Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২১ শনিবার, সেপ্টেম্বার ২০১৯ | ৬ আশ্বিন ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

প্রাণে বেঁচে গেলেও তথ্যমন্ত্রীর শরীরে এখনো ৪০ স্প্লিন্টার

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ২১ আগস্ট ২০১৯, ০৫:৫৩ PM
আপডেট: ২১ আগস্ট ২০১৯, ০৫:৫৩ PM

bdmorning Image Preview
সংগৃহীত


রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে সন্ত্রাসবিরোধী সমাবেশে নারকীয় গ্রেনেড হামলা চালানো হয়। সেদিন শেখ হাসিনার বক্তব্য শেষ হওয়া মাত্র গ্রেনেড হামলা ও গুলিবর্ষণ শুরু হয়।

সেই হামলায় আহত হয়েছিলেন শত শত নেতাকর্মী। ওই ঘটনায় ক্ষত নিয়ে বেঁচে গেছেন যারা তাদের অনেকেরই জীবন হয়ে উঠেছে বিষময়।

ভয়াবহ হামলায় আহতদের মধ্যে একজন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। ফেসবুক স্ট্যাটাসে ছবি দিয়ে তিনি লিখেছিলেন, ‘ঢাকার বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার দৃশ্য এটি, আমি গুরুতর আহত। আমাদের দলের দুই নারী নেত্রীর সহায়তায় কোনোভাবে একটি বাসে উঠেছিলাম। সেদিন আমার জীবন রক্ষা করার জন্য তাদের প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা।’

‘যখন আমি হাসপাতালের পথে তখন অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে মনে হচ্ছিল আমার সমস্ত শক্তি নিঃশেষ হয়ে যাচ্ছে। যদি আর এক ঘণ্টা দেরি হতো তাহলে সেদিন অন্যকিছু হয়ে যেতে পারতো। এখনও আমার শরীরের নিচের অংশে ৪০টি স্প্লিন্টার আছে।’

ছবিতে দেখা যায়, গ্রেনেড হামলায় গুরুতর আহত তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ সহকারী, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ রক্তাক্ত, লাল হয়ে গেছে পরনের শার্ট। দলের দুই নারী নেত্রীর কাঁধে ভর দিয়ে হাসপাতালের দিকে যাওয়ার চেষ্টা করছেন তিনি।

সেসময় ড. হাছান মাহমুদের সাহায্যে এগিয়ে আসা সেই দুই নারী নেত্রীর একজন বরিশাল-২ (বানারিপাড়া ও উজিরপুর) আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সৈয়দা রুবিনা আক্তার মিরা।

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা এবং আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশূন্য করা মূল উদ্দেশ্য ছিল উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ গ্রেনেড হামলার বর্ণনা দিয়ে বলেন, ওই ঘটনায় তার শরীরে আর্জেস গ্রেনেডের অসংখ্য স্প্লিন্টার ঢুকে যায়। ঘটনার পর প্রথমে তিনি রাজধানীর শিকদার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা করেন। পরে চিকিৎসকের পরামর্শে বেলজিয়ামে গিয়ে চিকিৎসা করান। চিকিৎসায় কিছু স্প্লিন্টার বের করা হয়। বাকি অসংখ্য স্প্লিন্টার এখনও তার শরীরের মধ্যে রয়ে গেছে। যেগুলো বের করতে গেলে নার্ভ কেটে বের করতে হবে। যা করলে তার মুত্যুও হতে পারে, তাই তিনি চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী বাকি স্প্লিন্টার বের করেননি।

এক আলোচনা সভায় তথ্যমন্ত্রী বলেন, ওইদিন যখন প্রথম গ্রেনেডটি ব্লাস্ট হয়, আমি ভেবেছিলাম গাড়ির টায়ার চলে গেছে হয়তো, এরপর দ্বিতীয় গ্রেনেড যখন ব্লাস্ট হয় তখন আমার মনে হচ্ছিল, আমার পিঠে অনেকগুলো পিঁপড়ে কামড় দিলে যেমন হয়, সেরকম অনুভূত হচ্ছিল। দৌড়ে গিয়ে আওয়ামী লীগের অফিসে আশ্রয় নেই। আর হাঁটতে পারছিলাম না, দেখলাম শরীরে অনেক রক্ত। প্রথমে মানুষ আহত হলে বুঝতে পারে না, যখন হাঁটতে পারলাম না তখন বুঝলাম আমি অসুস্থ।

আমাদের আহতদের একটি মিনিবাসে করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। তখন বাস জ্যামে পড়ে, সেসময় মনে হচ্ছিল আর বাঁচবো না। যখন হাসপাতাল দেখতে পেলাম, মনে হল আশা ফিরে পেলাম। গিয়ে দেখি, সেখানে কোনো ডাক্তার নেই। বরং যারা আমাদের সাহায্য করতে আসছিল, তাদের লাঠিচার্জ করা হয়েছিল।

প্রসঙ্গত, ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে জনসভায় গ্রেনেড হামলায় আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের স্ত্রী আইভি রহমানসহ ২৪ জনের নির্মম মৃত্যু হয়। গ্রেনেডের স্প্লিন্টারের আঘাতে আহত হন কয়েক’শ। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেলেও শ্রবণশক্তি হারান।

Bootstrap Image Preview