Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৮ সোমবার, নভেম্বার ২০১৯ | ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও হাসান রুহানির মধ্যে বৈঠকের ইঙ্গিত

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:৩৬ AM
আপডেট: ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:৩৬ AM

bdmorning Image Preview


আসন্ন জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের ফাঁকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানির মধ্যে বৈঠকের ইঙ্গিত দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

কোনো ধরনের ‘পূর্বশর্ত ছাড়াই’ তারা বৈঠকে মিলিত হতে পারেন বলে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও জানিয়েছেন। মঙ্গলবার ইরানের বিপ্লবী রক্ষী বাহিনীসহ বেশ কয়েকটি গোষ্ঠীর ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা দেয়ার সময় সংবাদ ব্রিফিংয়ে তিনি এ কথা জানান। এর আগে ট্রাম্প বলেন, ইরানের পরমাণু অস্ত্রের উন্নয়ন হ্রাস করতেই নিষেধাজ্ঞার মতো অর্থনৈতিক ও কূটনৈতিক পদক্ষেপ নিচ্ছে হোয়াইট হাউস।

এ চাপ দেয়ার কৌশল যে ব্যর্থ হয়েছে, তা ট্রাম্পের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টনকে বরখাস্ত করার ভেতরেই ফুটে উঠেছে বলে মঙ্গলবার টুইটারে রুহানির এক উপদেষ্টা মন্তব্য করেছেন।

২০১৫ সালে ছয় বিশ্বশক্তির সঙ্গে তেহরানের পরমাণু চুক্তি থেকে গত বছর বেরিয়ে গিয়ে ওয়াশিংটন শিয়া সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশটির ওপর আগের সব নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল করেছে।

এসব নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার আগ পর্যন্ত ইরান যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনায় বসবে না বলে রুহানি আগেই শর্ত দিয়েছিলেন। অন্যদিকে আলোচনার ক্ষেত্রে কোনো ধরনের পূর্বশর্তের বিষয়ে হোয়াইট হাউস শুরু থেকেই দৃঢ় আপত্তি জানিয়ে আসছে।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টার দায়িত্ব থেকে জন বোল্টনকে সরিয়ে দিয়েছেন ট্রাম্প। শান্তি পরিকল্পনার অংশ হিসেবে তালেবান প্রতিনিধিদের যুক্তরাষ্ট্রে আমন্ত্রণের পরিকল্পনা নিয়ে ট্রাম্প প্রশাসনে বিভাজনের খবরের মধ্যে তাকে চাকরিচ্যুত করা হল।

২০১৮ সালের এপ্রিল থেকে দায়িত্ব পালন করে আসা বোল্টন ছিলেন ট্রাম্পের তৃতীয় জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা। তার আগে এ পদ থেকে বিদায় নিতে হয়েছে মাইকেল ফ্লিন ও ম্যাকমাস্টারকে।

বোল্টনের পদত্যাগের খবর জানিয়ে ট্রাম্প মঙ্গলবার এক টুইটে লেখেন, গত রাতে আমি জন বোল্টনকে বলেছি যে, হোয়াইট হাউসে তার সেবা আর দরকার নেই। প্রশাসনের অনেকের মতো আমিও তার অনেক পরামর্শের বিষয়ে জোরালো আপত্তি জানিয়েছি।

এবং সে কারণে আমি জনকে পদত্যাগ করতে বলেছি, যা তিনি সকালে আমাকে দিয়েছেন। আগামী সপ্তাহে নতুন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টার নাম ঘোষণা করবেন বলে জানিয়েছেন ট্রাম্প।

সিএনএন বলছে, উত্তর কোরিয়া ও আফগানিস্তান বিষয়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সঙ্গে মতবিরোধে জড়িয়েছিলেন জন বোল্টন। গেল বছর ইরান পরমাণু চুক্তি থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ট্রাম্পের অবস্থান সমর্থন করে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টার পদে এসেছিলেন তিনি।

এর মধ্যে মতবিরোধ এমন পর্যায়ে পৌঁছায় যে, বোল্টন নেতৃত্বাধীন জাতীয় নিরাপত্তা পর্ষদের সদস্যদের সঙ্গে ট্রাম্প প্রশাসনের অন্য কর্মকর্তার সম্পর্ক অনেকটা শত্রুতায় রূপ নেয় বলে হোয়াইট হাউস কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

Bootstrap Image Preview