Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৭ বুধবার, জুলাই ২০১৯ | ২ শ্রাবণ ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

কক্সবাজার সৈকতে ভেসে আসা ট্রলার থেকে আরো ৩ মরদেহ উদ্ধার

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২ জুলাই ২০১৯, ১১:১৬ AM
আপডেট: ১২ জুলাই ২০১৯, ১১:১৬ AM

bdmorning Image Preview


বঙ্গোপসাগরে ট্রলারডুবির ঘটনায় কক্সবাজার সৈকত থেকে ৬ মরদেহ ও দু'জন জীবিত উদ্ধারের এক দিন পর আরো তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। সৈকতের হিমছড়ি, মহেশখালী ও সমিতি পাড়া পয়েন্ট থেকে বৃহস্পতিবার দিন ও রাতে মরদেহ পাওয়া যায় বলে জানিয়েছেন কক্সবাজার সদর থানার ওসি (তদন্ত) মো. খায়রুজ্জামান।

এ নিয়ে নয়জনের মরদেহ উদ্ধার হলেও ৭ মরদেহের পরিচয় সনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে। তারা সবাই ভোলার চরফ্যাশন এলাকা থেকে মাছ শিকারে গিয়ে নিখোঁজ হওয়া জেলে বলে দাবি করা হচ্ছে।

সনাক্ত হওয়া মরদেহগুলো হলো, ভোলার চরফ্যাশন রসুলপুর ১ নম্বর ওয়ার্ডের মৃত আসমান পাটারীর ছেলে শামছুদ্দিন পাটারী (৪৫), পূর্ব মান্দ্রাজ এলাকার মৃত আব্দু শহীদের বাবুল (৩২), উত্তর মাদ্রাজের মৃত আব্দুল হকের ছেলে মো. মাসুদ (৪৫), একই এলাকার মৃত বুজুগ হাওলাদারের ছেলে আজি উল্লাহ প্রকাশ মনির (৩৮), মৃত নুরের ছেলে অলি উল্লাহ (৫০) রসুলপুর ৬নং ওয়ার্ড শসীবিষণের মুসলিম বলির ছেলে জাহাঙ্গীর বলি (৪০) ও পূর্ব মান্দাজ ইউপির তরিক মাঝির ছেলে কামাল হোসেন (৩৫) ও অজ্ঞাত দুইজন।

ওসি খায়রুজ্জামান জানান, বুধবার ভোররাতে ঢেউয়ের তোড়ে একটি ট্রলার বীচের বালিয়াড়িতে উঠে আসে। এর পাশাপাশি কয়েকটি মরদেহও ভেসে তীরে এলে স্থানীয়দের সহায়তায় পুলিশ সি-গাল পয়েন্ট থেকে চার মরদেহ উদ্ধার করে। ভারী বর্ষণের মাঝেও আজ  সকাল ৯টার দিকে ট্রলারের ভেতর থেকে আরো দুটি মরদেহ উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে নেয়া হয়। পরিচয় সনাক্ত না হওয়া মরদেহটি ময়নাতদন্ত করে ডিএনএ টেস্টের মাধ্যমে পরিচয় জানার চেষ্টা করা হবে। সব মরদেহই একপ্রকার বিকৃত হয়ে গেছে।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মনির মাঝি জানান, ৪ জুলাই (বৃহস্পতিবার) চরফ্যাশনের শামরাজ ঘাট থেকে প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে মাছ শিকারের উদ্দেশ্যে সাগরে নামে তারা ১৫ মাঝিমাল্লা। ৬ জুলাই (শনিবার) ভোরে হঠাৎ ঝড়ো হাওয়ার কবলে পড়ে তাদের ট্রলারটি উল্টে যায়। ট্রলার থেকে ছিটকে পড়ে জেলেরা। তবে যে যারমতো ট্রলারটি ধরে রাখেন। ঢেউয়ের তোড়ে ট্রলারটি বার বার উল্টে গেলেও ধরে রাখার চেষ্টা করা হয়। এরপর কে কোথায় যায় খেয়াল নেই। এরই মাঝে প্লাস্টিকের বেশ কয়েকটি পানির বোতল ড্রামের সাথে বেঁধে ফেলা হয়। দুয়েকটি বোতলে পানি রেখে অন্য সব বোতলের পানি ফেলে দেয়া হয়। কক্সবাজার সৈকতে কিভাবে এলাম জানিনা।

দুর্ঘটনা কবলিত ট্রলারটির মালিক ওয়াজ উদ্দিনকে নিষেধাজ্ঞার সময়ে সাগরে বোট পাঠানোর বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি কোন সদুত্তর দেননি।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ইকবাল হোসাইন বলেন, ট্রলার মালিক ওয়াজ উদ্দিনকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। উদ্ধার হওয়া ৯ মরদেহের মাঝে ৭ জনের পরিচয় শনাক্ত করায় তাদের স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

Bootstrap Image Preview