Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২৫ বুধবার, নভেম্বার ২০২০ | ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ | ঢাকা, ২৫ °সে

নতুন আইন, ভুটান ঢুকলে বাংলাদেশিদের একদিনেই দিতে হবে ৯০০০ টাকা!

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ২১ নভেম্বর ২০১৯, ১০:৪৪ PM
আপডেট: ২১ নভেম্বর ২০১৯, ১০:৪৪ PM

bdmorning Image Preview


পাহাড়ঘেরা প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর ভুটান ভ্রমণে এতদিন খুব একটা খরচ লাগতো না বাংলাদেশসহ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার কয়েকটি দেশের জন্য। এসব দেশের পর্যটকদের জন্য একপ্রকার উন্মুক্তই ছিল ভুটানের দরজা। লাগতো কোনো ভিসা ফি, কোনোমতে দেশটিতে পৌঁছালেই পাওয়া যেতো অন-অ্যারাইভাল ভিসা, যতদিন খুশি থাকা যেতো, এর জন্য অতিরিক্ত কোনো টাকা-পয়সা দেওয়া লাগতো না।

তবে, শেষ হতে যাচ্ছে সেই সুখ! বিশ্বের অন্য দেশগুলোর মতো বাংলাদেশ, ভারত, মালদ্বীপের পর্যটকদের ওপরও বিভিন্ন ধরনের বিধি-নিষেধ ও ফি বসানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভুটান সরকার। এ বিষয়ে প্রস্তাবনার একটি খসড়া চূড়ান্ত করেছে ট্যুরিজম কাউন্সিল অব ভুটান (টিসিবি)। আগামী মাসেই সেটি দেশটির পার্লামেন্টে তোলার কথা রয়েছে।

সম্প্রতি ভারতীয় সংবাদমাধ্যম দ্য হিন্দু’র এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

জানা যাচ্ছে, ২০২০ সালের জানুয়ারি থেকে এসব স্থানে টিকিটের দাম বেড়ে যাবে। ট্যুরিজম কাউন্সিল অব ভুটান (টিসিবি) এই ঘোষণা দিয়েছে। তবে এর নির্দিষ্ট কোনও কারণ জানায়নি সংস্থাটি।

ট্যুরিজম কাউন্সিল অব ভুটানের মহাপরিচালক দর্জি ধরাধুল জানান, সাময়িকভাবে প্রবেশমূল্য বাড়ানো হচ্ছে। তিনি উল্লেখ করেন, পর্যটক সমাগম নিয়ন্ত্রণ ও এই খাতের উন্নয়নের লক্ষ্যে প্রবেশমূল্য বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

জানা গেছে, দেশটির উপত্যকা শহর পারোতে অবস্থিত আশ্রম টাইগার’স নেস্টের টিকিটের দাম ৭ দশমিক ১৪ ডলার থেকে বেড়ে হবে ১৪ দশমিক ২৫ ডলার। এছাড়া থিম্পুর দুর্গ চিচো-জঙ, বৌদ্ধস্তূপ মেমোরিয়াল চোরটেনসহ অন্যান্য পর্যটন স্পটের প্রবেশমূল্য ৪ দশমিক ২৮ ডলার থেকে বাড়িয়ে করা হচ্ছে ৭ দশমিক ১৪ ডলার। শিক্ষার্থীদের জন্য অবশ্য ৫০ শতাংশ ছাড় থাকবে।

কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশ, ভারত ও মালদ্বীপের আঞ্চলিক পর্যটকদের ভিড় লেগেই থাকে ভুটানে। ধারণা করা হচ্ছে, ঐতিহাসিক স্থানে তাদের উপস্থিতি কমাতেই টিকিটের দাম বাড়ছে। টিসিবির আশা, পর্যটনবান্ধব বিভিন্ন সুবিধা বাড়াতে এই উদ্যোগ কাজে আসবে।

২০১৮ সালে মোট ২ লাখ ৭৪ হাজার পর্যটক ভুটান ভ্রমণ করেছেন। এর মধ্যে দুই লাখই এ উপমহাদেশের, যার মধ্যে আবার ১ লাখ ৮০ হাজার ছিল সীমান্তঘেঁষা দেশ ভারত থেকে।

জানা যায়, ভুটান ভ্রমণের জন্য অন্য দেশের পর্যটকদের প্রতিদিন ২৫০ মার্কিন ডলার (২১ হাজার ২৫০ টাকা প্রায়) পরিশোধ করতে হয়, যার মধ্যে ৬৫ ডলার টেকসই উন্নয়ন ফি ও ৪০ ডলার ভিসা ফি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। তবে, বাংলাদেশ, ভারত ও মালদ্বীপের নাগরিকদের জন্য এতদিন এর কোনোটাই দিতে হতো না।

নতুন নিয়ম চালু হলে ভুটান যেতে অন্য দেশগুলোর মতোই উপমহাদেশের এই তিন দেশের পর্যটকদেরও ভিসা ফি’সহ আগেই আবেদন করতে হবে। পাশাপাশি, উন্নয়ন ফি’র জন্য প্রতিদিন গুনতে হবে ৬৫ ডলার বা ৫ হাজার ৬০০ টাকার মতো।

অর্থাৎ, কেউ একদিনের জন্য ভুটান গেলেও তাকে ভিসা ফি’র ৩ হাজার ৪০০ টাকা (৪০ ডলার) ও উন্নয়ন ফি’র ৫ হাজার ৬০০ টাকাসহ অন্তত নয় হাজার টাকা অবশ্যই পরিশোধ করতে হবে।

প্রস্তাবনাটি ডিসেম্বরে পার্লামেন্টে উঠলে আগামী বছরের শুরু থেকেই এ নিয়ম কার্যকর হতে পারে বলে জানা গেছে।

এছাড়া, পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে স্থানীয়দের স্বল্প খরচে বাড়িভাড়ার অনলাইন বিজ্ঞাপনও নিষিদ্ধ করছে ভুটান সরকার। তাদের দাবি, এর কারণে অনিয়ন্ত্রিতভাবে গেস্ট হাউস বা অতিথিশালা তৈরি হচ্ছে। দেশটি জানিয়েছে, এখন থেকে শুধু টিসিবি অনুমোদিত বাড়িভাড়ার বিজ্ঞাপনই অনলাইনে প্রকাশ করা যাবে।

ভুটানের এমন সিদ্ধান্তে দেশটিতে যেতে অনেক পর্যটকের আগ্রহেই ভাটা পড়বে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। যদিও, ভুটানের ইচ্ছা অনেকটা সেরকমই।

Bootstrap Image Preview