Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ০১ সোমবার, মার্চ ২০২১ | ১৬ ফাল্গুন ১৪২৭ | ঢাকা, ২৫ °সে

রাজ কন্যারে আল্লাহ মন দিছে, হে আমাগো দালান দিছেঃ ঘর পেয়ে আপ্লুত বৃদ্ধ

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৬ জানুয়ারী ২০২১, ১১:০৪ AM
আপডেট: ২৬ জানুয়ারী ২০২১, ১১:০৪ AM

bdmorning Image Preview
ছবিঃ সংগৃহীত


রাজার বেটি শেখের বেটি রাজকন্যা হাসিনারে আল্লা মন দিছে হে আমাগো দালান দিছে। বলতে বলতে কেঁদেই দিলো বয়বৃদ্ধা। আগে রাস্তার পাশে ঝুপড়িতে থাকতাম আর কেউ বললো ওই বন্দরের ভাঙ্গা বিল্ডিংয়ে থাকতাম দুয়ার নেই জালনা নেই ছাগল কুত্তায় হাড়ির ভাত খাইয়া যাইতো ঘর ভাড়া নেওয়ার টাহা পামু কই খাওয়ার টাহা পামু কই? ছোট্ট এক শিশু দৌড়ে এসে বললো স্যার আগে  বই-খাতা জামা কাপড় ভিজ্যা যাইতো এহন ঝর বইন্নায়ও কছিু ওইবো না।

উপহারের ঘরে প্রথম দিনে কেমন কাটছে ছিন্নমূল বাস্তহারা মানুষরে দেখতে এসে দেখা মিললো এ যেন খুশিরবান শিশু বৃদ্ধ সবার মুখে যেন হাসির ফোয়ারা। যাদের একটু বাঁশরে ঘর তৈরির সম্বল নেই তারা পেল পাকা ঘর সাথে এক টুকরা জমিও। এরা সরকার চেনেনা দল চেনেনা। শুধু রাজা আসে রাজা যায় তাই জানে। এমনি চিত্র সরেজমিনে দেখা গেলো বাগরেহাটের মোংলার অদূরে পাকখালি নামক খাস জমিতে। এখানকার সুবিশাল মাঠ যেন পড়ে আছে এই সব ছন্নিমূল মানুষকে বুকে আশ্রয় দিতে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে ঘর ও জায়গা পেয়ে ওরা যেন শিকড় খুঁজে পেয়েছে। শুধু ৫০টি পরিবার নয়, হাজার পরিবার এখানে দাঁড়িয়ে যেন বলতে পারে এ মাটি আমার, দেশ আমার।

সারা দেশের সাথে তাল মিলিয়ে একযোগে বাগেরহাট জেলার ৯টি উপজেলায় ভূমিহীনদের জন্য তিনশো ৩৮টি ঘর নির্মাণ ও হস্তান্তর সম্পন্ন করেছে প্রশাসন। আরো প্রস্তুত হচ্ছে চারশো ৩৩টি। এ যেন গুচ্ছ গুচ্ছ মানুষের স্বপ্ন গুচ্ছ।

আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের আওতায় আশয়নের অধদিকার শেখ হাসিনার উপহার শ্লোগানকে সামনে রেখে বাগেরহাট জেলার ৯টি উপজেলায় আরো ৪শ ৩৩ টি ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে। বাগেরহাট সদর উপজেলায় ৫২টি, মোল্লাহাটে ৩৫ টি, কচুয়ায় ৩০টি, চিতলমারীতে ১৭টি, ফকিরহাটে ৩০টি, মোংলায় ৫০টি, রামপালে ১০টি, মোড়লগঞ্জে ৬টি এবং সিডর খ্যাত এলাকা শরণখোলায় একশো ৯৭টি ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে।আগের তিনশো ৩৮টি জমির দলিলসহ হস্তান্তর করা হয়েছে। বাকিগুলো যথাসময়ে হস্তান্তর করা হবে।

একটু সহানুভুতি যেন কিছু মানুষের সারা জীবনের স্বপ্ন। শত শত মানুষ আজ হাত তুলে দোয়া করছে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার জন্য। একটি পরিবারে পাঁচ সাতজন করে লোক প্রতিঘরে বারো চৌদ্দখানা হাত যেন প্রার্থনা করে সৃষ্টিকর্তার দরবারে। দীর্ঘজীবি হোক এই দোয়ার রব।

Bootstrap Image Preview