Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ০৯ বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২০২৩ | ২৭ মাঘ ১৪২৯ | ঢাকা, ২৫ °সে

ঘূর্ণিঝড় তিতলি: রবিবার পর্যন্ত বৃষ্টি ঝরবে

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২ অক্টোবর ২০১৮, ০৫:৩১ PM
আপডেট: ১২ অক্টোবর ২০১৮, ০৫:৩১ PM

bdmorning Image Preview
ছবি: আবু সুফিয়ান জুয়েল


বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলির প্রভাবে বৃষ্টি ঝরছে বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে। ঘূর্ণিঝড় বর্তমানে গভীর নিম্নচাপ আকারে ভারতের উড়িষ্যা ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে।

গত সোমবার থেকে ঘূর্ণিঝড় তিতলির প্রভাবে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে হালকা থেকে মাঝারি ও উপকূলীয় এলাকায় ভারি বর্ষণ হয়ে চলেছে। গত আগামী রবিবার পর্যন্ত এ আবহাওয়া অব্যাহত থাকতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

এদিকে আজ শুক্রবার ভোর থেকে রাজধানীতে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। এছাড়া দেশের আরও অনেক জেলাতেও বৃষ্টি পড়ার খবর পাওয়া গেছে। ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’র প্রভাবে উপকূলীয় জেলা টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপের ভাঙা বেড়িবাঁধ দিয়ে পানি ঢুকে বেশকিছু ঘরবাড়ি প্লাবিত ও বসতঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। কুতুবদিয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বেড়িবাঁধ, আমন ফসলি ও শীতকালীন সবজির আবাদ।

রবিবারের পর থেকে আবহাওয়া স্বাভাবিক হয়ে আসবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। আজ সকাল ৬টা থেকে পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় টেকনাফে দেশের সর্বোচ্চ ১০৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

শুক্রবার ঢাকা, ময়মনসিংহ, খুলনা, বরিশাল, রাজশাহী চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় অস্থায়ী দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্র বৃষ্টি হওয়ার পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। সেইসঙ্গে খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের কোথাও কোথাও মাঝারি থেকে অতি ভারী বর্ষণ হওয়ার সম্ভাবনাও কথা বলা হয়েছিল।

শুক্রবার সকালে আবহাওয়া অধিদপ্তরের ওয়েবসাইট বলছে, ভারতের ওডিশা এবং তৎসংলগ উপকূলীয় এলাকায় অবস্থারত ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’ সামান্য উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর এবং দুর্বল হয়ে একই এলাকায় গভীর নিম্মচাপে পরিণত হয়েছে। শুক্রবার সকাল ছয়টায় এটি ভারতের ওডিশা ও তৎসংলগ্ন উপকূলীয় এলাকায় অবস্থান করছিল। এটি আরও উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে ক্রমশঃ দুর্বল হতে পারে।

অপরদিকে গভীর নিম্নচাপের প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর এলাকায় বায়ুচাপের তারতম্যের আধিক্য বিরাজ করছে। উত্তর বঙ্গোপসাগর ও বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় গভীর সঞ্চালণশীল মেঘমালার সৃষ্টি হয়েছে।

আবহাওয়া কার্যালয় জানায়, গভীর নিম্নচাপের প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর এলাকায় বর্তমানে বায়ুচাপের তারতম্য রয়েছে। সাগরের ওই অংশসহ বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় সৃষ্টি হচ্ছে গভীর সঞ্চালনশীল মেঘমালার। এর প্রভাবে ওই সব এলাকা ও সমুদ্রবন্দরগুলোর ওপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া কার্যালয়।

আগামী দু-একদিন ঢাকা, চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ, রংপুর, রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় অস্থায়ী দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরের উপপরিচালক মোছা. আয়েশা খাতুন বলেন, ‘আগামী ২৪ ঘণ্টার যে পূর্বাভাসে আমরা জানিয়েছি, উত্তর বঙ্গোপসাগরে গভীর সঞ্চালনশীল মেঘমালা তৈরি হচ্ছে। তার পরে এখানে প্রেসার গ্রেডিয়েন্ট যেটা, সেটা খুব স্টিফ আছে। এর ফলে অনেক স্থানে বৃষ্টিপাত হবে, মাঝারি থেকে ভারি বৃষ্টিপাতও হতে পারে। এবং সেইসঙ্গে কিছু জায়গায় হয়তো অতি ভারি বর্ষণও হতে পারে, বিশেষত উপকূলীয় অঞ্চলে।’

আয়েশা খাতুন আরও বলেন, এই যে বৃষ্টিপাত হচ্ছে, এই বৃষ্টিপাতের যে অব্যাহত ধারা, সেটা আগামী রবিবার, অর্থাৎ ১৪ তারিখ পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে।

সারাদেশে আজকের আবহাওয়া পুর্বাবাসে বলা হয়েছে, গভীর নিম্নচাপের প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর এলাকায় বায়ুচাপের তারতম্যের আধিক্য বিরাজ করছে। উত্তর বঙ্গোপসাগর ও বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় গভীর সঞ্চালণশীল মেঘমালার সৃষ্টি হয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগর, বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা এবং সমুদ্র বন্দরসমূহের উপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরসমূহকে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সকল মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে।

Bootstrap Image Preview