Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২৩ রবিবার, ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১০ ফাল্গুন ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

বিয়ের ২৪ ঘণ্টায় পুরুষাঙ্গ হারালেন বর

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৩ জানুয়ারী ২০২০, ০৯:১৩ PM
আপডেট: ২৩ জানুয়ারী ২০২০, ০৯:১৩ PM

bdmorning Image Preview
সংগৃহীত


নীলফামারীর সৈয়দপুরে এক নববিবাহিত যুবকের পুরুষাঙ্গের অগ্রভাগ কর্তন করা হয়েছে। তার নাম নুর আলম সবুজ (২৫)। তাকে বুধবার দিবাগত রাতে উপজেলার কামারপুকুর ইউনিয়নের ধলাগাছ পশ্চিমপাড়ার তার বাড়ি পাশের পঁচানালার পাড় এলাকা থেকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

বর্তমানে ওই যুবক রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তার অবস্থা আশঙ্কামুক্ত।

সৈয়দপুর উপজেলার কামারপুকুর ইউনিয়নের ধলাগাছ পশ্চিমপাড়ার এলাকার মোহাম্মদ আলীর ছেলে নুর আলম সবুজ। তিনি ময়মনসিংহ ক্যাডেট কলেজের জুনিয়র কেয়ারটেকার হিসেবে কর্মরত। সবুজ গত ২১ জানুয়ারি একই ইউনিয়নের কামারাপুকুর আইসঢাল হাজীপাড়ার মো. রেজাউল করিমের কলেজ পড়ুয়া মেয়ে রেজভী এলায়েজ জান্নাতিকে ১৮ লাখ টাকা দেনমোহরে বিয়ে করেন। ওই বিয়েতে যুবকটির পরিবারের সম্মতি ছিল না। কিন্তু মেয়েটির সাথে দীর্ঘদিনের প্রেমের সম্পর্ক থাকায় অভিভাবকদের অসম্মতিতেই বিয়ে করেন তিনি। এসময় সবুজের সাথে তার বন্ধু অপু ও কালা উপস্থিত ছিল।

ঘটনার দিন বুধবার রাত আনুমানিক ১১টার দিকে শ্বশুর বাড়ি থেকে খাওয়া দাওয়া শেষে বের হয়ে আসেন সবুজ। এ সময় সঙ্গে তার দুই বন্ধু ছিল। এরপর সাড়ে ১২টার দিকে স্থানীয়দের মাধমে খবর পেয়ে তাদের বাড়ি সংলগ্ন পঁচানালার পাড় থেকে তাকে অজ্ঞান অবস্থায় উদ্ধার করেন সৈয়দপুর থানা পুলিশ।

প্রথমে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে নেওয়া হয়। এ সময় হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে পর্যবেক্ষণ করে উপস্থিত পুলিশ ও পরিবারের সদস্যদের জানান তার পুরুষাঙ্গের অগ্রভাগ কর্তন করা হয়েছে। এতে তার শরীর থেকে প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়। তার শারীরিক অবস্থা গুরুতর হওয়ায় হাসপাতালের কর্তব্যরত ওই চিকিৎসক দ্রুত সবুজকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। তবে কারা, কি কারণে পুরুষাঙ্গ কর্তনের পর তাকে বাড়ির কাছে ফেলে রেখে যায় তা জানা যায়নি।

এদিকে, আর তার চিকিৎসা নিয়ে রংপুরে অবস্থান করায় তার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গেও কথা বলা সম্ভব হয়নি। তবে ঘটনাটি নারীঘটিক কারণে ঘটেছে বলে অনেকেই ধারণা করছেন।

আর ঘটনার কারণ উদ্ঘাটনে নববধূ রিজভী এলায়েজ জান্নাতি ও তার মা সৈয়দপুর উপজেলার ১ নম্বর কামারপুকুর ইউনিয়নের ৭, ৮ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত নারী সদস্য মোছা. সেলিনা বেগমকে বৃহস্পতিবার সৈয়দপুর থানায় এনে ঘটনার বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এ বিষয়ে তারাও ঘটনার বিষয়ে কোনো কিছুই বলতে পারছেন না।

সৈয়দপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবুল হাসনাত খান বলেন, এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি। তবে আহত যুবকের স্ত্রী ও শাশুড়িকে থানায় আনা হয়েছিল। জিজ্ঞাসাবাদ করে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

Bootstrap Image Preview