Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২২ মঙ্গলবার, জুন ২০২১ | ৭ আষাঢ় ১৪২৮ | ঢাকা, ২৫ °সে

শফীপন্থীদের বিশাল চমক: হেফাজতের পাল্টা নেতৃত্বে ৩১৩ সদস্য

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯ জুন ২০২১, ০২:২৬ PM
আপডেট: ০৯ জুন ২০২১, ০২:২৬ PM

bdmorning Image Preview


হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের নতুন কমিটি ঘোষণার পর প্রতিষ্ঠাতা আমির প্রয়াত শাহ আহমদ শফীর অনুসারীরা পাল্টা কমিটি গঠনের তোড়জোড় শুরু করেছেন। এরই মধ্যে ৩১৩ সদস্যের কমিটির খসড়াও প্রস্তুত করা হয়েছে। এখন চলছে কমিটি চূড়ান্ত করার কাজ। সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী সপ্তাহে পাল্টা এই কমিটি ঘোষণা করা হতে পারে বলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান। একই সঙ্গে ১৫ থেকে ৩১ সদস্যের কেন্দ্রীয় মজলিসে শুরা কমিটি এবং একই আকারে কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা কমিটি গঠনের প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে। হেফাজতের প্রতিষ্ঠাকালীন কমিটির যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মঈনুদ্দিন রুহি বলেছেন, ‘কমিটিতে একটি চমক থাকতে পারে।’

এদিকে আল্লামা হাফেজ জুনাইদ বাবুনগরীকে আমির ও নূরুল ইসলাম জিহাদীকে মহাসচিব করে ঘোষিত ৩৩ সদস্যের কেন্দ্রীয় কমিটির পরিধি আরো বাড়তে পারে বলে ওই কমিটির নেতারা জানান। তবে ধাপে ধাপে কমিটির পরিসর বাড়বে।

হেফাজতের পাল্টা কমিটিতে শীর্ষ নেতৃত্বে কারা আসতে পারেন তা নিয়ে শুরু হয়েছে নানা আলোচনা। হেফাজতের সাবেক নেতারা ৩১৩ সদস্যের কমিটির খসড়া তালিকায় কাদের কোন পদে রাখা হয়েছে তা জানাতে অপারগতা প্রকাশ করলেও নাম শোনা যাচ্ছে হেফাজতের প্রথম কমিটির (প্রতিষ্ঠাকালীন) নায়েবে আমির মুফতি আবদুল হালিম বোখারী, আল্লামা সুলতান জউক নদভী, বেফাকের চেয়ারম্যান আল্লামা মাহমুদুল হাসান, সাবেক নায়েবে আমির আবদুল হামিদ মধুপুরী, আল্লামা রেজাউল করিম পীর সাহেব চরমোনাই, আতাউল্লাহ হাফেজ্জী, সাবেক যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মঈনুদ্দিন রুহি, সাবেক সহকারী মহাসচিব ওবাইদুর রহমান খান নদভী, মাওলানা সাজেদুর রহমান, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সাবেক পরিচালক ড. মোসতাক আহমদ, মাওলানা রুহুল আমিন খান, মাওলানা রুহুল আমিন খান উজানি, মুফতি মিযানুর রহমান সাঈদ, মাওলানা হাফিজুর রহমান সিদ্দিকী, ফয়জুল করিম পীর সাহেব চরমোনাই প্রমুখ। এর মধ্যে বেশির ভাগ নেতাই হেফাজতের প্রতিষ্ঠাকালীন প্রথম কেন্দ্রীয় কমিটিতে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে ছিলেন। গত সোমবার ঘোষিত কেন্দ্রীয় নতুন কমিটিতে এর মধ্যে নায়েবে আমির পদ পেয়েছেন আতাউল্লাহ হাফেজ্জী।

এই নেতাদের মধ্য থেকে আমির, মহাসচিব নির্বাচিত হতে পারেন বলে আলোচনা চলছে। নেতৃত্বে আনার বিষয়ে এর বাইরেও দু-একজনের সঙ্গে চলছে আলোচনা। প্রয়াত আমির আহমদ শফীর বড় ছেলে মাওলানা ইউছুফ মাদানী ও ছোট ছেলে মাওলানা আনাছ মাদানীও গুরুত্বপূর্ণ পদে আসতে পারেন। এর মধ্যে আনাছ মাদানী হেফাজতের প্রথম কমিটিতে প্রচার সম্পাদক ছিলেন। আহমদ শফী মারা যাওয়ার পর ২০১ সদস্যের কমিটি, পরে পাঁচ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি এবং সর্বশেষ গত সোমবার ৩৩ সদসের কেন্দ্রীয় কমিটি হলেও এসব কমিটিতে আনাছ মাদানীসহ শফীপন্থীদের বাদ দেওয়া হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। তবে ৩৩ সদস্যের কমিটিতে ইউছুফ মাদানীকে সহকারী মহাসচিব পদে রাখা হলেও তিনি ওই পদ প্রত্যাখ্যান করেছেন।

আগামী ১৭ জুন রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে প্রয়াত আমির আহমদ শফীর অনুসারীরা আলোচনাসভার আয়োজন করেছেন। চলমান সংকট ও উত্তরণ এবং আল্লামা শফীর জীবন, কর্ম ও অবদান শীর্ষক এই আলোচনাসভা ওই দিন সকাল ১০টা থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন ধাপে বিকেল ৫টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। দিনভর এসব সভায় সারা দেশ থেকে তিন শ থেকে চার শ আলেম-ওলামার উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে।

পাল্টা কমিটির বিষয়ে জানতে চাইলে হেফাজতের প্রতিষ্ঠাকালীন কমিটির যুগ্ম মহাসচিব ও মুখপাত্রের দায়িত্ব পালন করা মাওলানা মঈনুদ্দিন রুহি বলেন, ‘আমরা পাল্টা কমিটি কেন করব, বড় হুজুরের (প্রয়াত আমির শফীর ইন্তেকালের এক মাস আগে) অনুমোদিত ১৫১ সদস্যের কেন্দ্রীয় কমিটি সংস্কার করে ঘোষণা করা হবে। তবে বিষয়টি নিয়ে প্রতিষ্ঠাকালীন শুরা কমিটির বেশির ভাগ সদস্য চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন।’

হেফাজতের সাবেক একাধিক নেতা জানান, ২০১০ সালের জানুয়ারিতে হেফাজতের কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন করা হয়েছিল। প্রথম এই কেন্দ্রীয় কমিটি গঠনের ১০ বছর পর গত বছরের ১৩ আগস্ট আরেকটি কমিটি গঠনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। আল্লামা শফী অনুমোদিত ১৫১ সদস্যের এই কমিটিতে হাফেজ জুনাইদ বাবুনগরীকে মহাসচিব করা হয়েছিল। তাঁদের যৌথ স্বাক্ষরে কমিটি হলেও তা ঘোষণা হয়নি। এর মধ্যে গত বছর ১৮ সেপ্টেম্বর ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আমির শাহ আহমদ শফী মারা যান।

অন্য এক নেতা জানান, অপ্রকাশিত যে কমিটি তৎকালীন আমির অনুমোদন দিয়েছেন সেই কমিটিকে সামনে রেখে আরেকটি নতুন কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। বাবুনগরী-জিহাদীর নেতৃত্বাধীন কমিটিতে যাঁরা বাদ পড়েছেন (শফীর অনুসারী) তাঁদের অনেককেই হেফাজতের এই কমিটিতে রাখা হবে। অনেক জেলা থেকে বাদ পড়া আলেম-ওলামাদেরও সম্পৃক্ত করার কাজ চলছে।

এ ব্যাপারে মাওলানা মঈনুদ্দিন রুহি বলেন, ‘আল্লামা শাহ আহমদ শফীর নীতি-আদর্শকে বুকে ধারণ করে আলেম-ওলামাদের সঙ্গে নিয়ে একটি প্ল্যাটফর্ম গঠনের কাজ চলছে। মুসলিম উম্মাহর জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাওয়া সবাইকে সম্পৃক্ত করা হবে। ১৭ জুনের সভায় সর্বসম্মতভাবে যেসব সিদ্ধান্ত হবে সে লক্ষ্যেই আমরা অগ্রসর হব।’

পাল্টা কমিটি গঠনের গুঞ্জনের ব্যাপারে জানতে চাইলে হেফাজতের নবনির্বাচিত সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা মীর ইদরিস বলেন, ‘আশা করি পাল্টা কমিটি করে কেউ ভুল করবে না।’ তিনি বলেন, ‘কেন্দ্রীয় কমিটিতে প্রতি জেলার সভাপতি পদাধিকারবলে সদস্য হবেন। কেন্দ্রীয় কমিটির পরিধি কিছুটা বাড়তে পারে। তবে এ নিয়ে এখনো কোনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি।’

সূত্রঃ কালের কণ্ঠ 

Bootstrap Image Preview