Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২৭ মঙ্গলবার, অক্টোবার ২০২০ | ১২ কার্তিক ১৪২৭ | ঢাকা, ২৫ °সে

অভাবের তাড়নায় মায়ের আত্মহত্যা 

সিলেট প্রতিনিধিঃ
প্রকাশিত: ০৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ১২:৫৮ PM
আপডেট: ০৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ১২:৫৮ PM

bdmorning Image Preview


সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে অভাবের তাড়না সইতে না পেরে রিনা বেগম (৪৫) নামের এক বিধবা মা গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

রবিবার (২ ডিসেম্বর) রাত ৮টায় থানা পুলিশ ওই মহিলার লাশ উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।
নিহত রিনা বেগম উপজেলার বড়দল (দক্ষিণ) ইউনিয়নের কামারকান্দি গ্রামের মৃত মদরিছ মিয়ার স্ত্রী।

জানা গেছে, উপজেলার কামারকান্দি গ্রামের এক সন্তানের জননী রিনা বেগম রবিবার সকাল সাড়ে ৮টার পর কোন এক সময় বসতঘরের আড়াইয়ের সাথে গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা করেন।

সকালে বাড়ি থেকে কৃষিকাজের উদ্দেশ্যে বের হয়ে যাওয়া একমাত্র ছেলে জাহাঙ্গীর আলম (২৮) কে প্রতিবেশীরা দুপুরের দিকে সংবাদ দিলে সে বাড়িতে এসে মায়ের ঝুলন্ত লাশ দেখতে পেয়ে থানা পুলিশকে খবর দেয়।

প্রতিবেশীরা জানান, প্রায় আড়াই বছর পূর্বে রিনা বেগমমের স্বামী মদরিছ মিয়া মৃত্যুবরণ করেন। এরপর ঘরে একমাত্র বিবাহযোগ্য ছেলে থাকার পরও অভাব অনটনের কারণে ছেলেকে বিয়ে করাতে পারছিলেন না। তেমনি কৃষি শ্রমিক ছেলের অনিয়মিত অল্প আয় রোজগারে ঠিকমত মা ছেলের প্রায়ই দু’বেলা খাবারও জুটত না। এ কারণে হতাশা গ্রস্থ হয়ে রিনা বেগম গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যার পথে বেছে নেন।

নিহতের একমাত্র ছেলে জাহাঙ্গীর বলেন, সকালে মায়ের সাথে নাস্তা করে আমি কাজের খোঁজে বাড়ি থেকে বের হই। এরপরই প্রতিবেশীরা মায়ের মৃত্যুর খবর আমাকে জানান।

তিনি কান্না জড়িত কন্ঠে আরও বলেন, অভাব তো আমাদের নিত্য সঙ্গী, তারপরও মা ছিলেন আমার একমাত্র ভরসার জায়গা। তিনি অভাবের তাড়নায় সইতে না পেরে আমায় একা ফেলে চলেই গেলেন।

তাহিরপুর থানার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশের এসআই আনোয়ার হোসেন জানান, প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে ওই মহিলা অভাবের কারণে হতাশাগ্রস্থ হয়েই আত্মহত্যা করেছেন। 

Bootstrap Image Preview