Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৪ সোমবার, অক্টোবার ২০১৯ | ২৯ আশ্বিন ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

অপমানজনক বিতাড়ণের আগে সিনেট ও ডাকসু ছাড়ুন: শোভন-রাব্বানীকে ভিপি নুর

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:০৯ PM
আপডেট: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:০৯ PM

bdmorning Image Preview
সংগৃহীত


ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহসভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুর মনে করেন, দূর্নীতি ও আর্থিক কেলেঙ্কারিসহ বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর অপাসরণকে সময়োচিত সিদ্ধান্ত।

সিনেট ও ডাকসু থেকে শোভন-রাব্বানীকে পদত্যাগের আহ্বান জানিয়ে নুরুল হক নুর বলেন, নিজ সংগঠন থেকে নৈতিক স্খলনজনিত এবং দুর্নীতির দায়ে পদচ্যুতরা সাধারণ শিক্ষার্থীদের সমর্থন করে না।

সেই কারণে আমি মনে করি সাধারণ শিক্ষার্থীরা তাদের অপমানজনকভাবে সিনেট ও ডাকসু থেকে বিতাড়ণের আগেই তাদের পদত্যাগ করা উচিত। কারণ তারা তো এই পদে থাকার অধিকার রাখে না।

ছাত্রলীগের শীর্ষপদ থেকে শোভন ও রাব্বানীর পদচ্যুতির প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে রোববার সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন ভিপি নুর।

কোটা সংস্কার আন্দোলনে ঢাবি ক্যাম্পাসে জনপ্রিয়তা পাওয়া ডাকসুর ভিপি বলেন, দূনীর্তির সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকায় নিজ সংগঠনে তাদের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে এবং শেষপর্যন্ত পদ হারাতে হয়েছে। চিহ্নিত এরা কোথাও জড়িত থাকা মানে সেই প্রতিষ্ঠানকেও কলুষিত করা, বিতর্কিত করা। ডাকসুতে থাকা মানে ডাকসুকে অনৈতিকভাবে তুলে ধরা, সিনেটে প্রতিনিধিত্ব করা মানে সেই সিনেটকেও প্রশ্নবিদ্ধ করা।

গত মার্চে অনুষ্ঠিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ নির্বাচনে পদচ্যুত ছাত্রলীগের সভাপতি শোভনকে হারিয়ে ভিপি পদে নির্বাচিত হন কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের নেতা নুর। ছাত্রলীগের প্যানেল থেকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন রাব্বানী। সম্প্রতি কয়েকটি ঘটনায় চাঁদাবাজির অভিযোগ ওঠার প্রেক্ষাপটে শনিবার আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষুব্ধ হলে পদত্যাগ পদত্যাগ করেন ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী।

জিএস রাব্বানী ডাকসুতে বহাল থাকবেন কিনা জানতে চাইলে ভিপি নুর বলেন, দুর্নীতির দায়ে তাকে তার সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। ডাকসু থেকে তাকে পদচ্যুত করা হয়নি। এই সিদ্ধান্ত নিবেন ডাকসুর সভাপতি মাননীয় উপাচার্জ। শোভন-রাব্বানীর পদচ্যুতির পর আমি উপাচার্যের সঙ্গে একাধিকবার কথা বলেছি। তিনি পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখে সিদ্ধান্ত জানাবেন বলেছেন।

জিএস পদ থেকে রাব্বানী পদচ্যুতি চান কিনা জানতে চাইলে ডাকসুর ভিপি বলেন, =ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্পন্দনের জায়গা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের একজন জিএস দুর্নীতির দায়ে বরখাস্ত হয়েছেন। এটা ছাত্র সংসদের জন্য সম্মানহানিকর। আমি মনে করি, তার ব্যক্তিগত উপলব্ধি থেকে পদত্যাগ করা উচিত। আর যেহেতু শিক্ষার্থীরাও দাবি করছে পদত্যাগের বিষয়ে তার দেখা উচিত

ডাকসুর জিএস হিসেবে রাব্বানী এবং শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধি হিসেবে শোভন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেটের সদস্য। বির্তকিত এ দুইজন দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠের এমন দুটি গুরুত্বপূর্ণ পদে আসীন থাকাকেও ভালো চোখে দেখছেন ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুর। তিনি বলেন, এমন বিতর্কিত ব্যক্তি যদি ডাকসু এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেটে আসীন থাকেন, তাহলে খোদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে সবার নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি তৈরি হতে পারে। যেহেতু তারা নানা নেতিবাচক কর্মকাণ্ডে জড়িত, সেহেতো তাদের উচিত বিশ্ববিদ্যালয়ের গুরুত্বপূর্ণ পদ থেকে পদত্যাগ করা।

ভিপি নুর আরও বলেন, ৪৩ হাজার শিক্ষার্থীর প্রতিনিধি যারা, সারা বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের রোল মডেল যাদের ধরা হয় সেেই প্রতিনিধিরা যদি অনৈতিক বা দুর্নীতির সাথে জড়িত থাকে সেক্ষেত্রে ডাকসু বা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি দেশবাসীর নেতিবাচক মনোভাব তৈরি হবে। প্রধানমন্ত্রী নিশ্চয়ই তাদের বিরুদ্ধে নানান প্রমাণ পেয়েছেন, যে কারণে তিনি তাদের এ পদে রাখেননি। নিজেদের ভুল স্বীকার করে ছাত্রলীগের পদচ্যুত দুই নেতার ডাকসু ও সিনেট থেকে সেচ্ছায় সরে যাওয়াটাই হবে তাদের জন্য সম্মানজনক।

Bootstrap Image Preview