Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৪ শুক্রবার, আগষ্ট ২০২০ | ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭ | ঢাকা, ২৫ °সে

তারা কেন সংসার ভাঙার খেলায় মেতে ওঠেছেন?

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৯ মে ২০২০, ০৭:৩৯ AM
আপডেট: ১৯ মে ২০২০, ০৭:৩৯ AM

bdmorning Image Preview


মিডিয়াতে খানে পান থেকে চুন খসলেই হইচই পড়ে যায়। অন্যদিকে এখানকার সম্পর্কও অনেকটা কচুপাতার পানির মতো। একটু ছোঁয়াতে সব এলোমেলো হয়ে যায়। আর এ কারণেই হয়ত কদিন পর পরই ঘর বাঁধা আর সংসার ভাঙার খেলায় মেতে ওঠেন তারকারা। মডেল, অভিনেত্রী আনিকা কবির শখের দ্বিতীয় বিয়ের রেশ না কাটতেই মডেল অভিনেতা-জিয়াউল ফারুক অপূর্বের দ্বিতীয় বিচ্ছেদের খবর আসে। ভেঙে যায় অপূর্ব ও নাজিয়া হাসানের দীর্ঘ ৯ বছরের সংসার। বিচ্ছেদের বিষয়টি নিশ্চিত করে নাজিয়া তার ফেসবুকে লিখেছেন, 'দুর্ভাগ্যক্রমে আমরা অসংখ্য কারণে একসঙ্গে থাকছি না। তবে আমি তার (অপূর্ব) জন্য সুখী ও সমৃদ্ধ জীবন কামনা করছি। তিনি আমাকে আমার সেরা উপহার দিয়েছেন, যেটা আমার পুত্র আয়াশ।' পর্যায়ক্রমে অপূর্বও বিচ্ছেদের বিষয়টি স্বীকার করে নেন। যদিও বেশকিছু নামকাওয়াস্তে অনলাইন নিউজ পোর্টাল এই বিচ্ছেদের জন্য অভিনেত্রী তানজিন তিশাকে দায়ী করেন। তাদের বক্তব্য, তানজিন তিশার সঙ্গে অপূর্বর ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক থাকার কারণে অপূর্ব নাজিয়ার ৯ বছরের সংসার ভেঙেছে। এ বিষয়ে নাজিয়ার কোনো বক্তব্য পাওয়া না গেলেও তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অপূর্ব ও তানজিন তিশা।

রোববার রাতে ফেসবুকে অপূর্ব লিখেছেন, 'ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে গসিপ করা এবং তির্যক, মিথ্যা বানোয়াট মন্তব্য করে তাদের কষ্ট বাড়িয়ে দেওয়ার মতো খারাপ কাজগুলো থেকে সবাই বিরত থাকবেন। রসালো কোনো গল্প তৈরি করে সংবাদ করার চেষ্টা করবেন না, পিস্নজ।' অপূর্ব সেখানে এও লিখেছেন, 'অত্যন্ত সম্মানের সঙ্গে জানাচ্ছি, আমি এবং অদিতি শান্তিপূর্ণ সমাধানের মধ্য দিয়ে আমাদের সম্পর্কের আইনগত ইতি টেনেছি। কোনো সংবাদমাধ্যম এই ব্যাপারে তৃতীয় কাউকে জড়িয়ে কোনো ধরনের ভুল সংবাদ প্রকাশ করলে আমি তাদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আইনগত ব্যবস্থা নেব। অলরেডি প্রকাশিত কিছু সংবাদের লিংক আমি সংগ্রহ করেছি। আমি অদিতিকে সম্মান করি এবং আজীবন করব। সুতরাং কোনোভাবেই অদিতিকে অসম্মান করে তার পাশে অন্য কারও নাম আমি সহ্য করব না। ভুলে যাবেন না, অদিতি এখন আইনগতভাবে আমার স্ত্রী না থাকলেও সে আমার সন্তানের মা।'

এর পরপরই অভিনেত্রী তানজিন তিশা ফেসবুকে ক্ষোভ ঝাড়েন। তিনি লিখেন, আমি সাধারণত গুজবে সাড়া দিই না। তবে আজ আমি অনুভব করছি যে, কয়েকটি অনলাইন সংবাদপত্রে প্রকাশিত চলমান গসিপ বন্ধ করা উচিত। দয়া করে আমার নামটি ব্যবহার করবেন না, এতে আমার সহশিল্পী এবং তার পরিবারের চলমান পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে। আমি সত্যিকার অর্থে বিশ্বাস করি যে, কেউ আমার ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য ইচ্ছাকৃতভাবে এসব করছে।'

ভক্ত এবং শুভাকাঙ্ক্ষীদের উদ্দেশে তানজিন তিশা লিখেছেন, 'দয়া করে এসব মিথ্যা খবর বিশ্বাস করবেন না।' সাংবাদিকদের অনুরোধ করে তিশা লিখেছেন, এই ধরনের ভিত্তিহীন গল্পে তার নাম যেন উলেস্নখ না করা হয়। যারা এই কাজটি চালিয়ে যাবেন, তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।'

উল্লেখ্য ২০১৭ তানজিন তিশার সঙ্গে  কণ্ঠশিল্পী হাবিব ওয়াহিদের প্রেমের সম্পর্কটি সবার সামনে আসে।  অনেক দিন ধরেই হাবিব আর তিশা প্রেম করে আসছিলেন। হাবিবের সাবেক স্ত্রী রেহান তার সঙ্গে হাবিবের সংসার ভাঙ্গার বিষয়ে তিশাকেই দায়ী করে আসছিলেন।

যদিও প্রথম দিকে বলেছেন তাদের ব্যক্তিগত কারণেই মিউচুয়াল ডিভোর্স হয়েছে তাদের। কিন্তু তিশার সঙ্গে সম্পর্ক জানাজানি হওয়ার পর তিশার দিকেই আঙ্গুল তুলেছেন রেহান। একটি মিউজিক ভিডিওতে কাজ করতে গিয়ে কাছাকাছি আসেন হাবিব ও তিশা। এরপর প্রেমে জড়ান একে অপরের। তবে বেশি দিন সেই প্রেম টেকেনি।

সম্পর্ক ভাঙ্গার বিষয়ে তিশা তখন বলেন,'তিন মাস ধরে আমাদের সম্পর্ক নেই। গণমাধ্যমে বলবো বলবো করে আর বলা হয়নি। অনেক দিন আগে সম্পর্ক শেষ হলেও এখনো প্রতি মুহূর্ত মিথ্যার সঙ্গে বসবাস করছি আমি। সবাই ভাবছে হাবিবের সঙ্গে এখনও সম্পর্ক রয়েছে। বন্ধু, পরিবার, আত্মীয়স্বজন, সহশিল্পী, এমনকি ভক্তদের কাছেও হাবিবের প্রসঙ্গ নিয়ে আমার দিকে আঙ্গুল তুলছে। বিষয়টি নিয়ে বেশ বিব্রত আমি। তাই বিষয়টি এখন পরিষ্কার করছি।

হাবিব ও রেহানের সংসার ভাঙ্গার বিষয়ে তিশাকেই দায়ি করেছিলেন রেহান। এ বিষয়ে তিশা বলেন, ‘আমার আর হাবিবের সম্পর্ক নিয়ে শুরু থেকেই রেহান ফেসবুক আর মোবাইল ম্যাসেজে নানা মন্তব্য করেছেন। রেহান বলেছেন, আমার জন্য নাকি তাদের সংসার ভেঙে গেছে। এটা মিথ্যে কথা। আমাদের তখন সম্পর্ক ছিল। তাই হাবিবের মুখে দিকে তাকিয়ে সব কিছু এড়িয়ে গিয়েছি।

হাবিবের সঙ্গে ছাড়াছাড়ির পর দীর্ঘদিন তিশা সিঙ্গেল জীবন কাটিয়েছেন। তবে সেই সিঙ্গেল জীবনের অবসান ঘটিয়ে নিশোর সঙ্গে প্রেম করছেন তিশা। এমনই গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে বেশ কিছুদিন ধরে নাটক পাড়ায়।

এদিকে তিশা ও নিশোকে নিয়ে যখন এমন গুঞ্জন চারদিকে তখন তারা অবস্থান করছিলেন অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে। সিডনিতে যাওয়ার পর তাদের প্রেমের গুঞ্জন আরও চাউর হয়ে উঠে। শুটিংয়ের বাইরেও নিশো ও তিশাকে একান্তে সময় কাটাতে দেখা গেছে বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।

এদিকে রোববার দুপুরে অদিতি তার ফেসবুকের রিলেশন স্ট্যাটাসে লেখেন, 'ডিভোর্সড'। এর কয়েক ঘণ্টা পর স্ট্যাটাসে লেখেন, 'আমাকে ভাবি বলা সবাই বন্ধ করুন।' এরপর বিচ্ছেদের খবরটি বিভিন্ন অনলাইন পোর্টালে প্রকাশিত হয়। পরে তা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িড়ে পড়ে। আগে থেকে বিচ্ছেদ নিয়ে কানাঘুষা থাকলে বিষয়টি নিয়ে কোনো পক্ষ মুখ খোলেননি এত দিন। গত রোববারে অদিতির স্ট্যাটাসের পর সব পরিষ্কার হয়ে গেল। এ বিষয়ে তিনি বলেন, 'সত্যি কথা কি, শুধু আমি একা না, দুজনই খুব চেষ্টা করেছি একসঙ্গে থাকতে। কিন্তু হলো না। একটা সময় বুঝলাম দুজন আলাদা হয়ে গেলে আমাদের মধ্যে সুসম্পর্কটা টিকে থাকবে, দুজনের সম্মানও বজায় থাকবে। এতে আমাদের সন্তান আয়াশও ভালো থাকবে। কারণ মনোমালিন্য নিয়ে সংসার করলে আমাদের সন্তানের জন্য খারাপ হতো।'

২০১১ সালের ২১ ডিসেম্বর নাজিয়া হাসান অদিতির সঙ্গে দ্বিতীয় সংসার জীবন শুরু করেন অপূর্ব। তাদের একমাত্র সন্তান জায়ান ফারুক আয়াশ। এর আগে অপূর্ব ২০১০ সালের ১৮ আগস্ট ভালোবেসে বিয়ে করে মডেল-অভিনেত্রী সাদিয়া জাহান প্রভাকে। ২০১১ সালের ২১ ফেব্রম্নয়ারি প্রভার সঙ্গে অপূর্বর বিবাহ বিচ্ছেদ হয়। অপরদিকে নাজিয়ার একটি বুটিক শপ আছে। পাশাপাশি তিনি চিত্রনাট্য লিখেন। তার চিত্রনাট্যে 'রোদ্র আসবে বলে' নামের একটি নাটক এবার ঈদে প্রচারিত হওয়ার কথা রয়েছে।

Bootstrap Image Preview