Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৮ রবিবার, এপ্রিল ২০২১ | ৫ বৈশাখ ১৪২৮ | ঢাকা, ২৫ °সে

২৭ বছর পর বিএসসির বহরে নতুন জাহাজ ‘বাংলার জয়যাত্রা' 

বশির আলমামুন, চট্টগ্রাম প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০৭ অক্টোবর ২০১৮, ০১:৪৯ PM
আপডেট: ০৭ অক্টোবর ২০১৮, ০১:৪৯ PM

bdmorning Image Preview


বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশনের (বিএসসি) নতুন জাহাজ ‘বাংলার জয়যাত্রা চট্টগ্রাম বন্দরের জলসীমায় এসে পৌঁছেছে। প্রায় ২৭ বছর পর বিএসসির বহরে নতুন করে যুক্ত হলো এ জাহাজ। আধুনিক প্রযুক্তিতে চীনে নির্মিত এ জাহাজটি মধ্যপ্রাচের দেশ আরব আমিরাত থেকে প্রায় ৩৭ হাজার মেট্রিক টন পাথর নিয়ে দীর্ঘ আড়াই মাস পর দেশে ফিরেছে।

এবিষয়ে বিএসসির কর্মকর্তারা বলেন, চীন সরকারের আর্থিক সহায়তায় জিটুজি’র ভিত্তিতে এক হাজার ৮৪৩ কোটি টাকা ব্যয়ে বিএসসির জন্য ৬টি জাহাজ নির্মাণ করা হচ্ছে। এতে চীনের জাহাজ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান চায়না ন্যাশনাল মেশিনারি ইমপোর্ট অ্যান্ড এক্সপোর্ট কর্পোরেশন (সিএমসি) আর্থিক ও কারিগরি সহায়তা করছে। জাহাজগুলো নির্মাণ করা হচ্ছে চীনের জিয়াংজু প্রদেশের ওয়াক্সি শহরে সিএমসির শিপইয়ার্ড জিয়াংজু নিউ ইয়াংজি শিপবিল্ডিং কোম্পানি লিমিটেডে।

জাহাজগুলো নির্মাণে চীন সরকার দিচ্ছে এক হাজার ৪৪৮ কোটি এবং বিএসসি দিচ্ছে ৩৯৫ কোটি টাকা। এই ৬টি জাহাজের মধ্যে ৩টি অয়েল ট্যাংকার ও ৩টি বাল্ক ক্যারিয়ার। প্রতিটির ধারণ ক্ষমতা ৩৯ হাজার টন (ডিডাব্লিউটি)। এক সময় বিএসসিতে জাহাজ ছিল ৩৬টি। বর্তমানে রয়েছে ২টি। নতুন জাহাজ ‘বাংলার জয়যাত্রা’ বহরে যোগ হওয়ায় মোট জাহাজের সংখ্যা দাঁড়ালো তিনটি।

কর্মকর্তারা বলেন, গত ২৪ এপ্রিল চীনের ওই শিপইয়ার্ডে ‘বাংলার জয়যাত্রা’ জাহাজটির লঞ্চিং ও নামকরণ অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। এ সময় নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খানের নেতৃত্বে ৫ সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল সেখানে উপস্থিত ছিলেন। এর পর গত ১৩ জুলাই চীনের জিয়াংজু নিউ ইয়াংজি শিপবিল্ডিং কম্পানি লিমিটেড কর্তৃপক্ষ বিএসসি’র কাছে জাহাজটি হস্তান্তর করে।

নবনির্মিত এই জাহাজটি প্রথমে চীন থেকে পণ্য বোঝাই করে দক্ষিণ কোরিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ভারতের কয়েকটি বন্দরে যায়। এরপর সেখান থেকে কার্গো নিয়ে ওমান, সৌদি আরব এবং আরব আমিরাত ঘুরে গত ২ অক্টোবর বাংলাদেশে আসে। গত শনিবার চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙ্গরে (গভীর সাগরে) অবস্থানরত ‘বাংলার জয়যাত্রা’ জাহাজটি পরিদর্শনে যান নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান ও বিএসসির শীর্ষ কর্মকর্তারা।

বিএসসির কর্মকর্তারা আরো বলেন, জাহাজটি লম্বায় ১৮০ মিটার, প্রস্থে ৪০ মিটার, গভীরতা (ড্রাফট) ৯ মিটার এবং ১৪ থেকে ১৬ নটিক্যাল মাইল গতিতে চলতে সক্ষম। আধুনিক এই জাহাজটিতে রয়েছে ইলেক্ট্রনিক চার্জ সিস্টেম। বিএসসির বহরে এই নতুন জাহাজগুলো যুক্ত হলে ব্যবসা পরিচালনার ক্ষেত্রে বিএসসি আবারো ঘুরে দাঁড়াবে। বিশ্বের বিভিন্ন বন্দরে আবারও দেশের পতাকা নিয়ে বিএসসির জাহাজগুলো বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করবে।

বিএসসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক কমোডর ইয়াহইয়া সৈয়দ বলেন, চীনে নির্মিত ‘বাংলার জয়যাত্রা’ নামের এই নতুন জাহাজ বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশনে নতুন মাত্রা যোগ করবে। অল্প কয়েকদিনের মধ্যে আরো একটি নতুন জাহাজ বিএসসির বহরে যোগ হবে। চীনের জিয়াংজু নিউ ইয়াংজি শিপবিল্ডিং কোম্পানি লিমিটেড কর্তৃপক্ষ ইতিমধে জাহাজটির নির্মাণ কাজ শেষ করেছে। ২০১৩ সালে একনেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই জাহাজগুলো কেনার অনুমতি দেন। 

Bootstrap Image Preview