Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২৩ শনিবার, নভেম্বার ২০১৯ | ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

যে নারীর কারণে আইএস প্রধান বাগদাদির মৃত্যু

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৯ অক্টোবর ২০১৯, ১১:১২ AM
আপডেট: ২৯ অক্টোবর ২০১৯, ১১:১২ AM

bdmorning Image Preview


আইএস প্রধান আবু বকর আল বাগদাদির আস্তানায় অভিযান চালিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করছে মার্কিন সেনা। রোববার সেই অভিযানের ভিডিও প্রকাশ করেছে ইরাকি টেলিভিশন।

সংবাদ মাধ্যমটি জানায়, আইএসের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান আবু বকর আল-বাগদাদিকে হত্যার উদ্দেশে ইরাকের উত্তরাঞ্চল থেকে আটটি হেলিকপ্টারে করে গভীর রাতে সিরিয়ার উত্তর-পশ্চিমে অভিযান শুরু করে মার্কিন সেনারা।

মার্কিন স্পেশাল ফোর্সের সেই অভিযানের নাম ছিল ‘কায়লা মুয়েলার’। আর এ নামকরণের পেছনে রয়েছেন এক মার্কিন দাতব্য কর্মী। তার নামই কায়লা মুয়েলার।

ওই মার্কিন নারীর নামে বাগদাদি হত্যা মিশনের নাম রাখার কারণ হিসেবে জানা গেছে, কায়লা মুয়েলার হত্যাকাণ্ডে আবু বকর আল-বাগদাদি প্রত্যক্ষভাবে জড়িত।

মার্কিন সেনাবাহিনীর দাবি, বাগদাদি কায়লা মুয়েলারকে অপহরণের পর ধর্ষণ করে হত্যা করেছিল বাগদাদি। তাই ওই নারীর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনে অভিযানটির এ নাম রাখা হয়। ২০১২ সালে সিরীয় শরণার্থীদের জন্য কাজ করতে প্রথম তুরস্ক-সিরিয়া সীমান্তে গিয়েছিলেন কায়লা মুয়েলার। সে সময় তিনি ২৬ বছর বয়সী নারী ছিলেন।

২০১৩ সালে সিরিয়ার আলেপ্পোতে অপহৃত হন কায়লা। এরপর দীর্ঘদিন তার কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি। তার অবস্থান নিয়ে ধুম্রজালের সৃষ্টি হয়। পরে জানা যায়, আইএস প্রধান আবু বকর আল বাগদাদির অধীনে জিম্মি হয়ে আছেন কায়লা।

জিম্মি থাকার সময় ২০১৪ সালে বাবা-মাকে পাঠানো এক চিঠিতে মুয়েলার লেখেন, ‘তোমরা কান্নাজড়িত যেসব চিঠি আমাকে পাঠিয়েছ, সেগুলোর কথা চিন্তা করে আমি কেবল চিঠিই লিখতে পারি। আমি জানি, তোমরা তীব্রভাবে আমাকে ফিরে পেতে চাও। আমি সে জন্য চেষ্টা করছি।’

এরপর পেরিয়ে যায় এক বছর। এরপর কায়লা নিহত হয়েছেন বলে খবর প্রচারিত হয়। ২০১৫ সালে তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা নিশ্চিত করেন, কায়েলা মুয়েলার নিহত হয়েছেন। আইএসের হাতে আটকের পর নিহত চতুর্থ মার্কিনী তিনি।

তবে কায়েলার মৃত্যু নিয়ে বেশ কয়েক বছর ধরেই বিভিন্ন তথ্য পাওয়া যাচ্ছিল। সে সময় পেন্টাগন দাবি করেছিল, আইএসই কায়লাকে হত্যা করেছে। এ বিষয়ে মার্কিন সেনাদের কয়েকজন কর্মকর্তা দাবি করেন, আবু বকর বাগদাদি নিজেই মুয়েলারকে নির্মম নির্যাতন করে এবং পরে তাকে হত্যা করে।

মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলো থেকে বলা হচ্ছিল, মুয়েলারকে আত্মরক্ষার ঢাল হিসেবে ব্যবহার করেছিল বাগদাদি। তবে শুরু থেকে মার্কিন তরফের এসব দাবি অস্বীকার করে আসছে আইএস। সংগঠনটি বলছে, জর্ডানের বিমান হামলায় মুয়েলার নিহত হয়েছেন।

আইএস যাই দাবি করুক সেই মার্কিন নারী দাতব্য কর্মী যে আর পৃথিবীতে নেই তা একেবারে নিশ্চিত এবং আইএসই তাকে পাশবিক নির্যাতন করে হত্যা করেছে সে কথায় অনড় মার্কিন প্রশাসন।

শনিবার রাতে মার্কিন সেনাদের কায়েলা মুয়েলার অভিযানে নিহত হয়েছেন বাগদাদি। এ বিষয়টি নিশ্চিত করে হোয়াইট হাউজে বিবৃতিও দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

রোববার সকালের দিকে ডোনাল্ড ট্রাম্প ব্যাঙ্গাত্মক ও কটূক্তিপূর্ণ ভাষায় অভিযানের বিবরণ প্রকাশ করেছিলেন। এই অভিযানকে ইসলামিক স্টেটের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র নেতৃত্বাধীন সামরিক বাহিনীর পাঁচ বছরের লড়াইয়ের অন্যতম সাফল্য বলে দাবি করেছেন তিনি। সূত্র: ওয়াশিংটন পোস্ট, এনবিসি।

Bootstrap Image Preview