার করছি। দেখবেন, আমাদের গানে একজন মুচি, রাস্তার মানুষ ও অই বাউলশিল্পী মানে যিনি সিরিয়াল কিলার, আসলে উনি যে সিরিয়াল কিলার; সর্বোপরি লোকটি যে একজন খারাপ মানুষ সেটা কোনোভাবেই বোঝা আমাদের সম্ভব ছিল না।

কিশোর পলাশ বলেন, আমরা ওইদিন নারায়ণগঞ্জ রেল স্টেশনের আশেপাশে শুটিং করছিলাম। হঠাৎ বাউল সেলিমকে দেখতে পাই রেললাইন দিয়ে কোথায় যেন হেঁটে যাচ্ছে। মনে হলো লোকটাকে মিউজিক ভিডিওতে সামান্য সময়ের জন্য ধরতে পারলে ভালো হতো। যে ফোক, কিছুটা আধ্যাত্মিক ধরনের গান। উনাকে বললাম, সে এক কথায় রাজি হয়ে গেল। আমরা শুটিং করলাম। এই শুটিং ঘটনা ৫ বছর আগে, আর এই মুহূর্তে এসে জানলাম লোকটা সিরিয়াল কিলার। আমার এমন একটা ভাইরাল গানে খুনি, ভাবলেই কষ্ট হচ্ছে।

কিশোর পলাশ একদিক থেকে কিছুটা সন্তোষ প্রকাশও করলেন। বললেন, শুনেছি আমার ভিডিওর সূত্র দিয়ে এই সিরিয়াল কিলারকে ধরা হয়েছে। এটা অবশ্য একদিক থেকে কল্যাণকর কাজ বটে। একজন অপরাধী ধরা পড়লো। ষোল কোটি মানুষের দেশে একটা ভিডিও যদি সাড়ে ৪ কোটি মানুষ দেখে, তাহলে নিশ্চই কিছু মানুষের চোখ অবশ্যই ফাঁকি দেওয়া সম্ভব না। 

বাউল ছদ্মবেশী ‘দুর্ধর্ষ সিরিয়াল কিলার’ হেলালের যত কুকর্ম

 

বিদুৎ হত্যাকাণ্ড

গ্রেপ্তারকৃতকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের কথা উল্লেখ করে র‌্যাব জানায়, ‘সিরিয়াল কিলার হেলাল’ ২১ বছর বয়সে ২০০১ সালে বগুড়া সদরে নিজ এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ২০ বছর বয়সী মাহমুদুল হাসান বিদ্যুৎকে পূর্বপরিকল্পিতভাবে দেশীয় ধারাল অস্ত্র দিয়ে নির্মমভাবে কুপিয়ে হত্যা করে। ওই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ভিকটিমের পরিবার বাদী হয়ে বগুড়া সদর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং-০২(১০)২০০১; ধারা-৩০২-৩৪। ওই মামলায় আদালত তাকে যাবজ্জীবন সাজা প্রদান করেন।

হেলাল ১৯৯৭ সালে বগুড়ার বিষ্ণু হত্যা মামলা এবং ২০০৬ সালে রবিউল হত্যা মামলারও আসামি।

বিষ্ণু হত্যাকাণ্ড

১৯৯৭ সালে বগুড়াতে চাঞ্চল্যকর বিষ্ণু হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়। গ্রেপ্তারকৃত হেলাল ২১ বছর বয়সে ওই হত্যা মামলার এজাহারনামীয় আসামি ছিল। আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এই হত্যাকাণ্ডটি সংঘটিত হয় বলে জানা যায়। এভাবেই সে বিভিন্ন অপারাধমূলক কার্যক্রমের সাথে যুক্ত হতে শুরু করে এবং এলাকায় দুর্ধর্ষ হেলাল নামে পরিচিতি পায়।

রবিউল হত্যা

২০০৬ সালে বগুড়াতে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে রবিউল নামক এক ব্যক্তিকে কতিপয় দুর্বৃত্ত কর্তৃক দেশীয় ধারাল অস্ত্র দিয়ে নির্মমভাবে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত হেলাল উক্ত হত্যাকাণ্ডের একজন চার্জশিটভুক্ত আসামি।

হেলাল থেকে যেভাবে ‘লুলা হেলাল’

গ্রেপ্তারকৃত হেলাল র‌্যাবকে আরও জানায় যে, ২০০০ সালে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এলাকায় দুই পক্ষের সংঘর্ষে প্রতিপক্ষের ধারাল দেশীয় অস্ত্রের আঘাতে তার বাম হাতে মারাত্মক জখম হয় এবং বাম হাত পঙ্গু হয়। এই ঘটনার পর থেকে সে বিভিন্ন নামে যেমন- দুর্ধর্ষ হেলাল, হাত লুলা হেলাল হিসেবে এলাকায় পরিচিতি লাভ করে।

চুরি ও নারী নির্যাতন মামলা

গ্রেপ্তারকৃত হেলাল ২০১০ সালে বগুড়া সদর থানায় দায়েরকৃত একটি চুরির মামলায় ২০১৫ সালে গ্রেপ্তার হয়। একই সাথে ২০০১ সালের বিদ্যুৎ হত্যা মামলার বিচারকার্যও চলমান থাকে। ২০১৫ সালেই ওই চুরির মামলায় সে জামিনে মুক্ত হয় এবং একই দিনে বিদ্যুৎ হত্যা মামলায় আদালত তাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রদান করেন। এ ছাড়াও ২০১১ সালে তার বিরুদ্ধে বগুড়া সদর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা রয়েছে।

মুদি দোকানি থেকে দুর্ধর্ষ সিরিয়াল কিলার

গ্রেপ্তারকৃত হেলাল ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করেছে এবং এলাকায় দোকান ছিল। পরবর্তীতে হত্যাকাণ্ডসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কার্যক্রমের সাথে জড়িয়ে পড়লে এলাকায় তার কুখ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে। তার বিরুদ্ধে ২০১০ সালে দায়েরকৃত চুরির মামলায় ২০১৫ সালে জামিনপ্রাপ্তির দিনে বিদ্যুৎ হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত হলে সে কৌশলে এলাকা ত্যাগ করে এবং ফেরারি জীবনযাপন শুরু করে।

নাম পাল্টে বাউল বেশ ধারণ

তার আসল নাম হেলাল হোসেন হলেও একের পর এক হত্যাকাণ্ড ঘটানো শেষে বাউল ছদ্মবেশ নিয়ে নিজের নাম বদলে সেলিম ফকির বলে পরিচয় দিতে শুরু করে তিনি। ফেরারি জীবনের শুরুর দিকে প্রথমে সে বগুড়া থেকে ট্রেনযোগে ঢাকার কমলাপুর রেলস্টেশনে আসে। পরবর্তীতে কমলাপুর থেকে ট্রেনে করে সে চট্টগ্রামে চলে যায় এবং সেখানকার আমানত শাহ মাজারে ছদ্মবেশ ধারণ করে বেশ কিছুদিন অবস্থান করে। সেখান থেকে ট্রেনযোগে সিলেটের শাহজালাল মাজারে চলে যায়। সিলেটে গিয়ে ছদ্মবেশ ধারণ করে আরও কিছুদিন অবস্থান করে।

‘ভাঙা তরী ছেড়া পাল’ গানের মডেল

জানা গেছে, বিভিন্ন সময়ে সে বাংলাদেশের বিভিন্ন রেলস্টেশন ও মাজারে ছদ্মবেশে অবস্থান করত। সে কিশোরগঞ্জ ভৈরব রেলস্টেশনে নাম-ঠিকানা ও পরিচয় গোপন রেখে সেলিম ফকির নাম ধারণ করে। আনুমানিক ৫ বছর আগে গ্রেপ্তারকৃত হেলাল নারায়ণগঞ্জ রেলস্টেশনে কিশোর পলাশ ওরফে গামছা পলাশের একটি গানের শুটিং চলাকালে রেললাইন এর পাশে বাউল গান গাচ্ছিল। তখন শুটিংয়ের একজন ব্যক্তি তাকে গানের মিউজিক ভিডিওতে অভিনয়ের প্রস্তাব দিলে বহুল জনপ্রিয় “ভাঙা তরী ছেড়া পাল” শিরোনামের গানের বাউল মডেল হিসেবে তাকে দেখা যায়।

৭ বছরের ফেরারি জীবন শেষে রেলস্টেশনে নারীর সাথে ৪ বছরের সংসার

সে প্রায় ৭ বছর যাবৎ বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে ফেরারি জীবনযাপন করছে এবং গত প্রায় ৪ বছর যাবৎ কিশোরগঞ্জের ভৈরব রেলস্টেশনের পাশে এক নারীর সাথে সংসার করে আসছে। বিভিন্ন রেলস্টেশনে সে বাউল গান গেয়ে মানুষের কাছ থেকে সাহায্য নিয়ে জীবিকা নির্বাহ করত বলে জানিয়েছে র‌্যাব। তবে ফেরারি জীবনের আগে তার প্রথম এক স্ত্রী ছিল, ওই সংসারে তার এক ছেলে রয়েছে। বাউল ছদ্মবেশ নেওয়া পর হেলাল প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে আর যোগাযোগ রাখেননি বলে জানা গেছে।

Bootstrap Image Preview