Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ০৫ বুধবার, অক্টোবার ২০২২ | ২০ আশ্বিন ১৪২৯ | ঢাকা, ২৫ °সে

ভাইকে ফোন করে বলে, ‘বাড়িওয়ালার মেয়েকে মেরে ফেলেছি’

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ২১ অক্টোবর ২০১৮, ০৯:৩০ PM
আপডেট: ২১ অক্টোবর ২০১৮, ০৯:৩০ PM

bdmorning Image Preview
সংগৃহীত ছবি


নারায়ণগঞ্জের ৩ বছর বয়সী শিশু উম্মে তাবাসসুম জুঁইকে শ্বাসরোধে ও ইনজেকশন পুশ করে হত্যা করেছে নিজ বাড়ির ভাড়াটিয়ারা। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতার শাহজালাল ও আশ্রাফুল হত্যাকাণ্ডের ঘটনা স্বীকার করেছে।

রবিবার দুপুরে কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারী উপজেলার দক্ষিণ দলডাঙ্গা এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা দক্ষিণ দলডাঙ্গা এলাকার সমেদ আলীর ছেলে শাহজালাল (১৮) ও জহর আলীর ছেলে আশ্রাফুল (১৯)।

রূপগঞ্জ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুজ্জামান মনির বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতার শাহজালাল ও আশ্রাফুল পুলিশকে জানায় রূপগঞ্জ উপজেলার টেকপাড়া এলাকার আনোয়ার হোসেনের বাসা ভাড়া নিয়ে থাকত তারা। অনেকদিন ধরে তাদের পরিকল্পনা ছিল বাড়িওয়ালা আনোয়ার হোসেনের ৩ বছর বয়সী মেয়ে উম্মে তাবাসসুম জুঁইকে অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবি করবে।

পরিকল্পনা অনুযায়ী গত বৃহস্পতিবার দুপুরে খেলাধুলা করা অবস্থায় জুঁইকে অপহরণের পর আরেক ভাড়া বাসায় নিয়ে মুখে স্কচটেপ লাগিয়ে হাত-পা বেঁধে রাখে তারা। এ সময় জুঁই চিৎকারের চেষ্টা করলে মুখে পলিথিন দিয়ে চাপ দিয়ে ধরে অপহরণকারীরা। এতে জুঁই অজ্ঞান হয়ে পড়ে। কিছুক্ষণ পর জ্ঞান ফিরলে জুঁইয়ের শরীরে অজ্ঞানের ইনজেকশন পুশ করে তারা। এরপরই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে জুঁই।

এর পর জুঁইয়ের পরিবারের কাছে মোবাইলে ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে শাহজালাল ও আশ্রাফুল। মুক্তিপণের টাকা অপহরণের ঘটনা পুলিশকে জানালে জুঁইকে মেরে ফেলা হবে বলেও হুমকি দেয়া হয়।

বৃহস্পতিবার রাত পর্যন্ত জুঁইয়ের পরিবারের সঙ্গে তাদের ৫ লাখ টাকায় দফারফা হয়। কিন্তু মুক্তিপণের টাকা না পেয়ে এবং কোনো উপায় না দেখে রাতেই হাত-পা বাঁধা অবস্থায় বস্তাবন্দি করে ওই বাড়ির পেছনে জুঁইয়ের মরদেহ ফেলে পালিয়ে যায় শাহজালাল ও আশ্রাফুল।

ওসি আরও বলেন, পালিয়ে যাওয়ার সময় শাহজালাল তার ভাই খৈবর আলীকে হত্যাকাণ্ডের ঘটনা জানিয়ে বলেন, আমি বাড়িওয়ালার মেয়েকে মেরে ফেলেছি ভাই। পরে পুলিশ সন্দেহভাজন হিসেবে শনিবার খৈবর আলীকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে হত্যাকাণ্ডের আসল রহস্য বেরিয়ে আসে।

পরে খৈবর আলীকে সঙ্গে নিয়ে ভুরুঙ্গামারী উপজেলার দক্ষিণ দলডাঙ্গা এলাকা থেকে শাহজালাল ও আশ্রাফুলকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পর জিজ্ঞাসাবাদে এসব তথ্য জানায় তারা।

শুক্রবার সকালে উপজেলার ভুলতা ইউনিয়নের টেকপাড়া এলাকার ওই শিশুর বাড়ির পেছন থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় জুঁইয়ের বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় জুঁইয়ের বাবা আনোয়ার হোসেন বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।

Bootstrap Image Preview