Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৬ রবিবার, জুন ২০১৯ | ২ আষাঢ় ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখবে মধু-দারুচিনি!

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ২২ মে ২০১৯, ১১:২৯ AM
আপডেট: ২২ মে ২০১৯, ১১:২৯ AM

bdmorning Image Preview


মধু ও দারুচিনির ভেষজ গুণাগুণ প্রাকৃতিকভাবে সাহায্য করে ওজন কমাতে। মধু ফ্যাট বার্নিং হরমোন উৎপন্ন করে যা শরীরের অপ্রয়োজনীয় মেদ দূর করে সুস্থ রাখে শরীর। দারুচিনি দেহের কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। এই দুই ভেষজ উপকরণ একসঙ্গে কাজ করে আরও দ্রুত। লাইফস্টাইল বিষয়ক ওয়েবসাইট বোল্ডস্কাই জানিয়েছে মধু ও দারুচিনি কীভাবে ওজন কমাবে।

একাধিক গবেষণায় প্রমাণ হয়েছে, মধু দারুচিনির পানি খেতে পারলে খুব অল্প সময়ের মধ্যেই বাতের ব্যথা কমে যায়। এর জন্য ১ গ্লাস গরম পানির সঙ্গে ২ চামচ মধু আর ১ চামচ দারুচিনির গুঁড়ো মিশিয়ে নিয়ে খেয়ে নিন। এটি সকালে ঘুম থেকে উঠে আর রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে নিয়মিত খেতে পারলে দেখবেন কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই বাতের ব্যথা অনেকটাই কমে গিয়েছে।

এক গ্লাস উষ্ণ গরম পানির সঙ্গে ২ চামচ মধু আর ১ চামচ দারুচিনির গুঁড়ো মিশিয়ে প্রতিদিন সকালে খেয়ে নিন। এটি মুখের দুর্গন্ধ কাটাতে অত্যন্ত কার্যকর।

শরীরের বাড়তি ওজন কমাতেও মধু-দারুচিনির মিশ্রণ অত্যন্ত কার্যকর! গবেষকরা বলেন, দারুচিনি আর মধু দ্রুত চর্বি কমাতে সাহায্য করে। প্রতিদিন ১ চামচ দারুচিনির গুঁড়ো আর ২ চামচ মধু মধু দিয়ে এক গ্লাস পানি খালিপেটে খেয়ে নিন। এটি দ্রুত ওজন কমাবে।

প্রচুর চুল পড়ে যাচ্ছে? তাহলে অলিভ অয়েলের সঙ্গে ১ চামচ মধু আর ১ চামচ দারুচিনির গুঁড়ো মিশিয়ে ঘন পেষ্ট তৈরি করে নিন। এই পেস্ট চুলের ফাঁকা জায়গায় লাগান যেখান থেকে চুল পড়ে গিয়েছে সেখানে। এই পেস্ট দিয়ে চুলের গোড়ায় অন্তত ১৫ মিনিট মালিশ করুন। তারপর উষ্ণ গরম পানি দিয়ে চুল শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন। এই পদ্ধতিতে সপ্তাহে অন্তত ৩ দিন চুলের যত্ন নিতে পারলে চুল পড়ার সমস্যা অনেকটাই কমে যাবে, একই সঙ্গে গজাবে নতুন চুলও।

এক কাপ চায়ে দুধ, চিনি ছাড়া ২ চামচ মধু আর ৩ চামচ দারুচিনির গুঁড়ো মিশিয়ে খেয়ে দেখুন। এই চা রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা ১০ শতাংশ পর্যন্ত কমিয়ে দিতে পারে। রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে এই মিশ্রণ অত্যন্ত কার্যকর।

হৃদযন্ত্রের সুস্থতার জন্য দারুচিনি আর মধুর পানির কোনো বিকল্প নেই। প্রতিদিন সকালে এক গ্লাস পানির সঙ্গে ২ চামচ মধু আর ১ চামচ দারুচিনির গুঁড়ো মিশিয়ে ওই পানি খেতে পারলে হৃদরোগের ঝুঁকি অনেকটাই কমে যায়।

Bootstrap Image Preview