Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২৪ মঙ্গলবার, নভেম্বার ২০২০ | ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ | ঢাকা, ২৫ °সে

চোরকে ছেড়ে দিল পুলিশ, দোকান বন্ধ রেখে ব্যবসায়ীদের প্রতিবাদ

ইউসুফ আলী সুমন, মহাদেবপুর (নওগাঁ) প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ২৪ মে ২০১৯, ০৯:২৫ PM
আপডেট: ২৪ মে ২০১৯, ০৯:২৫ PM

bdmorning Image Preview


নওগাঁর মহাদেবপুরে আইনানুগ ব্যবস্থা না নিয়ে চোরকে ছেড়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে নওহাটা ফাঁড়ি পুলিশের বিরুদ্ধে। এর প্রতিবাদে দোকান বন্ধ রেখে প্রতিবাদ জানায় স্থানীয় ব্যবসায়ীরা।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) বিকেলে ধান চোরে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে মামলা না নিয়ে ছেড়ে দেয়ার অভিযোগে উপজেলার সরস্বতীপুর বাজার বণিক সমিতির উদ্যোগে সকল দোকান বন্ধ রেখে পুলিশের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়েছে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। পরে পুলিশ এসে পুনরায় গ্রেফতারের ঘোষণা দিলে পরিস্থিতি স্থিতিশীল হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বুধবার (২২ মে) রাতে সরস্বতীপুর বাজারের মেসার্স আল-আকসা ট্রেডার্স নামক একটি ধানের আরত থেকে ভ্যানযোগে ধান চুরি করার সময় উপজেলার খাঁ-পাড়া গ্রামের চয়েন উদ্দীনের ছেলে মিথুনকে (২৬) আটক করে ব্যবসায়ীরা। এ সময় মিথুন তার সহযোগী নওগাঁ শহরের চকবাড়িয়া মহল্লার জৈনক বাবুর ছেলে ও উপজেলার চকরাজা গ্রামের শাকিল হোসেনের (২৭) নাম প্রকাশ করে।

ঐ রাতেই ব্যবসায়ীরা চোরকে আটক করার খবর নওহাটা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ হুমায়নকে জানান। পরে এটিএসআই মেহেদী ও কনেস্টবল ফারুক রাত সাড়ে ১১টার দিকে ঘটনাস্থলে পৌঁছালে ব্যবসায়ীরা আটককৃত চোরকে তাদের কাছে সোপর্দ করেন।

পরবর্তীতে বৃহস্পতিবার (২৩ মে) মিথুনের অপর সহযোগী শাকিল হোসেনকেও আটক করেন ব্যবসায়ীরা। আটকের পর শাকিলকে নওহাটা পুলিশ ফাঁড়িতে সোপর্দ করা হয়। এ ঘটনায় মামলা না নিয়ে পুলিশ ওইদিন মিথুনকে ছেড়ে দেয়।

এছাড়াও গত ১২ মে দিবাগত রাতে ওই ধানের আরতের তালা ভেঙ্গে নগদ ৯ হাজার ৫২০ টাকাসহ কম্পিউটার ও একটি স্মার্টফোন ফোন চুরি করে নিয়ে যায় দুর্বিত্তরা।

মেসার্স আল-আকসা ট্রেডার্স এর মালিক সানোয়ার জানান, প্রথম চুরির ঘটনাটি ঘটেছে ১২ মে দিবাগত রাতে। বুধবার (২২ মে) ধান চুরি করার সময় মিথুনকে আটক করা হয় এবং সে কিছু তথ্য প্রকাশ করার পরই তাকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। এরপর বৃহস্পতিবার সকালে জড়িত অপর অভিযুক্ত শাকিলকে আটক করে নওহাটা পুলিশ ফাঁড়িতে সোপর্দ করা হয়। কিন্তু মামলার পস্তুতি চলাকালে পুলিশে সোপর্দকৃত মিথুনকে বাজারে ঘোরাফেরা করতে দেখা যায়।

পরবর্তীতে বাজার বণিক সমিতির জরুরি সিদ্ধান্ত মোতাবেক ঘটনার প্রতিবাদে বিকেল ৫টায় সরস্বতীপুর বাজারের সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়। পরে এসআই ফরিদ ছেড়ে দেয়া চোরকে পুনরায় আটক করার আশ্বাস দেয়ার পর বাজার বণিক সমিতি ৬টায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলার ঘোষণা দেন।

এ বিষয়ে নওহাটা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ হুমায়ন জানান, ব্যবসায়ীদের দাবির মুখে মিথুনকে গ্রেফতারের চেষ্টা চালানো হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা পরে যে ব্যক্তিকে পুলিশে সোপর্দ করেছিলেন তাকে শুক্রবার ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করা হলে বিচারক তিন মাসের জেল দেন।

এছাড়াও মহাদেবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাজ্জাদ হোসেন জানান, কোন অভিযোগকারী না থাকায় মিথুনের বিরুদ্ধে মামলা নেয়া যায়নি। পরে তাকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করা হলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কোন সাজা না দেয়ায় মিথুনকে ছেড়ে দেয়া হয়েছিলো।

Bootstrap Image Preview