Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২৮ শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১৬ ফাল্গুন ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

পুরো রাস্তার যান চলাচল আটকে হাসপাতালে নেওয়া হয় শাবানা আজমিকে

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৯ জানুয়ারী ২০২০, ০৬:৩০ PM
আপডেট: ১৯ জানুয়ারী ২০২০, ০৬:৩০ PM

bdmorning Image Preview
সংগৃহীত


মুম্বাই থেকে পুনেগামী রাস্তায় গাড়ি দুর্ঘটনায় গতকাল শনিবার দুপুরে গুরুতর আহত হন শাবানা আজমি। এতে তার মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হয়েছে। দুর্ঘটনার পরে প্রথমে তাকে কাছের নবি মুম্বাইয়ের এমজিএম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে রাতে অন্ধেরীর কোকিলাবেন ধীরুভাই আম্বানি হাসপাতালে নেওয়া হয়।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের অনলাইন সংস্করণগুলোর খবরে বলা হয়েছে, শাবানা আজমি নাক ও মাথার পেছনে আঘাত পেয়েছেন। দুই ঘণ্টা পরও মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ বন্ধ না হওয়ায় তাকে অন্য হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকেরা। এমন পরিস্থিতিতে ৬৯ বছরের এ অভিনেত্রী ও সমাজকর্মীকে অন্য হাসপাতালে নেওয়ার জন্য পুরো রাস্তার যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হয়। মুম্বাই পুলিশের তৎপরতায় রাস্তা আটকে অত্যন্ত দ্রুততার সঙ্গে অভিনেত্রীকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

আজ রোববার দুপুরে ধীরুভাই আম্বানি হাসপাতালের প্রধান নির্বাহী জানিয়েছেন, শাবানা আজমির অবস্থা স্থিতিশীল। উনি পর্যবেক্ষণে রয়েছেন। সেখানে তাকে দেখতে সস্ত্রীক আসেন অনিল আম্বানি, ফারহান আখতার ও জোয়া আখতার, অনিল কাপুরসহ অনেকে।

গতকাল দুর্ঘটনার খবর ছড়িয়ে পড়তে ভারতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলো শাবানা আজমিময় হয়ে যায়। অভিনেত্রীর এমন দুর্ঘটনার পর রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব থেকে অভিনেতা-অভিনেত্রী-গায়ক-গায়িকা তার দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছেন।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও শাবানা আজমির দ্রুত সুস্থতা কামনা করে টুইট করেছেন। টুইটে তিনি লিখেছেন, ‘গাড়ি দুর্ঘটনায় শাবানা আজমির আহত হওয়ার খবর শুনে আমি মর্মাহত। ওনার দ্রুত আরোগ্য কামনা করি।’

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শাবানা আজমির দুর্ঘটনার খবর পাওয়ামাত্রই টুইট করে বলেন, ‘এই মাত্র খবরটা পেলাম! শাবানাজি দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠুন, এটাই চাই!’

সংগীতশিল্পী লতা মঙ্গেশকর লিখেছেন, ‘শুনে খুব খারাপ লাগছে। চাই শাবানা যাতে খুবই দ্রুত সুস্থ হয়ে ওঠেন!’

দুর্ঘটনাস্থলে আহত শাবানার ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট না করার অনুরোধ করেছেন বরুণ ধাওয়ান, শ্রদ্ধা কাপুর।

বরুণ ধাওয়ান টুইটারে লেখেন, ‘সবার কাছে আবেদন, কেউ দুর্ঘটনায় আহত হলে সেই ছবি ছড়াবেন না। তাদের পরিবার-পরিজনের কাছে তা অত্যন্ত বেদনাদায়ক।’

Bootstrap Image Preview