Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৪ সোমবার, অক্টোবার ২০১৯ | ২৯ আশ্বিন ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

কুরআন তেলাওয়াতে যেসব উপকারিতা লাভ করবে মুমিন

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:৩৬ AM
আপডেট: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:৩৬ AM

bdmorning Image Preview
সংগৃহীত ছবি


কুরআন আল্লহর কিতাব। এ কিতাব মানুষের দুনিয়া ও পরকালের নাজাতের জন্য সংবিধান হিসেবে প্রেরণ করেছেন। শুধু তাই নয়, এ কুরআন সংরক্ষণের দায়িত্বও গ্রহণ করেছেন স্বয়ং আল্লাহ। আল্লাহ তাআলা বলেন-

‘নিশ্চয়ই আমি কুরআন নাজিল করেছি এবং আমি এর সংরক্ষক।’ 

পাশাপাশি দুনিয়ায় যারা এ কুরআনের হেফাজত, তেলাওয়াত ও বিধান মেনে চলবে তাদের জন্যও রয়েছে অসংখ্য উপকারিতা ও ফজিলতের ঘোষণা। আল্লাহ তাআলা বলেন- 

‘অবশ্যই তোমাদের কাছে আল্লাহর পক্ষ থেকে আলো ও সুস্পষ্ট কিতাব এসেছে। যারা আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভ করতে চায়, এ (জ্যোতির্ময় কুরআন) দ্বারা তিনি তাদেরকে শান্তির পথে পরিচালিত করেন এবং নিজ অনুমতিক্রমে তাদেরকে (কুফরিরে) অন্ধকার থেকে বের করে (ঈমানের) আলোর দিকে নিয়ে যান এবং তাদেরকে সরল পথে পরিচালিত করেন।’ (সুরা মায়িদা : আয়াত ১৫-১৬) 

অথচ মানুষ পবিত্র কুরআনুল কারিমের বিধান পালন, নসিহত গ্রহণ ও তেলাওয়াত করা থেকে দূরে সরে গিয়ে নিজেদের ক্ষতি ডেকে আনছে। বঞ্চিত হচ্ছে কুরআন-সুন্নায় ঘোষিত ফজিলত উপকারিাতা থেকে।

কুরআন থেকে দূরে সরে যাওয়া কোনো মুমিন মুসলমানেরই উচিত নয়। কেননা এ কুরআনের তেলাওয়াতই মানুষকে উত্তম জীবনযাপনের দিকে ধাবিত করে। পরকালের সীমাহীন নেয়ামত লাভে উদ্বুদ্ধ করে।

তাছাড়া নিয়মিত কুরআন তেলাওয়াতে রয়েছে মানুষের জন্য অনেক বড় উপকারিততা। আল্লাহ তাআলাই মানুষকে তারতিলের সঙ্গে কুরআন তেলাওয়াতের নির্দেশ দিয়েছেন। তাইতো কুরআনের তেলাওয়াত ও ফজিলেতের বর্ণনা এসেছে কুরআনে এবং প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের পবিত্র জবানিতে। আর তাহলো- 

>> মানবজাতির মুক্তির ঠিকানা কুরআন 

সুরা আন-নাহলের ৮৯ আয়াতে আল্লাহ তাআলা ঘোষণা করেন- 

‘আমি তোমার প্রতি প্রত্যেক বিষয়ের সুস্পষ্ট ব্যাখ্যাস্বরূপ কিতাব (কুরআন) প্রেরণ করেছি এবং আত্মসমর্পনকারীদের (মুসলিমদের) জন্য (কুরআন) পথপ্রদর্শক, করুনা ও সুস্বংবাদস্বরূপ।’

>> ঈমান বৃদ্ধিতে কুরআন 

কুরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে মানুষের ঈমান বহুগুণে বৃদ্ধি পায়। আর যখনই মানুষের ঈমান বেড়ে যায়, তখনই মানুষ দুনিয়া ও পরকালের জন্য নিজেকে সাজাতে সহজ হয়। আল্লাহ বলেন-

‘মুমিন তো তারা, আল্লাহকে স্মরণ করার সময় যখন তাদের অন্তরসমূহ কেঁপে উঠে। আর যখন তাদের উপর তাঁর আয়াতসমূহ পাঠ করা হয় তখন তা তাদের ঈমান বৃদ্ধি করে এবং যারা তাদের রবের উপরই ভরসা করে।’ (সুরা আনফাল : আয়াত ২)

>> প্রশান্তি লাভে কুরআন 

জীবনের উন্নতি-অবনতি, আল্লাহর দান কম-বেশি সর্বাবস্থায় কুরআন মানুষের অন্তরে তৃপ্তি ও প্রশান্তি ঢেলে দেয়। কুরআনের বরকতেই সব অশান্তি থেকে প্রশান্তি লাভ করে। আল্লাহ ঘোষণা দেন- 

‘যারা ঈমান আনে, বিশ্বাস স্থাপন করে এবং তাদের অন্তর আল্লাহর জিকির দ্বারা শান্তি লাভ করে। জেনে রাখ, আল্লাহর জিকির দ্বারাই অন্তরসমূহ শান্তি পায়।’ (সুরা আর-রাদ : আয়াত ২৮)

>> সর্বোচ্চ জ্ঞানের উৎস কুরআন 

পবিত্র কুরআনুল কারিমের মানুষের সব জ্ঞানের উৎসা। কুরআন গবেষণা করেই মানুষ দিন দিন নতুন আবিষ্কার নিয়ে আসছে। বিশ্বজগত সম্পর্কে ধারণা লাভ করছে। মানুষকে গবেষণায় উদ্বুদ্ধ করতেই আল্লাহ ঘোষণা করেন- 

‘ইয়া-সীন। জ্ঞানগর্ব (বিজ্ঞানময়) কুরআনের শপথ। নিশ্চয়ই আপনি প্রেরিত রাসুলদের অন্তর্ভূক্ত। সরল (সঠিক) পথের ওপর প্রতিষ্ঠিত। কুরআন পরাক্রমশালী ও পরম দয়ালু আল্লাহর পক্ষ থেকে নাজিলকৃত।’ (সুরা ইয়াসিন : ১-৫)

>> কুরআন সুপারিশকারী 

পরকালের ভয়াবহ দিন এ কুরআনই তার তেলাওয়াতকারী, বিধান পালনকারী ও নসিহত গ্রহণকারীর জন্য মুক্তি লাভে সুপারিশ করবে। হাদিসে এসেছে- 

হজরত আবু উমামাহ রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘তোমরা কুরআন তেলাওয়াত কর। কারণ কুরআন কেয়ামতের দিন তেলাওয়াতকারীর (নাজাতের) জন্য সুপারিশ করবে।’ (মুসলিম)

>> জান্নাত লাভেও সুপারিশ করবে কুরআন 

কেয়ামতের দিনে কুরআন আল্লাহর কাছে তেলাওয়াতকারীর জন্য এভাবে সুপারিশ করবে- 

‘হে আমার প্রভু! আমার তেলাওয়াতই তাকে রাতের ঘুম থেকে বিরত রেখেছে। তাই তার ব্যাপারে তুমি আমার সুপারিশ কবুল কর। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, অতঃপর আল্লাহ তাআলা কুরআনের সুপারিশ কবুল করবেন।’ (মুসনাদে আহমদ) 

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে কুরআনের ঘোষিত ফজিলত ও উপকারিতা গুলো লাভ করতে কুরআনের তেলাওয়াত, বিধান পালন ও নসিহত গ্রহণ করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Bootstrap Image Preview