Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৪ বৃহস্পতিবার, নভেম্বার ২০১৯ | ৩০ কার্তিক ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

হোটেলে নিজের ছেলের জন্য মেয়ে সাপ্লাই দিয়েছেন আপন জুয়েলার্সের মালিক

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ৩০ অক্টোবর ২০১৯, ০৯:২৭ PM
আপডেট: ৩০ অক্টোবর ২০১৯, ০৯:২৭ PM

bdmorning Image Preview


‘পিয়াসাকে আমার কাছ থেকে সরাতে রাজধানীর বনানীর হোটেল রেইনট্রিতে মেয়ে সাপ্লাই দিয়েছেন আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদ। আমি কোনো ধর্ষণ করিনি। আমি ধর্ষণ মামলার আসামিও না। একমাত্র পিয়াসাকে ভালোবেসে বিয়ে করা আমার অপরাধ।’

গত ডিসেম্বরে জামিনে বের হন বনানীর রেইনট্রি মামলার অন্যতম আসামি সাফাত আহমেদ। জামিনে মুক্তি পাওয়ার পর ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। হাসপাতালে বাবা দিলদার আহমেদের সঙ্গে এসব কথা বলেন সাফাত। এ সময় তিনি সেই দৃশ্য ভিডিও করছিলেন। ভিডিওতে দুজনের কথাকাটাকাটি হয় এবং একে অপরকে লক্ষ্য করে আঙুল উঁচিয়ে কথা বলতে দেখা যায়।

এদিকে আজ বুধবার গর্ভের সন্তান নষ্ট ও নারী নির্যাতনের অভিযোগে আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদসহ দুজনের করা মামলার নারাজির বিষয়ে শুনানি শেষে তা সিআইডিকে তদন্তের নির্দেশ দেন আদালত।

মামলার বাদী পিয়াসা বলেন, ‘আমার শ্বশুর দিলদার জঘন্য একজন মানুষ। তিনি আমাদের সংসার ভালোভাবে চলতে দিচ্ছেন না। সাফাতকে নারী দিয়ে তিনি ফাঁসিয়ে দিয়েছেন। এছাড়া আমার ওপর নির্যাতন চালিয়েছেন। তা ভিডিওর মাধ্যমে প্রমাণিত হয়েছে।’

এর আগে ১ সেপ্টেম্বর ঢাকা মহানগর হাকিম মো. তোফাজ্জল হোসেনের আদালতে মামলার নারাজি শুনানির জন্য দিন ধার্য ছিল। কিন্তু মামলার বাদী রেইনট্রি হোটেলে দুই শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি সাফাত আহমেদের স্ত্রী ফারিয়া মাহাবুব পিয়াসা সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হওয়ায় আদালতে হাজির হতে পারেননি। পরে তার আইনজীবীরা সময় আবেদন করেন। আদালত সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে ৩০ অক্টোবর শুনানির দিন ধার্য করেন।

তার আগে ২৫ আগস্ট ঢাকা মহানগর হাকিম মো. তোফাজ্জল হোসেনের আদালতে মামলায় নারাজি দেন ফারিয়া মাহাবুব পিয়াসা। আদালত নারাজির ওপর শুনানির জন্য ১ সেপ্টেম্বর দিন ধার্য করেন। সেদিন ফারিয়া মাহাবুব পিয়াসা জাগো নিউজকে বলেন, ‘গর্ভের সন্তান নষ্ট ও নারী নির্যাতনের অভিযোগে আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদসহ দুজনের বিরুদ্ধে মামলা করি। আদালত মামলাটি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন। কিন্তু মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা পিবিআইয়ের পরিদর্শক মো. মজিবুর রহমান আমার কাছে অবৈধভাবে টাকা দাবি করেন। আমি তার দাবি না মানায় তিনি আমার শ্বশুরের পক্ষে প্রতিবেদন দাখিল করেন। আমি এ প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে আদালতে নারাজি দিয়েছি।’

Bootstrap Image Preview