Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৭ বৃহস্পতিবার, অক্টোবার ২০১৯ | ২ কার্তিক ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

কুলাউড়ায় ট্রেন দুর্ঘটনা: ৪ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৪ জুন ২০১৯, ০৯:৫৪ AM
আপডেট: ২৪ জুন ২০১৯, ০৯:৫৪ AM

bdmorning Image Preview
সংগৃহীত


মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলায় আন্তঃনগর উপবন এক্সপ্রেস ট্রেন দুর্ঘটনায় চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।

সোমবার সকাল ৮টার দিকে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোফাজ্জেল হোসেন ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের প্রধান যান্ত্রিক প্রকৌশলী মো. মিজানুর রহমানকে প্রধান করে চার সদস্যবিশিষ্ট এ তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। সাতটি বগির মধ্যে দুটো ব্রিজের নিচে পড়েছে, লাইন থেকে ছিটকে পড়েছে দুটি; আর তিনটি বগি লাইনচ্যুত হয়েছে। আখাউড়া থেকে উদ্ধারকারী দল ইতোমধ্যে কুলাউড়া এসে পৌঁছেছে।

রবিবার রাত পৌনে ১২টার দিকে সিলেট থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া আন্তঃনগর উপবন এক্সপ্রেস ট্রেনটি ভয়াবহ দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এতে ৭ জন নিহত এবং অন্তত ২৫০ যাত্রী আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে অনেকের অবস্থা গুরুতর।

যাত্রীদের চিৎকার শুনে পার্শ্ববর্তী বরমচাল বাজারে অবস্থানরত স্থানীয় বাসিন্দারা এগিয়ে আসেন। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে স্থানীয় মসজিদে মাইকিং করে উদ্ধারকাজে নামেন এলাকাবাসী। মাইকিং শুনে ঘর ছেড়ে ঘুম ভেঙে উদ্ধারকাজে নামেন নারী-পুরুষ উভয়ে।

স্থানীয় সাংবাদিকরা বলেন, মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার বরমচাল স্টেশন থেকে ২০০ মিটার দূরে কালামিয়া বাজারসংলগ্ন একটি ব্রিজে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় বাসিন্দা সৌরভ চৌধুরী বলেন, আমি তখন ঘুমিয়ে ছিলাম। হঠাৎ করে বিকট শব্দ শুনে ঘুম ভেঙে যায়। বের হয়ে দেখি মানুষজন চিৎকার করছেন আর একটি ট্রেন থামানো। দৌড়ে এসে দেখি উপবনের দুটি বগি ব্রিজ ভেঙে পড়ে আছে। দুটি বগি লাইনচ্যুত হয়ে আছে। সঙ্গে সঙ্গে যাত্রীদের আমরা বগি থেকে বের করে আনার কাজে নেমে পড়ি। ৫-১০ মিনিটের মাথায় স্থানীয় অর্ধশতাধিক মানুষ এসে উদ্ধারকাজে নামেন। এ সময় দেখি স্থানীয় নারীরাও উদ্ধারকাজে নেমেছেন।

স্থানীয় বাসিন্দা বরমচাল স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রভাষক হুমায়ুন কবির জানান, কুলাউড়ার বরমচাল স্টেশনসংলগ্ন একটি ব্রিজে হঠাৎ ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত হয়ে খালে পড়ে যায় এবং একটি বগি উল্টে যায়।

এতে ঘটনাস্থলে দুজনের মৃত্যু হয়েছে এবং লাইনচ্যুত বগির যাত্রী ছাড়াও মারাত্মক ঝাঁকুনিতে অন্তত ২৫০ যাত্রী আহত হয়েছেন বলে জানান তিনি।

জানা গেছে, সিলেট-ঢাকা মহাসড়কে ভারী যানচলাচল বন্ধ থাকায় ট্রেনের ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েন ঢাকাগামী যাত্রীরা। ফলে ধারণক্ষমতার চেয়ে প্রচুর যাত্রী নিয়ে ট্রেনটি সিলেট থেকে ছেড়ে যায়।

Bootstrap Image Preview