Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৮ শুক্রবার, অক্টোবার ২০১৯ | ৩ কার্তিক ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

ধাওয়া খেয়ে ক্যাম্পাস ছাড়ল ‘৪০ লাখ টাকায় নেতা হওয়া’ ইবি ছাত্রলীগ সম্পাদক

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:১৩ PM
আপডেট: ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:১৩ PM

bdmorning Image Preview
সংগৃহীত


ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিবকে ধাওয়া দিয়ে ক্যাম্পাস থেকে বের করে দিয়েছে বিদ্রোহীরা।

বৃহস্পতিবার বিকেল পৌনে ৫টার দিকে রাকিব বহিরাগত ঠিকাদার, সাবেক ছাত্রলীগের একজন সভাপতি, একজন সম্পাদক এবং কুষ্টিয়ার এক যুবলীগ নেতার শেল্টারে ক্যাম্পাসে প্রবেশ করে জিয়া হল মোড়ে আসেন।

এ সময় রাকিব গ্রুপ জিয়া হল মোড়ে অবস্থান নিলে প্রত্যেকটি ছাত্র হলে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংগঠিত হয় বিদ্রোহীরা। একপর্যায়ে রাকিব তার সমর্থকসহ জিয়া হল মোড় ছেড়ে প্রধান ফটকে অবস্থান নেন। তবে রাকিবের পক্ষে লালন শাহ হল থেকে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আবুল খায়ের মোল্লার নেতৃত্বে একটি গ্রুপ জিয়া হল মোড়ের দিকে আসে। এ সময় চার হল থেকে এক যোগে বিদ্রোহীরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে জিয়া মোড়ে ওই গ্রুপটির ওপর হামলা চালায়। তবে তারা ছত্রভঙ্গ হয়ে পালিয়ে যাওয়ায় কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

একপর্যায়ে সকল হলের বিদ্রোহীরা সশস্ত্র মিছিল জিয়া হল সোড়ে একত্রিত হয়ে প্রধান ফটকে অবস্থান নিয়ে রাকিবকে ধাওয়া দেয়। তবে বিদ্রোহীরা প্রধান ফটকে পৌঁছানোর আগে রাকিব পালিয়ে যায়। পরে বিদ্রোহীরা প্রধান ফটকে গিয়ে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে ক্যাম্পাসে অস্ত্রের মহড়া দেয়। তবে এ ঘটনায় পুলিশ এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন নিরব ভূমিকায় ছিল। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় এ রিপোর্ট লেখার সময় বিদ্রোহীরা জিয়া হল মোড়ে অবস্থান নিয়েছিল।

এ বিষয়ে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর আরিফ বলেন, আমরা ফোর্সসহ ক্যাম্পাসের প্রধান ফটকে ছিলাম। এ ঘটনা তো ক্যাম্পাসের ইন্টারনাল। তাই আমরা ঘটনা অবজারভ করছি।

এর আগে মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) রাতে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিবের চাঞ্চল্যকর অডিও ফাঁস হয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের একাধিক আইডি থেকে ৪ মিনিট ৫৯ সেকেন্ডের অডিওটি ফাঁস হয়। তবে বুধবার (১১ সেপ্টেম্বর) দুপুরের পর থেকে আইডিগুলো আর খুঁজে পাওয়া যায়নি।  

ফাঁসকৃত অডিওতে সাধারণ সম্পাদক রাকিব অজ্ঞাত ব্যক্তির ক্যান্ডিডেটকে পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ নেতা বানানোর কথা বলেন। এসময় নিজের নেতা হওয়ার নেপথ্যে অনেক কাঠখড় পোহানোর বিষয় উল্লেখ করেন।

কথা বলার এক পর্যায়ে রাকিব অজ্ঞাত ব্যাক্তির কাছে ইবি ছাত্রলীগের পূর্বের কমিটি ভাঙা, নতুন কমিটি গড়া ও প্রিন্ট-ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার খরচ বাবদ বিশাল অংকের টাকা খরচ (অডিওতে ৪০ এর কথা উল্লেখ আছে) হয়েছে বলে স্বীকার করেন। পাশাপাশি ছয়মাসের মধ্যে এ টাকা দ্বিগুণ করে নেওয়ার বিষয়টিও বলেন।
 
এছাড়াও অডিওতে পাবনা বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নেতা বানানোর ক্ষেত্রে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো রাখার কথা বলেন। পাশাপাশি মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি রেজওয়ানুল ইসলাম শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর মাধ্যমে নেতা বানিয়ে আনার কথা বলেন।
 
অডিওতে রকিব আরো বলেছেন, গোলাম রাব্বানীর সঙ্গে তার ভালো সম্পর্ক আছে। সে সূত্র ধরে ছাত্রলীগের আঞ্চলিক নেতা বানানোর ক্ষেত্রে তাকে দেখভাল করার নির্দেশ দিয়েছেন।

এদিকে এ অডিও প্রকাশের পর থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। সাধারণ সম্পাদক হয়ে এ কাজ করায় ছাত্রলীগকে কলঙ্কিত করেছেন বলে অভিযোগ করেছেন নেতাকর্মীরা।

এ বিষয়ে তন্ময় সাহা টনি নামে এক শাখা ছাত্রলীগ কর্মী বলেন, ‘একজন ছাত্রলীগের সাধারণ কর্মী হয়ে এ বিষয়টি আমার কাছে গুরুতর মনে হয়েছে। এতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সুনাম চরমভাবে ক্ষুণ্ন হয়েছে। বিষয়টি যাচাই বাছইয়ের জন্য আমরা কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগে দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।’

তবে অডিও ক্লিপটি নিজের নয় দাবি করে শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব বলেন, ‘অডিও ক্লিপটি আমার নয়। আমাকে বিভ্রান্ত করতে কেউ আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে।’  

Bootstrap Image Preview