Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৬ মঙ্গলবার, জুলাই ২০১৯ | ১ শ্রাবণ ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

দেশে বাড়ছে ছেলে শিশুদের যৌন নির্যাতনের হার

বেড়ে চলেছে ছেলে উপরে যৌন নির্যাতনের হার

ইসতিয়াক ইসতি
ক্রাইম রিপোর্টার
প্রকাশিত: ১৯ জুন ২০১৯, ০৩:০০ PM
আপডেট: ১৯ জুন ২০১৯, ০৩:২৪ PM

bdmorning Image Preview
সংগৃহীত


বাংলাদেশে শিশুদের অধিকার নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করা সংস্থা ‘শিশু অধিকার ফোরামের’ প্রকাশিত তথ্য থেকে জানা যায়, দেশে মেয়ে শিশুদের মতো ছেলে শিশুদেরও যৌন নির্যাতনের হার দিন দিন বেড়ে চলেছে। তবে ছেলে শিশুদের নির্যাতনের বিষয়টি গণমাধ্যমে প্রচার পাচ্ছে কম।

তাদের যৌন নির্যাতনের শিকার একজন জন্য ১৭ বছরের আশিক (ছদ্দ নাম) । ঢাকার একটি বেসরকারি মেডিক্যাল হাসপাতালে বর্তমানে চিকিৎসা নিচ্ছে। কিছুদিন আগে তার মামাতো ভাই জোর করে পায়ুপথ দিয়ে শারীরিক সর্ম্পক স্থাপন করেছেন। যার ফলে তাঁর পায়ুপথ ছিঁড়ে যায়। পরে তাঁর বাবা-মা বিষয়টি জানাতে পারে তারা চিকিৎসার ব্যবস্থা করলেও কোনো আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করেন নি।

আইনি ব্যবস্থা কেন গ্রহণ নেন নি? এবিষয়ে এই কিশোরের পরিবারের সদস্যদের কাছে জানতে চাইলে তারা জানান, শুধু কাঁদা ছোঁড়াছুড়ি করে লাভ কি ভাই? এখন যদি কিছু করি তাহলে থানা পুলিশের ঝামেলা হবে। বাইরের মানুষের সামনে আমাদের সন্তানকে নানা প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হবে। যার ফলে সে আরো ভেঙ্গে পড়বে। এমনিতে মানসিক ভাবে অনেক দূবল হয়ে পড়েছে আমাদের ছেলে।

বাংলাদেশ শিশু অধিকার ফোরামের পরিচালক মো. আবদুস শহীদের সাথে এবিষয়ে কথা হলে তিনি জানান, একটা সময় শুধু বাসা বাড়ি ও আবাসিক স্কুল বা মাদ্রাসায় ছেলে শিশুদের ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেলেও। বর্তমানে দেখা যাচ্ছে শ্রমজীবী বা পথ-শিশুরা অধিকাংশ ধর্ষণের শিকার হচ্ছে। লঞ্চ বা বাস টার্মিনাল, ফুটপাত, মার্কেটসহ আশ্রয়হীন মানুষ রাত্রিযাপন করে সেসব জায়গায় ছেলে ধর্ষণের ঘটনা ঘটছে। যা আমাদের সমাজের জন্য অনেক বড় হুমকি হয়ে দেখা দিতে পারে নিকট ভবিষ্যতে।

বিডিমর্নিং-এর নিজস্ব জরিপে উঠে এসেছে ২০১৭ সাল থেকে চলতি বছরের মে মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত  ৩৭ জন ছেলে শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। প্রসঙ্গত বাংলাদেশে বহু ছেলে ধর্ষণের ঘটনা ঘটলেও ভিকটিম বা পরিবারের সদস্যরা সামাজিক অবস্থার কথা চিন্তা করে বেশিভাগ সময় ঘটনাগুলো প্রকাশ করে না।

যার মধ্যে ২০১৭ সালে ১৪টি ছেলে শিশু ধর্ষণ ও যৌন নির্যাতনের শিকারের সংবাদ প্রকাশ হয়েছে। ২০১৮ সালে এর সংখ্যা ১৩ জনের। আর চলতি বছরের মে মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত ১০ জন ছেলে শিশু ধর্ষণের সংবাদ পাওয়া দিয়েছে।

ছেলেদের ধর্ষণের একাধিক ঘটনা নিয়ে কাজ করা ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিশেষ পাবলিক প্রসিকিউটর আবদুল বারী জানান,আসলে সামাজিক অবস্থান চিন্তা করে এখনো অনেক এমন ঘটনাগুলো প্রকাশ করছেন না এবং অনেকে আবার সঠিক ভাবে জানা ঠিক কি আইনে মামলা করতে হবে। যার ফলে মামলা করছে না।

তাহলে কি আইনে ছেলেদের ধর্ষণের মামলা হবে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, মেয়ে শিশু বা ছেলে শিশু ধর্ষণের বিচার আলাদা কোনও আইনে নেই, বরং ‘নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন-২০০০’ অনুযায়ী বিচার হবে।

এই আইন সর্ম্পকে বেশি করে সাধারণ মানুষে সচেতন করতে হবে। তাহলেই আমাদের সমাজ থেকে এ ধরনের ঘটনাগুলো বন্ধ করা সম্ভব হবে বলে জানান এই কর্মকর্তা ।

এবিষয়ে হওয়া মামলার বিষয়ে অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের) মিডিয়া এন্ড পাবলিক রিলেশনস বিভাগ মো.ওবায়দুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান,  এবিষয়ে সেভাবে মামলা হয়ে না বললেই চলে। আর যে কয়টি মামলা হচ্ছে সেগুলোর বেশিভাগ সরাসরি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ ট্রাইব্যুনালের আন্ডারে হচ্ছে।

Bootstrap Image Preview