Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৬ শনিবার, নভেম্বার ২০১৯ | ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

কখনো পুলিশ, কখনো সাংবাদিক লিপি

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ০৪:০৮ PM
আপডেট: ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ০৪:০৮ PM

bdmorning Image Preview
সংগৃহীত ছবি


যশোরে পুলিশ ও সাংবাদিক পরিচয়ে বিভিন্ন স্থানে প্রতারণা ও মাদক বিক্রির অভিযোগে আলোচিত রেহেনা আক্তার ওরফে লিপি (২৫) নামে এক নারীসহ পাঁচজনকে আটক করেছে পুলিশ। 

এ সময় তাদের কাছ থেকে দুটি ওয়াকিটকি ও বিভিন্ন ধরনের ছবি উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার সন্ধ্যায় তাদের যশোর জিলা স্কুলের সামনে থেকে আটক করা হয়।

আটক রেহেনা ওরফে লিপি চৌগাছার নারায়ণপুর গ্রামের মিঠুর স্ত্রী এবং মাশিলা গ্রামের হানিফের মেয়ে। যশোর শহরের রেলগেট এলাকায় তার বসবাস।

আটক অন্যরা হলেন শহরের চাঁচড়া রায়পাড়া বিল্লাল মসজিদের পাশের বাবুলের মেয়ে প্রিয়া, শংকরপুর সরকারি মুরগির খামার এলাকার লিটনের ছেলে সোহেল, রেলস্টেশন এলাকার টুকুর ছেলে বাবু এবং আশ্রম রোডের সুরুজ মিয়ার ছেলে ওহিদুল।

যশোর কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) সমীর কুমার সরকার বলেন, পুলিশ জানতে পারে এক নারী মোটরসাইকেল চালিয়ে ঘুরে বেড়ান সর্বত্র। তার মোটরসাইকেলের সামনে প্রেস লেখা। নিজেকে সাংবাদিক পরিচয় দেন তিনি। আবার কখনো কখনো নিজেকে পুলিশ পরিচয় দেন।

এসব পরিচয় ব্যবহার করে শহরের বিভিন্ন এলাকায় ইয়াবা বিক্রি করেন। কক্সবাজার থেকে ইয়াবার চালান নিয়ে এসে মোটরসাইকেলে যশোরে বিক্রি করেন। আবার কলগার্ল হিসেবে পরিচিত তিনি।

বুধবার বিকেলে যশোর জিলা স্কুলের সামনে তার সহযোগীরা কোনো অপরাধ কর্মকাণ্ড ঘটানোর জন্য দাঁড়িয়ে আছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালায় পুলিশ। সেখান থেকে প্রিয়া, সোহেল, বাবু ও ওহিদুলকে আটক করা হয়।

ওই সময় সোহেলের কাছ থেকে দুটি ওয়াকিটকি জব্দ করা হয়েছে। ওই সব ওয়াকিটকি রেহেনা ওরফে লিপির কাছ থেকে পেয়েছে বলে পুলিশকে জানায় সোহেল।

সোহেল পুলিশকে জানায়, রেহেনা যশোর প্রেস ক্লাবের সদস্য। কিন্তু রেহেনা বা লিপি নামে যশোর প্রেস ক্লাবের কোনো সদস্য নেই বলে জানতে পারে পুলিশ। সোহেলের উল্টাপাল্টা তথ্য পেয়ে তাকে আরও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পরে রেহেনা ওরফে লিপিকে আটক করে পুলিশ।

পরিদর্শক সমীর কুমার সরকার আরও বলেন, রেহেনাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তার কাছে যশোর থেকে প্রকাশিক ‘সাপ্তাহিক স্মৃতি’ নামে একটি পত্রিকার পরিচয়পত্র পাওয়া যায়। ওয়াকিটকি একটি অনলাইন থেকে কিনেছে বলে পুলিশকে জানিয়েছে লিপি।

এছাড়া রেহেনা ওরফে লিপি চৌগাছা সীমান্ত থেকে ফেনসিডিল ও কক্সবাজার থেকে ইয়াবার চালান নিয়ে যশোরে আসে। বছর খানেক আগে ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর উপজেলার একজন ভাইস চেয়ারম্যানের সঙ্গে লিপিকে আটক করেছিল পুলিশ। কয়েক মাস আগেও যশোর শহরের দড়াটানা থেকে তাকে আটক করে পুলিশ।

সমীর কুমার সরকার আরও বলেন, লিপি কলগার্ল বলে পরিচিত। ওয়াকিটকি দেখিয়ে পুলিশ পরিচয়ে সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করে লিপি ও তার সহযোগীরা। তাদের সঙ্গে নিয়ে আরও কয়েক জায়গায় অভিযান চালানো হবে।

Bootstrap Image Preview